অর্থ মন্ত্রণালয় কর্তৃক জারিকৃত পেনশন সংক্রান্ত প্রত্যয় স্কিম প্রজ্ঞাপন প্রত্যাহার, সুপার গ্রেডে বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকদের অন্তর্ভুক্তকরণ এবং শিক্ষকদের জন্য স্বতন্ত্র বেতন স্কেল প্রবর্তনের দাবিতে বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি ফেডারেশনের আহ্বানে মানববন্ধন করেন কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি।

রবিবার (২৬ মে) সাড়ে ১১ টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের বঙ্গবন্ধু ভাস্কর্যের সামনে শিক্ষক সমিতির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ড. মাহমুদুল হাসানের সঞ্চালনায় এ মানববন্ধন হয়।

মানববন্ধনে শিক্ষক সমিতির সদস্য ড. মো: শামিমুল ইসলাম বলেন, শিক্ষাঙ্গনকে ধ্বংসের মুখে ঠেলে দেওয়ার জন্য তীলে তীলে নানামুখী কর্ম পরিকল্পনা গৃহীত হচ্ছে এবং তা বাস্তবয়নের জন্য পায়তারা করা হচ্ছে। বেতন কাঠামোর যে পেনশন নীতিমালা শিক্ষকদের জন্য প্রচলিত ছিলো সেটি থেকে সুক্ষ্মভাবে তাদেরকে বঞ্চিত করতে যে প্রত্যয় নামক যে সার্বক্ষণিক স্কিম সেটিতে বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকদের অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। এটি কোনোভাবেই কাঙ্ক্ষিত না। আমি আমার সহকর্মীদের উদাত্ত আহ্বান জানাবো কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় যাতে সামনেও এধরণের আন্দোলন সংগ্রামে নেতৃত্ব দিতে পারে এবং বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি ফেডারেশনের কর্মসূচীতে সর্বাত্তক অংশগ্রহণের মাধ্যমে আমরা যেন সেই কর্মসূচীকে সফল করতে পারি সেই আহ্বান জানাচ্ছি।

মানববন্ধনে শিক্ষক সমিতির সভাপতি ড. মোঃ আবু তাহের বলেন,’সার্বজনীন পেনশন প্রত্যয় স্কিম প্রত্যাহারের জন্য বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি ফেডারেশন কতৃক গৃহীত কর্মসূচির অংশ হিসেবে আমরা কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি আজকের মানববন্ধন কর্মসূচিতে অংশগ্রহণ করেছি। প্রত্যয় পেনশন স্কিম হলো একটি বৈষম্যমূলক পেনশন স্কিম। সরকারকে নানাভাবে প্রলুব্ধ করে শিক্ষদের বঞ্চিত করার জন্য এই প্রত্যয় স্কিম চালু করা হয়েছে। সর্বোচ্চ মেধার স্বীকৃতি নিয়ে একজন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক নিয়োগ দেওয়া হয়। অথচ সরকারের তিনটি বাহিনী (সেনা, নৌ, বিমান বাহিনী) কে এই প্রত্যয় স্কিমের আওতায় নিয়ে আসা হয়নি কিন্তু শিক্ষকদের নিয়ে আসা হয়ে। ২০১৫ সালে যখন বেতন স্কেল হয় তখন প্রতিশ্রুতি দেওয়া হয়েছিল যে শিক্ষদের সুপার গ্রেডে নিয়ে আসা হবে। কিন্তু সেটা এখন পর্যন্ত বাস্তবায়ন হয়নি। আবার নতুন করে এই প্রত্যয় স্কিম চালু করে শিক্ষকদের ক্ষতিগ্রস্ত করা হচ্ছে।এভাবে অতন্ত্য সু-কৌশলে দেশকে মেধাশূন্য করার চেষ্টা চলছে। আমরা কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি এর তীব্র নিন্দা জানাচ্ছি এবং এই পেনশন স্কিম প্রত্যাখ্যান করছি।’

বার্তা বাজার/এইচএসএস