১৮, জানুয়ারী, ২০১৮, বৃহস্পতিবার | | ১ জমাদিউল আউয়াল ১৪৩৯

পানি ছাড়া বেঁচে থাকা যায় কি, আর সেটাও কতদিন?

আপডেট: ২৭ ডিসেম্বর ২০১৭, ১০:০৬ এএম

পানি ছাড়া বেঁচে থাকা যায় কি, আর সেটাও কতদিন?

পানির অপর নাম জীবন। কিন্তু যদি পানি পান না করেন তবে কী হবে? পানি ছাড়া বেঁচে থাকা যায় কি? আর সেটাও কতদিন? গবেষণা বলছে, মানবদেহে পানির প্রয়োজন এতই বেশি যে পানি ছাড়া দুই থেকে সাত দিনের বেশি মানুষ বাঁচে না।

চিকিৎসাবিদ্যা মতে, নারীদের শরীরের অর্ধেক ও পুরুষের শরীরের ষাট শতাংশ পানি দ্বারা পূর্ণ। তাই শরীরে এক শতাংশ পানি কম হলেই আমরা পিপাসা বোধ করি। পানি পান না করলে শুষ্কতা, অবসাদগ্রস্ততা, চোখে কম দেখা, মূত্রের রঙ ও গন্ধ বদলে যাওয়া, ত্বকের সমস্যা, রক্তচাপ কমে যাওয়া

ইত্যাদি নানা ধরণের সমস্যা হতে পারে।

শরীরের রক্ত চলাচল কমে গিয়ে রোগী কোমাতেও চলে যায়। এমনকি মৃত্যুও হতে পারে। কোষ্ঠকাঠিন্য ও অভ্যন্তরীণ সুস্থতার জন্য পানি পান অবশ্য জরুরি। না হলে হজমে সমস্যা দেখা দেয়। অন্যদিকে পানি পান না করলে শরীর থেকে ঘামের সাথে বর্জ্য পদার্থ বের হতে পারে না। পেশী দুর্বল হয়ে কাজ করা বন্ধ করে দেয়। কারণ হাড় ও পেশীর কার্যক্রম ঠিক রাখে পানি।

অবাক করা তথ্য হচ্ছে, নিঃশ্বাস ও প্রশ্বাসের জন্যও পানি খরচ হয়ে থাকে। মোট কথা সবধরণের শারীরিক কাজের জন্যই পানির প্রয়োজন।

তবে ভারতের প্রহ্লাদ জানি টানা পনের দিন ক্যামেরার সামনে নজরবন্দি থেকে প্রমাণ করেছেন তিনি পানি পান না করেই সুস্থভাবে বেঁচে আছেন। গবেষণার পর তাকে পরীক্ষা নিরীক্ষা করা হলে দেখা যায়, পানি পান না করায় তার শরীরে কোন সমস্যা দেখা দেয়নি বরং সবকিছু স্বাভাবিক। তবে পিটার ফেলেক নামের এক ভদ্রলোক শখের বশেই পানি খাওয়া ছেড়ে দিয়েছিলেন। কাঁচা সবজি খেয়েই তিনি পানির অভাব পূরণ করেন, তাই আলাদা করে পানি খাওয়ার দরকার হয় না তার। তবে সাধারন মানুষ হিসেবে আমাদের দিনে সাত থেকে আট গ্লাস পানি খাওয়া উচিত। না হলে অসুস্থতাজনিত নানা সমস্যা দেখা দিতে পারে।