প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কাজী হাবিবুল আউয়াল বলেছেন, ভোট গ্রহণের মাঝখানে যদি পেশি শক্তির ব্যবহার হয়, তাহলে তাৎক্ষণিকভাবে অবহিত করতে হবে। সেসব ভোটকেন্দ্র বন্ধ করে দেওয়া হবে। পেশি শক্তির ব্যবহার হলে প্রশাসনকে বলে দেওয়া হয়েছে, রিটার্নিং অফিসার যেন অবগত হন। রিটার্নিং অফিসারকে বলে দেওয়া হয়েছে, তিনি যেন তাৎক্ষণিকভাবে ভোট গ্রহণ বন্ধ করে দেন। রিটার্নিং অফিসার যদি বন্ধ না করেন, আমরা অবগত হলে ঢাকা থেকেও বন্ধ করে (ভোট গ্রহণ) দিতে পারব।

দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন উপলক্ষ্যে চট্টগ্রামের প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী ও চট্টগ্রাম বিভাগের আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীসহ মাঠ প্রশাসনের কর্মকর্তাদের সঙ্গে পৃথক মতবিনিময় শেষে মঙ্গলবার বিকালে নগরীর পিটিআই মিলনায়তনে সাংবাদিকদের তিনি এসব কথা বলেন। এদিন সকাল ১০টায় নগরীর ষোলশহর এলাকায় অবস্থিত এলজিইডি মিলনায়তনে চট্টগ্রামের ১৬ আসনের প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীদের সঙ্গে তিনি মতবিনিময় করেন। সিইসি বেলা সাড়ে ১২টায় পিটিআই মিলনায়তনে প্রধান অতিথি হিসাবে মতবিনিময় করেন আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীসহ মাঠ প্রশাসনের কর্মকর্তাদের সঙ্গে।

চট্টগ্রাম বিভাগীয় কমিশনার মো. তোফায়েল ইসলামের সভাপতিত্বে সভায় বিশেষ অতিথি ছিলেন নির্বাচন কমিশন সচিব মো. জাহাংগীর আলম। দুটি সভায় জেলা রিটার্নিং অফিসার ও চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসক আবুল বাসার মোহাম্মদ ফখরুজ্জামান, চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার কৃষ্ণ পদ রায়, রেঞ্জ ডিআইজি নূরে আলম মিনা, জেলা পুলিশ সুপার এসএম শফিউল্লাহসহ প্রশাসনের বিভিন্ন স্তরের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে দেওয়া নির্দেশনা প্রসঙ্গে সিইসি বলেন, মতবিনিময় সভায় আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর মাঠ পর্যায় থেকে ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা জানিয়েছে এখন পর্যন্ত ভোটের পরিবেশ ভালো। আমরা তাদের স্পষ্ট বার্তা দিয়েছি, ভোটের শেষ দিন পর্যন্ত পরিবেশটা সুষ্ঠুভাবে ধরে রাখতে হবে। আরেকটি বার্তা দিয়েছি, ভোট গ্রহণের দিন, যেদিন ভোট গ্রহণ হবে সেইদিনের বিষয়টা কিন্তু দীর্ঘদিন ধরে থাকবে। ভোট অবাধ হলো কি না, এখানে কারচুপি হয়েছে কি না, সেটা নিশ্চিত করার জন্য ভোট কেন্দ্রে যাতে কোনো আনঅথোরাইজ কেউ প্রবেশ করতে না পারে সেটা ১০০ শতাংশ নিশ্চিত করতে হবে।

ভোটের দিন গণমাধ্যমকর্মীদের দায়িত্ব প্রসঙ্গে সিইসি বলেন, ভোটের যে স্বচ্ছতা সেটা ফুটে উঠবে মিডিয়ার মাধ্যমে। কারণ মিডিয়া কর্মীরা ভোট কেন্দ্রের বাইরে থাকবেন, ভেতরে থাকবেন। তারা ভেতরে গিয়েও ছবি তুলতে পারবেন। প্রিসাইডিং অফিসারের অনুমতি নিয়ে প্রবেশ করতে হবে না। সরাসরি প্রবেশ করতে পারবেন। মোবাইলে ছবি নিতে পারবেন। তাৎক্ষণিকভাবে ইলেকট্রনিক মিডিয়ার মাধ্যমে প্রকৃত তথ্যটা জনগণকে জানিয়ে দিতে পারবেন।

