ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জে মাদক কেনাবেচা নিয়ে মাদক ব্যবসায়ী মো. রুবেলের ছুড়ির আঘাতে হৃদয় খান (২৬) নামে এক যুবক নিহতের ঘটনায় মামলা করেছে ভুক্তভোগী পরিবারের পক্ষ থেকে। মামলায় মাদক ব্যবসায়ী রুবেলসহ ৫ জনের নামউল্লেখ করা হয়েছে। এছাড়াও আরো ৪/৫ জনকে অজ্ঞাত আসামী করা হয়েছে। এই ঘটনায় দুইজন আসামীকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। এদিকে হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত ছুড়িটি উদ্ধার করেছে পুলিশ।

শুক্রবার (১৪ জুন) আশুগঞ্জ থানায় হৃদয় খানের বাবা মো. জসিম উদ্দিন বাদি হয়ে এই মামলাটি দায়ের করেন। মামলায় উপজেলার যাত্রাপুর গ্রামের আব্দুর রহিম মিয়ার ছেলে রুবেল, আব্দুর রশিদ এর ছেলে সেলিম, সৈয়দ হোসেন মিয়ার ছেলে শাহাদাত হোসেন বাক্কি, আরিজ মিয়ার ছেলে মো মনির ও আবু আব্দুল্লাহ মিয়ার ছেলে আব্দুল্লাহ আল মতিনকে আসামি করা হয়েছে।

এর আগে বৃহস্পতিবার (১৩ জুন) সকালে আশুগঞ্জ উপজেলার যাত্রাপুর গ্রামের রানী পুকুরের পাড়ে ঘাতক রুবেল হৃদয়কে ছুড়িকাঘাত করে।

মামলার এজাহারে উল্লেখ করা হয়, আসামিদের সাথে পূর্ব থেকেই বিরোধ চলে আসছিল। এরই জের ধরে বৃহস্পতিবার (১৩ জুন) সকালে হৃদয়কে নিজ বাড়ি থেকে রুবেল ও সেলিম ডেকে নিয়ে যায়। এসময় বাড়ির বাহিরে আরো তিন চারজন দাড়িয়ে ছিল। পরে সকল আসামি মিলে হৃদয়কে রুবেল এর বাড়িতে রুবেলের ঘরে নিয়ে হত্যার উদ্দেশ্যে মারপিট শুরু করে। এসময় হৃদয়কে গলা পেট পিঠ্সহ শরীরের বিভিন্নস্থানে ছুড়িকাঘাত করে আসামীরা। পরে হৃদয়কে মৃত ভেবে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এর সামনে ফেলে যায়। পরে সাক্ষীরা হৃদয়কে উদ্ধার করে প্রথমে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায়। পরে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় নেয়ার সময় তার মৃত্যু হয়।

এব্যাপারে নিহতের পিতা মো: জসিম উদ্দিন বলেন, সকালে আমার ছেলে হৃদয়কে বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে যায় রুবেল ও সেলিম। আমার ছেলেকে পরিকল্পিত ভাবে খুন করা হয়েছে।
খুনিদের দৃষ্টান্তমুলক শাস্তি দাবি করেন তিনি।

আশুগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মাদ নাহিদ আহমেদ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, হৃদয়ের বাবা মো. জসিম ঊদ্দিন বাদি হয়ে ৫ জনের নামউল্লেখ করে এবং ৪/৫ জনকে অজ্ঞাত আসামী করে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেছেন। মামলা নিয়ে ঘটনার প্রকৃত কারন উদঘাটন করার জন্য পুলিশের তদন্ত চলমান আছে।

এই মামলার এজাহারে উল্লেখ করা রুবেল ও মতিনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। বাকি আসামিদের গ্রেফতারের জন্য বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চলমান আছে। এই হত্যাকান্ডে ব্যবহার করা ছুরি উদ্ধার করা হয়েছে। দ্রুতই এই ঘটনার রহস্য উন্মোচন করা হবে।