নাগরিক ঐক্যের সভাপতি মাহমুদুর রহমান মান্না বলেছেন, ‘কোন এক সাদা চামড়ার লোক প্রস্তাব দিয়েছে পার্বত্য চট্টগ্রাম ও মিয়ানমারের অংশ নিয়ে খ্রিষ্টান রাষ্ট্র করতে চায়। এই সাদা চামড়ার লোকের বাড়ি কোথায়? এর নাম কী? আমরা এর জবাব চাই।’

আজ রবিবার জাতীয় প্রেসক্লাবে গণসংহতি আন্দোলন উদ্যোগে আব্দুস সালামের ৭ম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে ‘জনগণের মুক্তির সংগ্রাম এবং গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র ও সংবিধান প্রতিষ্ঠার লড়াই’ শীর্ষক আলোচনা সভায় তিনি এ মন্তব্য করেন।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বক্তব্যের জবাবে মাহমুদুর রহমান মান্না বলেন, ‘কোন এক সাদা চামড়ার লোক নাকি প্রস্তাব দিয়েছে পার্বত্য চট্টগ্রাম মিয়ানমারের অংশ নিয়ে খ্রিষ্টান রাষ্ট্র করতে চায়। এই সাদা চামড়ার লোকের বাড়ি কোথায় তা স্পষ্ট করে বলতে হবে। আমরা এর জবাব চাই। এটা কোন সাদা চামড়া বলল? আমেরিকান, কানাডিয়ান, ইউরোপীয় কোনো দেশ নাকি জাপানিজ? এরা তো সবাই সাদা চামড়ার মানুষ।’

আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, ‘৭ জানুয়ারি ভোটই হয়নি, জিতলেন কিভাবে? আপনার নেত্রী বলছেন, ‘‘আমরা (সরকার) বড় কষ্টে আছি?” কেন তিনি (প্রধানমন্ত্রী) কষ্টে আছেন, তিন কারণে তিনি কষ্টে আছেন। এ দায় কার? বেগম খালেদা জিয়া তো বেনজীর আহমেদ আজিজ আহমেদকে এতদূর আনেনি। এদের তো বানিয়েছে শেখ হাসিনা।’

আওয়ামী লীগ হচ্ছে দুর্বৃত্ত তৈরির কারখানা বলে মন্তব্য করেন মান্না। গণমাধ্যমে প্রকাশিত খবর প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘কোনো উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান বা এমপি পাঁচ বছর আগে কত বাড়ির মালিক ছিল, এখন কতশত বাড়ি-টাকার মালিক। কিভাবে হলো? এর তো কোনো তদন্ত হয় না। কিন্তু বেগম খালেদা জিয়ার দুই কোটি টাকা ব্যাংকেই আছে, তা আট কোটি হয়েছে। বেগম জিয়ার সাজা হয়েছে, জেল খাটছে কিন্তু বেগম জিয়ার মুক্তি মিলছে না। লড়াই করা ছাড়া এই সরকার যাবে না।’

আন্তর্জাতিকভাবে এই সরকারের কোনো বন্ধু নেই উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘ভারত ও চীন তিস্তা নিয়ে রশি টানছে। তাদের সঙ্গে ইউরোপীয় ইউনিয়ন নেই। সবদিকে সরকার আটকে গেছে।’

গণসংহতি আন্দোলনের প্রধান সমন্বয়কারী জোনায়েদ সাকি বলেন, ‘২০১৮ সালের রাতের ভোটের কারচুপির সভাপতিত্ব করেছেন জেনারেল আজিজ। তিনি কিভাবে বলেছিলেন, ‘‘২০১৮ নির্বাচন সবচেয়ে ভালো নির্বাচন হয়েছে।” জেনারেল আজিজ, বেনজীর আহমেদের মতো আরও আমলাদের নাম হয়তো সামনে আসবে।’

বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক সাইফুল হক বলেন, ‘আওয়ামী লীগ গণতন্ত্রের পরিবর্তে এখন একটা ফ্যাসিবাদী শাসন ও স্বৈরতন্ত্র দেশকে উপহার দিচ্ছে। আওয়ামী লীগের সঙ্গে মুক্তিযুদ্ধের চেতনার দূরবর্তী কোনো সম্পর্ক নেই।’

এ সময় আরও বক্তব্য দেন, রাষ্ট্র সংস্কার আন্দোলনের প্রধান সমন্বয়ক অ্যাডভোকেট হাসনাত কাইয়ুম, জেএসডি’র সাধারণ সম্পাদক শহীদ উদ্দিন মাহমুদ স্বপন, গণমুক্তি কাউন্সিলের সাধারণ সম্পাদক ফয়জুল হাকিম লালা, জাসদের সাধারণ সম্পাদক নাজমুল হক প্রধান, গণফোরামের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট সুব্রত চৌধুরীসহ আরও অনেকে।