২২, জানুয়ারী, ২০১৮, সোমবার | | ৫ জমাদিউল আউয়াল ১৪৩৯

শিরোনাম ভারতে ট্রেনে বাংলাদেশি নারীর শ্লীলতাহানি করল বিএসএফ জওয়ান সৈয়দপুর বিমানবন্দরে যাত্রা শুরু করল রিজেন্ট এয়ারওয়েজ প্রতিদিন চলবে দুটি বিশ্বরেকর্ড গড়তে তামিমের প্রয়োজন মাত্র ৪২ রান! উল্লাপাড়ায় গৃহবধূ কে জোরপূর্বক ধর্ষনের চেষ্টার অভিযোগ আইপিএলে এখন পর্যন্ত মাশরাফিকে ছাড়াতে পারেনি কোনো বাংলাদেশী! ওয়ালটন মিডিয়া কাপ ব্যাডমিন্টন ফেব্রুয়ারিতে রাজধানীর মিরপুরে মাদকের ছড়াছড়ি বিষের বোতল হাতে বিয়ের দাবিতে প্রেমিকের বাড়িতে কলেজছাত্রীর অনশন মানবতার দৃষ্টান্ত রাখলেন সিরাজদিখান উপজেলা চেয়ারম্যান মহিউদ্দিন আহমেদ বিসিএলে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ রানের রেকর্ড খুলনায়

অভিভাবককে হাত-পাবেঁধে এ কেমন নির্যাতন

আপডেট: ০৯ জানুয়ারী ২০১৮, ১০:৩৮ এএম

অভিভাবককে হাত-পাবেঁধে এ কেমন নির্যাতন

ছেলে কেন এ প্লাস পেল না— জানতে চাওয়ায় এক অভিভাবকের ওপর পৈশাচিক নির্যাতন চালানোর ঘটনায় কক্সবাজারজুড়ে তোলপাড় চলছে। রবিবার সকাল ১০টায় কক্সবাজার সদরের ঝিলংজা খরুলিয়া উচ্চবিদ্যালয় মাঠে প্রকাশ্যে এ ঘটনা ঘটানো হয়। গতকাল এ ব্যাপারে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকসহ সাত শিক্ষকের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে।

জানা গেছে, অভিভাবক আয়াত উল্লাহর ছেলে শাহরিয়ার নাফিস আবির খরুলিয়া কেজি অ্যান্ড প্রি-ক্যাডেট স্কুলের দ্বিতীয় শ্রেণির ছাত্র। প্রথম শ্রেণিতে ছেলে কেন এ প্লাস পেল

না— জানতে রবিবার সকালে স্কুলে যান আয়াত উল্লাহ। এ সময় তিনি পূর্বঘোষণা ছাড়াই ভর্তি ও মাসিক বেতন বাড়ানোর বিষয়েও জানতে চান। এ নিয়ে স্কুলের প্রধান শিক্ষক মাস্টার বোরহান উদ্দিনের সঙ্গে তার কথাকাটাকাটি হয়। এ সময় বোরহান উদ্দিন পাশের খরুলিয়া উচ্চবিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক জহিরুল হককে ডাকেন। জহিরুল হক এসে আয়াত উল্লাহকে ধাক্কা মারেন। বোরহান উদ্দিনও আরেক ধাক্কা মারেন। দুজনের ধাক্কায় মাটিতে পড়ে যান অসহায় অভিভাবক আয়াত উল্লাহ। এরপর রশি দিয়ে তার হাত ও পা বেঁধে ফেলা হয়। দুই প্রধান শিক্ষকসহ তাদের সহযোগী শিক্ষকরা মিলে এ অবস্থায় আয়াত উল্লাহকে মারধর শুরু করেন। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, এ সময় জহিরুল হক ও বোরহান উদ্দিন আয়াত উল্লাহকে উপর্যুপরি লাথি ও থুথু দেন। কেউ এর প্রতিবাদ করার সাহস পায়নি। প্রসঙ্গত, আয়াত উল্লাহ ঝিলংজা খরুলিয়া ঘাটপাড়ার মাওলানা কবির আহমদের ছেলে। তিনি পেশায় চিত্রশিল্পী। এদিকে এ ঘটনায় তিনি গতকাল সাতজনের নামে মামলা করেছেন। কক্সবাজার সদর মডেল থানায় করা মামলার আসামিরা হলেন খরুলিয়া উচ্চবিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক জহিরুল হক, খরুলিয়া কেজি অ্যান্ড প্রি-ক্যাডেট স্কুলের প্রধান শিক্ষক বোরহান উদ্দিন, শিক্ষক ওবাইদুল হক, নুরুল হক, নজিবুল্লাহ, আবদুল আজিজ ও দফতরি নুরুল হক। থানার ওসি রণজিৎ বড়ুয়া জানান, আসামিদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে। এ ছাড়া এ ঘটনায় খরুলিয়া উচ্চবিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক জহিরুল হককে শোকজ করতে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসারকে নির্দেশ নিয়েছেন কক্সবাজার সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. নোমান হোসেন। তিনি দুপুরে আয়াত উল্লাহর বাড়ি গিয়ে তার চিকিৎসার খোঁজখবর নেন। এ সময় তার সঙ্গে জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক নাজনীন সরওয়ার কাবেরী, ইউপি চেয়ারম্যান টিপু সোলতান, ইউপি সদস্য শরীফ উদ্দিনসহ স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিরা উপস্থিত ছিলেন।