তিনি বলেন, ভোটের দিন অ্যাপসের মাধ্যমে প্রতি দুই ঘণ্টা অন্তর কত ভোট কাস্ট হয়েছে সেটা জানা যাবে। মোবাইল ফোনের মাধ্যমে তা জানা যাবে। এর উদ্দেশ্য হচ্ছে ১০টার সময় দেখা গেল ১০ শতাংশ ভোট পড়ল। কিন্তু ১২টার দিকে গিয়ে হঠাৎ ৮০ শতাংশ হয়ে গেল। এটি বিশ্বাসযোগ্য হবে না। সকালে চট্টগ্রামের প্রার্থীদের সঙ্গে মতবিনিময় প্রসঙ্গে কাজী হাবিবুল আউয়াল বলেন, কিছু কিছু বিক্ষিপ্ত ঘটনার কথা তারা বলেছেন। পোস্টার ছেঁড়াছেঁড়ি, দু-একটা নির্বাচনি ক্যাম্পে আগুন লাগানোর ঘটনা ঘটেছে। দু-চারটি স্থানে ধাওয়া ও মারামারির ঘটনা ঘটেছে। কিন্তু সার্বিকভাবে যারা প্রার্থী ছিলেন তারা আমাদের আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ও নির্বাচনি প্রশাসনের আচরণে সন্তুষ্টি প্রকাশ করেছেন।

ভোট গ্রহণের দিন প্রার্থীর এজেন্টের দায়িত্ব সম্পর্কে কাজী হাবিবুল আউয়াল বলেন, প্রার্থীর পোলিং এজেন্টরা যদি ভোট গ্রহণের পূর্বে স্বচ্ছ ব্যালট বাক্স দেখে নেন ও তারপর বাক্সগুলো যদি বন্ধ করা হয় তাহলে ১০ মাস আগে গেলেও (ব্যালট পেপার) কেন্দ্রে অবৈধ ব্যালট পেপার ঢুকার সম্ভাবনা নেই। তারপরও আমরা অধিকতর আস্থা ও বিশ্বাসের জন্য ব্যালট পেপার ভোটের দিন সকালে কেন্দ্রে পাঠাব।

প্রার্থিতা বাতিল করা প্রসঙ্গে সিইসি বলেন, আমরা চট করে প্রার্থিতা বাতিল করতে পারি না। আমাদের নিশ্চিত হতে হবে, অভিযুক্ত গুরুতর অসদাচরণ করেছেন কিনা। সে ধরনের প্রমাণিত হলে তাহলে কমিশন প্রার্থিতা বাতিল করতে পারবে।

পিরোজপুর প্রতিনিধি জানান, ইলেকশন কমিশনার (ইসি) ব্রিগেডিয়ার মো. আহসান হাবীব খান (অব.) বলেছেন, ইলেকশন কমিশনের প্রধান ও অন্যতম দায়িত্ব হচ্ছে আসন্ন দ্বাদশ সংসদ নির্বাচনে প্রার্থী এবং ভোটারদের আস্থা অর্জন করা। পিরোজপুর জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে মঙ্গলবার জেলার রিটার্নিং অফিসার, সহকারী রিটার্নিং অফিসার ও আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যদের সঙ্গে মতবিনিময় সভায় তিনি এসব কথা বলেন। বরিশালের বিভাগীয় কমিশনার মো. শওকত আলীর সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি ছিলেন বরিশাল রেঞ্জের ডিআইজি মো. জামিল হাসান (বিপিএম-সেবা), পিরোজপুর ও ঝালকাঠি জেলার জেলা প্রশাসক মোহাম্মাদ জাহেদুর রহমান ও ফারাগুল নিজুম।

এদিকে ভোলা প্রতিনিধি জানান, ভোলার ৪টি আসনের ১৬ প্রার্থী ও জেলা প্রশাসনের আইনশৃঙ্খলা রক্ষা কর্মকর্তাদের সঙ্গে মঙ্গলবার বিকালে বৈঠক শেষে ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) মো. আহসান হাবিব খান বলেছেন, ভোট কেন্দ্রে পোলিং এজেন্টরা হচ্ছেন প্রার্থীর সিসি ক্যামেরা। প্রার্থীর ওয়াচম্যান। এ সময় উপস্থিত ছিলেন বরিশাল বিভাগীয় কমিশনার মো. শওকাত আলী, অতিরিক্ত ডিআইজি রির্টানিং অফিসার জেলা প্রশাসক আরিফুজ্জামান, পুলিশ সুপার মো. মাহিদুজ্জামান।

চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির আহ্বায়ক ডা. শাহাদাত হোসেন বলেছেন, নির্বাচন কমিশন আওয়ামী লীগের অঙ্গ-সংগঠনে পরিণত হয়েছে। তিনি মঙ্গলবার সকালে নগরীর চকবাজার কাঁচাবাজার এলাকায় সরকার পতনের একদফা দাবি ও ৭ জানুয়ারির নির্বাচন বর্জনে অসহযোগ আন্দোলনের সমর্থনে গণসংযোগ ও লিফলেট বিতরণকালে এসব কথা বলেন। এ সময় উপস্থিত ছিলেন চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির সদস্য সচিব আবুল হাশেম বক্কর।

বার্তা বাজার/জে আই