দিনাজপুরের ঘোড়াঘাটে খেলতে গিয়ে পুকুরের পড়ে পানিতে ডুবে যায় ৭ বছর বয়সী ৩ শিশু। এদের মধ্যে আব্দুর রহমান (৭) নামে এক শিশুর মৃত্যু হয়েছে। অপর দুই শিশুর অবস্থাও আশংকাজনক হওয়ায় তাদেরকে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়েছে।

বুধবার সকাল সাড়ে ৮টায় উপজেলার ২নং পালশা ইউনিয়নের বেলওয়া গ্রামে এই দুর্ঘটনা ঘটে। নিহত শিশু আব্দুর রহমান বেলওয়া-নয়নদীঘি গ্রামের সোহান মিয়ার ছেলে। আশংকাজনক অন্য দুই শিশু হলেন ঘোড়াঘাট উপজেলার শালগ্রামের হোসেন আলীর ছেলে জিহাদ (৭) এবং গাইবান্ধার সাদুল্ল্যাহপুর উপজেলার আব্দুল মমিন মিয়ার ছোবাহান (৭)। শিশু সোবাহান তার নানী বাড়িতে বেড়াতে এসেছিলেন।

শিশুদের পরিবার সূত্রে জানা যায়, সকালে খেলাধূলা করছিলেন কয়েকজন শিশু। খেলতে খেলতে তার বাড়ির পেছনে থাকা একটি পুকুরে পড়ে যায়। কিছুসময় পর একটি শিশুর চিৎকার শুনতে পায় পরিবারের সদস্যরা। পরে পরিবারের সদস্যরা পুকুরের পানিতে হাবুডুবু খাওয়া অবস্থায় শিশু জিহাদ ও সোবাহানকে উদ্ধার করে। তবে তখন শিশু রহমান নিখোঁজ ছিলো। খোঁজাখুঁজির এক পর্যায়ে শিশু রহমানের পরনে থাকা প্যান্টের কিছু অংশ পানিতে ভাসতে থাকায় তাকেও উদ্ধার করা হয়। পরে তিনজন শিশুকেই উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করলে করলে কর্তব্যরত চিকিৎসক শিশু জিহাদকে মৃত ঘোষণা করে।

ঘোড়াঘাট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরী বিভাগের মেডিকেল অফিসার ডাঃ প্রিয়াঙ্ক কুন্ডু বলেন, সকালে ৩ জন শিশুকে হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়েছিল। আমরা একজনকে মৃত অবস্থায় পেয়েছি। বাকি দুজনের মধ্যে একজনের অবস্থা আশংকাজনক। তাদেরকে রংপুরে স্থানান্তর করা হয়েছে।

ঘোড়াঘাট থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) দেবব্রত রায় বলেন, পানিতে ডুবে শিশু নিহতের ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যুর মামলা করা হয়েছে। পরিবারের কোন অভিযোগ না থাকায় আইনগত প্রক্রিয়া শেষ করে মরদেহ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।