ইসলাম ও শরিয়তের দৃষ্টিতে ৭ জানুয়ারির নির্বাচন ‘নাজায়েজ’ বলে মন্তব্য করেছেন ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের আমির চরমোনাই পির মুফতি সৈয়দ মুহাম্মদ রেজাউল করীম। তিনি বলেন, এ নির্বাচন দেশ ও জাতির জন্য অকল্যাণকর।

শুক্রবার রাজধানীর পল্টনে দলীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ কথা বলেন।

রেজাউল করীম বলেন, ৭ জানুয়ারি এক দলীয় প্রহসনের জাতীয় নির্বাচনের প্রস্তুতি নিচ্ছে সরকার। নির্বাচন কমিশনের মাধ্যমে মূলত জাতীয় নির্বাচনগুলো হয় এবং নির্বাচন কমিশনের দায়িত্বেই হয়। কিন্তু বাস্তবতা হলে বাংলাদেশে বর্তমানে নির্বাচন কমিশনও দলীয়করণ এবং দলীয় একটা এজেন্ডা বাস্তবায়ন করতে যাচ্ছে।

তিনি বলেন, আর এ নির্বাচন আন্তর্জাতিকভাবে, দেশের সিংহভাগ জনগণের কাছে ও উল্লেখযোগ্য সংখ্যক নিবন্ধধিত রাজনৈতিক দলগুলোর কাছে মোটেও গ্রহণযোগ্য নয়। এটি সম্পূর্ণ পাতানো একটি নির্বাচন। যার কারণে এ নির্বাচন যদি হয়; স্বাভাবিকভাবেই আমাদের দেশের জন্য, আমাদের জনগণের জন্য কখনই কল্যাণকর হবে না- যা আমরা মনে করি।

এই নেতা আরও বলেন, সাধারণ মানুষ এবং ভোটাররা যেন এ নির্বাচনে অংশ না নেয়; তারা যেন ভোট কেন্দ্রে না যায়। এজন্য সংবাদ সম্মেলন করে এ আহ্বান করছি। একই সঙ্গে এও আহ্বান করছি, তাদের (সরকার) এ অন্যায়ের পক্ষে সমর্থন দেওয়া- এটা ইসলাম ও শরিয়তের দৃষ্টিতে নাজায়েজ। এ নির্বাচন দেশের জন্য অকল্যাণ, জনগণের জন্য অকল্যাণ ও ইসলামের জন্য অকল্যাণ।

তিনি বলেন, প্রশাসন বাংলাদেশের প্রজাতন্ত্রের দায়িত্ব পালন করে। কিন্তু দুঃখের সঙ্গে বলতে হয় বর্তমান প্রশাসনও দলীয়করণ করা হয়েছে। অর্থাৎ দলীয় ক্যাডারদের কার্যক্রম তাদের মধ্যে প্রকাশ পায়।

এই নেতা আরও বলেন, তাদের (প্রশাসন) হাতে অস্ত্র, তাদের হাতে আইন ও তাদের হাতে হাতকড়া; বিচার বিভাগ পর্যন্ত দলীয়করণ এবং তাদের ইচ্ছাই প্রতিফলিত হচ্ছে। বিধায় আমরা যারা নিরস্ত্র সাধারণ জনগণ- আমাদের হাতে অস্ত্র নাই ও আইন নাই; আমাদের এর বিরুদ্ধে কথা বলা ছাড়া আর কী করার আছে।

তিনি বলেন, বর্তমানে সরকার যে পদ্ধতিতে নির্বাচন করছে এটা কিন্তু নির্বাচন না। এটা পাতানো, প্রহসনমূলক নির্বাচনের নাম। আসলে এটিকে নির্বাচন বলা হয় না।

বার্তাবাজার/এম আই