৬ষ্ঠ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে কক্সবাজারের উখিয়ায় আওয়ামী লীগের ৩ জন চেয়ারম্যান প্রার্থীসহ ভাইস চেয়ারম্যান ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ১১ জন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

এ উপজেলায় ৫টি ইউনিয়নের গ্রাম-পাড়া মহল্লায় দুপুর থেকে সন্ধ্যা এমনকি গভীর রাত পর্যন্ত প্রার্থীরা নিজেদের কর্মী সমর্থকদের নিয়ে ভোটারের কাছে ভোট প্রার্থনা করছেন। গড়ে তুলেছেন পাড়া মহল্লায় নির্বাচনী ক্যাম্প। চলছে চায়ের আড্ডা ও ভোটের হিসাব নিকাশ।

জানা যায়, উখিয়া উপজেলা পরিষদ নির্বাচন প্রথমে সম্পুন্ন একতরফা থাকলেও ২৩ মে সকালে উখিয়া উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ হামিদুল হক চৌধুরীর মৃত্যুর পরপরই শেষ মুর্হুতে এসে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের ৩ জন প্রার্থীর মধ্যে ২ জনের মধ্যে শুরু হয়েছে তুমুল প্রতিদ্বন্দ্বিতা। এখানে কেউ কারও চেয়ে বর্তমানে কম নয়। প্রত্যেক প্রার্থী নিজেদের সমর্থক নিয়ে ভোটারের কাছে ছুটছেন এবং মিটিং মিছিল অব্যাহত রেখছেন পাড়া এবং মহল্লায়। এদিকে পারিবারিক কোন্দল জাহাঙ্গীর কবির চৌধুরী ও জাফর আলম চৌধুরীর জন্য শেষ মুহূর্তে কাল হয়ে দাড়াতে পারে। জাহাঙ্গীর কবির চৌধুরী ও জাফর আলম চৌধুরী আপন চাচা-ভাতিজা।

নির্বাচনে ৩ জন চেয়ারম্যান প্রার্থীর মধ্যে রয়েছেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি জাহাঙ্গীর কবির চৌধুরী (আনারস প্রতীক)। তিনি রাজাপালং ইউনিয়ন পরিষদের টানা ৩ বারের চেয়ারম্যান। আসন্ন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার জন্য তিনি ইউপি চেয়ারম্যান থেকে পদত্যাগ করেন।

এছাড়াও রয়েছেন উখিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা বীর মুক্তিযোদ্ধা জাফর আলম চৌধুরী (ঘোড়া প্রতীক) ও কক্সবাজার জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও উখিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আবুল মনসুর চৌধুরী (মোটরসাইকেল প্রতীক)। এ উপজেলায় বিএনপি নির্বাচনে না নেওয়ায় নিজেদের মধ্যেই নিজেরাই প্রতিদ্বদ্ধীতা করছেন।

অপরদিকে উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৫ জন প্রার্থীর মধ্যে রয়েছেন উপজেলা পরিষদের বর্তমান ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর আলম পেয়েছেন ( টিউবওয়েল প্রতীক), উখিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ রাসেল চৌধুরী পেয়েছেন (তালা প্রতীক), উখিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি কামাল উদ্দিন মিন্টু পেয়েছেন (মাইক প্রতীক), সাবেক ছাত্রলীগ নেতা ও উখিয়া প্রেস ক্লাবের সাবেক সহ সভাপতি গফুর চৌধুরী পেয়েছেন (চশমা প্রতীক) ও জামায়াত নেতা গফুর উল্লাহ পেয়েছেন (বই প্রতীক)।

এছাড়াও সংরক্ষিত মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে
লড়ছেন তিনজন। বর্তমান মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান ও উখিয়া উপজেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক কামরুন্নেছা বেবী পেয়েছেন (কলসী প্রতীক), সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান শাহীন আক্তার পেয়েছেন (হাঁস প্রতীক) ও সানজিদা আক্তার নূরী পেয়েছেন (প্রজাপতি প্রতীক)।

সাধারণ ভোটাররা বলেন, এবার দলীয় কোন প্রতীক না থাকায় যার যার প্রছন্দের ব্যক্তি বা প্রার্থীর নির্বাচন করতে পারছেন। নেই দলীয় প্রভাব নেই কোন বাধ্যবাধকতা। তবে বিএনপি নির্বাচনে না আসলেও বিএনপির বেশ কিছু নেতাকর্মী বিভিন্ন প্রার্থীর পক্ষে প্রকাশ্যে প্রচার প্রচারণা করছেন। তবে ভোট কেন্দ্রে ভোটার উপস্থিতি নিয়ে রয়েছে নানা জল্পনা কল্পনা । কারণ এক দিকে বিএনপি সহ অন্য বৃহত্তর রাজনৈকিত দল নির্বাচনের মাঠে নেই। ৩ জন চেয়ারম্যান প্রার্থী নির্বাচনে অংশ গ্রহণ করলেও মূলত ২ জনের মধ্যে প্রতিদ্বন্দ্বিতা হবে। তবে এরমধ্যে মূল প্রতিদ্বন্দ্বিতায় রয়েছেন জাহাঙ্গীর কবির চৌধুরী (আনারস) ও আবুল মনসুর চৌধুরী (মোটরসাইকেল)। উখিয়া সদরসহ বিভিন্ন ইউনিয়নে এ আভাস মিলেছে বিভিন্ন মাধ্যমে।

উখিয়া উপজেলা নির্বাচন অফিসার ও সহকারী রির্টানিং কর্মকর্তা মুহাম্মদ মিজানুর রহমান বলেন, চেয়ারম্যান চেয়ারম্যান পদে ৩ জন, ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৫ জন ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৩ জন স্বতন্ত্র প্রার্থী প্রতিদ্বন্ধীতা করছেন। উপজেলা নির্বাচন অবাধ সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ করার লক্ষ্যে আমাদের সব প্রস্তুতি চলছে। প্রার্থীরা যাতে আচারণবিধি মেনে প্রচারণা করেন সেদিকে নজরদারি রয়েছে।

উপজেলা নির্বাচন কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, এ উপজেলায় মোট ১লাখ ৫১ হাজার ৫৬৪ জন ভোটার রয়েছে। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ৭৮ হাজার ৫৫০জন। তৎমধ্যে মহিলা ভোটার ৭৩ হাজান ১৪ জন। ভোট কেন্দ্র ৬২ টি। ভোট কক্ষ (বুথ) রয়েছে ৩৫৫টি, তার মধ্য স্থায়ী বুথ ৩৪৪টি ও অস্থায়ী বুথ ১১টি।

এবারই প্রথম এই নির্বাচনে উখিয়ার ভোটাররা ইভিএমে ভোট দেয়ার সুযোগ পাচ্ছেন।

বার্তা বাজার/এইচএসএস