সর্ষের মধ্যে ভূত আছে উল্লেখ করে নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য একেএম শামীম ওসমান বলেছেন, অনেক পোশাকওয়ালা মানুষ কেন্দ্রে গিয়ে প্রিজাইডিং অফিসারকে ধমক দিয়েছে ভোট স্লো করতে৷ কিন্তু তারা জানে না শামীম ওসমান আলাদা চিজ হ্যায়৷ তার আগেরদিন সব জায়গায় মিছিল হয়েছে, ভোটকেন্দ্রে যাবি যারা, লাশ হয়ে ফিরবি তারা৷ আমার কাছে সবকিছুর হিসাব আছে৷ আমি বুঝি, কিন্তু এইটা বুঝি না কেন জুডিশিয়াল ডিপার্টমেন্টের লোকেরা জায়গায় জায়গায় গিয়ে ভোট স্লো করার চেষ্টা করেছে।

সোমবার (১৫ জানুয়ারি) বিকালে নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জে নির্বাচনোত্তর গণসংবর্ধনা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন৷ মাদক ব্যবসায়ীদের বুকে পাড়া দেওয়ার ঘোষণা দিয়ে তিনি আরো বলেন, এবারের নির্বাচনে আমি ভোট চাইনি৷ নির্বাচন শেষ, এবার এবার একটাই প্রতিজ্ঞা, নারায়ণগঞ্জকে মাদক, সন্ত্রাস, চাঁদাবাজি ও ইভটিজিংমুক্ত করবো৷ মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর উসিলায় নারায়ণগঞ্জ থেকে পতিতালয় উচ্ছেদ করেছিলাম৷ এবারও বাধা আসতে পারে, তবে আপনারা যদি না-ও আসেন, যারা মাদক বেচে তাদের বুকে পাড়া দিবো আমরা।

আওয়ামী লীগের প্রভাবশালী এই নেতা আরো বলেন, নির্বাচনের আগে সবাই বলে টাকা দেন, অথচ আমার এলাকাতে কেউ আমার কাছে একটা টাকা চায় না৷ এরচেয়ে বেশি আর কী চাওয়ার হতে পারে৷ নেত্রী, ওবায়দুল কাদের, শেখ হেলাল ভাই যখন বলছে, তুমি যে জনসভা করছো, এটা দেখেই আমরা বুঝেছি যে আমরা পাশ করে গেছি৷ একপর্যায়ে গোয়েন্দা সংস্থার লোকেরা আমাকে বলতে বাধ্য হয়েছে যে, ভাই আর লোক ঢুকতে দিয়েন না। নেত্রী যখন জনসভা শেষ করে গাড়িতে উঠছিলেন, তাকে জিজ্ঞেস করেছিলাম তিনি খুশি হয়েছেন কি না৷ তিনি বলেছেন, আমি অনেক অনেক খুশি হয়েছি৷

এসময় শামীম ওসমান আগামী দিনগুলোতে বিভিন্ন উন্নয়ন পরিকল্পনার কথাও উল্লেখ করেন৷ অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবু হাসনাত মো. শহিদ বাদল, নারায়ণগঞ্জ মহানগর আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহসভাপতি ও জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান বাবু চন্দন শীল, সাধারণ সম্পাদক এড. খোকন সাহা, সিদ্ধিরগঞ্জ থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি মো. মজিবুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক মো. ইয়াছিন মিয়া প্রমুখ৷

বার্তা বাজার/জে আই