মাঘের শীতে কাঁপছে দেশের বিভিন্ন অঞ্চল। তার মধ্যেই শুরু হয়েছে বৃষ্টি। উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলে বইছে মৃদু শৈত্যপ্রবাহ। আর ঘনকুয়াশায় জনজীবন বিপর্যস্ত। এরমধ্যে বৃষ্টি থামার সুখবর দিলো আবহাওয়া অফিস।

শুক্রবার (১৯ জানুয়ারি) সন্ধ্যা থেকে কিছু কিছু জায়গায় আকাশ আংশিক মেঘলা থাকলেও বৃষ্টির দেখা মিলবে না। তবে মধ্যরাত থেকে দুপুর পর্যন্ত মাঝারি থেকে ঘনকুয়াশা পড়তে পারে। এতে তীব্র শীত অনুভূত হতে পারে।

আবহাওয়া অধিদপ্তরের সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বৃহস্পতিবার (১৮ জানুয়ারি) সন্ধ্যা ৬টা থেকে পরবর্তী ৭২ ঘণ্টার জন্য দেয়া পূর্বাভাসে এমনটা জানানো হয়েছে।

এতে বলা হয়, প্রথম ২৪ ঘণ্টায় খুলনা, বরিশাল, রাজশাহী, ঢাকা ও চট্টগ্রাম বিভাগের দু-এক জায়গায় বৃষ্টি বা বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে। অন্য জায়গায় আংশিক মেঘলা আকাশসহ আবহাওয়া শুষ্ক থাকতে পারে। পরবর্তী ৪৮ ঘণ্টায় অস্থায়ীভাবে আংশিক মেঘলাসহ সারাদেশের আবহাওয়া প্রধানত শুষ্ক থাকতে পারে।

কুয়াশার বিষয়ে বলা হয়েছে, তিনদিন মধ্যরাত থেকে সকাল পর্যন্ত কোথাও কোথাও মাঝারি থেকে ঘন কুয়াশা পড়তে পারে, তা দুপুর পর্যন্ত কোথাও কোথাও অব্যাহত থাকতে পারে। ফলে বিমান চলাচল, অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন ও সড়ক যোগাযোগে সাময়িক বিঘ্ন ঘটতে পারে।

শৈত্যপ্রবাহের বিষয়ে আবহাওয়া অফিস জানিয়েছে, কিশোরগঞ্জ ও নওগাঁ জেলাসহ রংপুর বিভাগের ওপর মৃদু শৈত্যপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছে, তা আরও তিনদিন অব্যাহত থাকতে পারে।

তাপমাত্রার বিষয়ে বলা হয়েছে, প্রথম ২৪ ঘণ্টায় সারা দেশে রাতের তাপমাত্রা সামান্য বাড়তে পারে। অপরদিকে দিনের তাপমাত্রা ১-৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস বাড়তে পারে। তবে কোথাও কোথাও ঠান্ডা পরিস্থিতি বিরাজ করতে পারে।

উল্লেখ্য, বৃহস্পতিবার ভোর থেকে খুলনা অঞ্চলের বিভিন্ন এলাকায় বৃষ্টি হয়। ঠান্ডা বাতাসের সঙ্গে শীতের তীব্রতা কয়েকগুণ বাড়িয়ে দেয় এই বৃষ্টি। বিপাকে পড়ে মানুষ।

বার্তা বাজার/জে আই