পরকীয়ার কথা ছেলে জানতে পেরেছে এমন সন্দেহে ছেলেকে গলা টিপে হত্যার অভিযোগ ওঠেছে এক মায়ের বিরুদ্ধে। সোমবার (১৩ মে) বিকেলে ভারতের উত্তরপ্রদেশের লখিমপুর খেরি জেলার সিরহৌল গ্রামে এই ঘটনাটি ঘটে। মঙ্গলবার সন্তানকে হত্যার অভিযোগে তরুণীকে (মা) গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। অভিযুক্ত তরুণীর নাম পুনম দেবী (২৮)। বুধবার (১৫ মে) ভারতীয় গণমাধ্যম আনন্দবাজারের এক প্রতিবেদনে এসব তথ্য জানা গেছে।

ওই প্রতিবেদনে জানা যায়, সিরহৌল গ্রামে একটি ভাড়াবাড়িতে থাকেন পুনম এবং তার স্বামী অরবিন্দ কুমার। পেশায় দিনমজুর অরবিন্দ। সোমবার সকালে কাজের উদ্দেশে বেরিয়ে গিয়েছিলেন তিনি। জিজ্ঞাসাবাদের সময় পুলিশকে অরবিন্দ জানান, বিকেলে তাকে প্রতিবেশীরা খবর দেন যে, তার ছেলে অসুস্থ বোধ করছে। সেই কথা শুনে তাড়াতাড়ি বাড়ি ফিরেন অরবিন্দ। বাড়িতে গিয়ে তিনি দেখেন, প্রতিবেশীরা তার বাড়ির সামনে ভিড় করে দাঁড়িয়ে রয়েছেন। বাড়ির মেঝেতে অচেতন অবস্থায় শুয়ে রয়েছে তার ছেলে এবং সন্তানের সামনে বসে কান্নাকাটি করছেন তার স্ত্রী পুনম।

প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়, অরবিন্দ লক্ষ্য করেন তার ছেলের গলার কাছে আঘাতের চিহ্ন। সঙ্গে সঙ্গে সন্তানকে নিকটবর্তী হাসপাতালে নিয়ে যান তিনি। হাসপাতালে ভর্তি করানোর পর সেখানকার চিকিৎসকেরা তাকে মৃত ঘোষণা করেন। অরবিন্দের দাবি, পুনম-ই তার সন্তানকে গলা টিপে খুন করেছেন। থানায় পুনমের বিরুদ্ধে অভিযোগও দায়ের করেন তিনি। অরবিন্দের অভিযোগের ভিত্তিতে পুনমকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

পুলিশ জানিয়েছে, পরকীয়া সম্পর্কে জড়িয়ে পড়েছিলেন পুনম। সেই কথা কোনোভাবে জানতে পেরে যায় তার সন্তান। সত্য গোপন রাখতেই পুত্রের গলা টিপে হত্যা করেন তিনি। তবে এই বিষয়ে আরও প্রমাণ জোগাড় করতে তদন্ত চালিয়ে যাচ্ছে পুলিশ।