চিকিৎসা শেষে মঙ্গলবার (১৯ ডিসেম্বর) দেশে ফিরেছেন ঢাকাই চলচ্চিত্রের জনপ্রিয় অভিনেতা ও প্রযোজক মনোয়ার হোসেন ডিপজল। আর দেশে ফিরেই আন্দোলনের ঘোষণা দিয়েছেন এই অভিনেতা। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে বিষয়টি নিজেই নিশ্চিত করেছেন এই অভিনেতা।

বরাবরই বিদেশি সিনেমা মুক্তির বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছেন তিনি। এবারও তার ব্যতিক্রম নয়। সম্প্রতি বলিউডের বেশ কিছু সিনেমা মুক্তি পেয়েছে দেশের প্রেক্ষাগৃহে। মূলত এ কারণেই আন্দোলনের ঘোষণা দেন ডিপজল।

এ প্রসঙ্গে ডিপজল বলেন, আমাদের চলচ্চিত্রকে ধ্বংস করার জন্যই একটি চক্র উঠেপড়ে লেগেছে। আর আগে আমরা দেখেছি হিন্দি সিনেমা মুক্তি দেওয়ায় নেপালের ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রি কীভাবে ধ্বংস হয়ে গেছে। বলা যায়, হিন্দি সিনেমার কবলে পড়ে বিলীন হয়ে গেছে তাদের নিজেদের চলচ্চিত্র।

আমাদের দেশেও যদি একের পর এক হিন্দি সিনেমা চালানো হয়, তাহলে দেশের চলচ্চিত্রও একদিন ধ্বংস হয়ে যাবে। আমাদের নিজস্ব ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রি বলে কিছু থাকবে না।

এর আগে শাহরুখ খানের ‘পাঠান’ ও ‘জওয়ান’ সিনেমা দুটি দেশের প্রেক্ষাগৃহে ভালো ব্যবসা করেছে। এবার তার অভিনীত ‘ডাঙ্কি’ সিনেমা মুক্তির প্রস্তুত চলছে দেশে। আর এ নিয়ে শাহরুখ ফ্যানদের মধ্যে আনন্দের ঝড় উঠলেও দেশে হিন্দি সিনেমা মুক্তি দেওয়ার বিষয়টি একেবারেই মেনে নিতে নারাজ ডিপজল।

অভিনেতা বলেন, আমি শুরু থেকেই দেশে হিন্দি সিনেমা মুক্তি দেওয়ার বিপক্ষে ছিলাম, ভবিষ্যতেও থাকব। কারণ বিদেশি সিনেমা আমাদের ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রিকে ধ্বংস করবে। এভাবে আর চলতে দেওয়া যাবে না। এর বিরুদ্ধে কঠোর আন্দোলনে যেতে হবে।

জনপ্রিয় এই খল-অভিনেতা আরও বলেন, আর মাত্র কয়েকদিন পরেই জাতীয় সংসদ নির্বাচন। তাই এখন সবাই নির্বাচন নিয়ে ব্যস্ত। নির্বাচনের পর বিদেশি সিনেমার বিষয়টি নিয়ে আমরা আন্দোলনের ডাক দেব। আমি মনে করি, এর একটি সুরাহা হওয়া খুব জরুরি।

বার্তা বাজার/জে আই