সরকার দলের এমপি হিসাবে সংসদে যেতে চান বলে মন্তব্য করলেন ঢাকা-১৯ আসনে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসাবে নির্বাচিত সংসদ সদস্য আশুলিয়া থানা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মুহাম্মদ সাইফুল ইসলাম।

সোমবার (১৫ জানুয়ারি) দুপুরে টুঙ্গিপাড়ায় জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এর সমাধিতে শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদন শেষে সাংবাদিকদের সাথে এমন মন্তব্য করেন তিনি।

ঢাকা-১৯ আসনের এমপি জানান, ‘আমি আশুলিয়া থানা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক, আমি সরকারি দলের এমপি হিসাবেই সংসদে যোগদান করবো। আমি বিরোধী কোনো মোর্চার মধ্যে নেই। আমি ইতোপূর্বে বলেছি, এখনও বলছি, আমি সরকার দলের সাথেই থাকবো। ‘

তিনি আরও বলেন, ‘আমি ঢাকা-১৯ আসন থেকে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসাবে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হওয়ার পর হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙ্গালি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এর জন্মভূমি পূণ্যভূমি টুঙ্গিপাড়ায় ওনার সমাধিতে শ্রদ্ধা নিবেদন করার জন্য নেতাকর্মীদের নিয়ে এসেছি। এখানে শ্রদ্ধা নিবেদন করতে পেরে আমরা ধন্য। আমরা আল্লাহর কাছে দোয়া করেছি আল্লাহ যেন ওনাকে বেহেস্তের সর্বোচ্চ মোকাম দান করেন।’

সাভারের যানজট নিরসন এর বিষয়ে মুহাম্মদ সাইফুল ইসলাম জানান, হাইওয়ে রোডের যানজট নিরসন মূলত হাইওয়ে পুলিশের কাজ। আমরা হাইওয়ে পুলিশকে নির্দেশনা দিয়েছি, অনেকটা যানজট মুক্ত হয়েছে। আমাদের লোকাল লেনে যে ফুটপাত বসেছিল সেগুলো ইতোমধ্যেই দখলমুক্ত করে যানচলাচলের জন্য সচল করা হয়েছে। এখন অনেকটাই যানজট মুক্ত হয়েছে।’

টুঙ্গিপাড়াকে পুণ্যভূমি কেন বলা হয় এবং নির্বাচিত হলেই এখানে আগে কেন আসতে হয় সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে মুহাম্মদ সাইফুল ইসলাম জানান, আমি বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সক্রিয় রাজনীতির সাথে সম্পৃক্ত, আমাদের আওয়ামী লীগের যার নেতৃত্বে এই দেশ স্বাধীন হয়েছে, যিনি জন্মগ্রহন না করলে এই বাংলাদেশ আদৌ স্বাধীন হতো কিনা সন্দেহ আছে, সেই মহান নেতার সমাধিতে ফুল না দিয়ে আমি আমার নতুন নির্বাচিত সংসদ সদস্য হিসেবে কোনো কাজ করবো না এজন্যই আমি আমার সকল নেতাকর্মী যারা আমার নির্বাচনে সক্রিয় কাজ করেছেন তাদেরকে নিয়ে ওনার সমাধিতে শ্রদ্ধা নিবেদন করতে এসেছি।

স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসাবে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়ে বিরোধী কোনো মোর্চায় না গেলে কোনো আইনগত বাধ্যবাধকতা আছে কিনা সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে সাইফুল ইসলাম বলেন, ‘আমি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার সিদ্ধান্তের উপর অটল থাকবো, তবে আমার ওনার কাছে রিকোয়েস্ট, আমি ইতোমধ্যে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক জনাব ওবায়দুল কাদের স্যারকে বলেছি আমি থানা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক, দয়া করে আমাকে সরকার দলে রাখবেন। তিনি বলেছেন, সকল ঝামেলা শেষ হলে আমার অফিসে আসো, বিষয়টা আমি দেখবো।’

এর আগে, সাভার থেকে সোমবার সকালে আনুমানিক চার হাজার নেতাকর্মী ও শুভানুধ্যায়ীদের নিয়ে ঢাকা-১৯ আসনের এমপি মুহাম্মদ সাইফুল ইসলাম গোপালগঞ্জ জেলার টুঙ্গিপাড়ায় জাতির জনকের সমাধিস্থলে শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদন করতে রওয়ানা হন। এসময় তার সাথে পাথালিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান পারভেজ দেওয়ান, ইয়ারপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শামিম আহমেদ ভুইয়া সুমন প্রমুখসহ আশুলিয়া থানা আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীগণ উপস্থিত ছিলেন।

বার্তাবাজার/এম আই