‘এমপির ভাতিজার বিরুদ্ধে বিএনএমের প্রার্থীকে হত্যার হুমকির অভিযোগ’এই শিরোনামে গত ১৭ ডিসেম্বর প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদ জানিয়েছেন সোনালী ব্যাংক ডিমলা শাখায় কর্মরত নিরাপত্তা কর্মী মোঃ ডাবলু মিয়া।

মোঃ ডাবলু মিয়া উপজেলার বাবুরহাট এলাকার মোহাম্মদ আলীর ছেলে। তিনি একটি বেসরকারী আউটসোর্সিং কোম্পানির জনবল হিসেবে সোনালী ব্যাংক ডিমলা শাখায় এটিএম বুথের নিরাপত্তাকর্মী কর্মরত।

এ প্রসঙ্গে মোঃ ডাবলু মিয়া জানান, আমাকে জড়িয়ে সাবেক সংসদ সদস্য জাফর ইকবাল সিদ্দিকী যে জিডি করেছেন সেই ঘটনার সাথে বা তার রাজনৈতিক দল কিংবা অন্য কোনো রাজনৈতিক দলের সাথে আমার কোনো ধরনের সম্পৃক্ততা নেই। আমি সোনালী ব্যাংকের একজন চতুর্থ শ্রেণীর কর্মচারী। জিডির উল্লেখিত পারভেজ সম্পর্কে আমার বড়ভাই। ব্যক্তিগত বিষয়ে মনোমালিন্য হলে হালকা বাকবিতন্ডা জড়িয়ে পড়ি। যা পরক্ষণেই অবসান ঘটে। জিডিতে উল্লেখিত ঘটনার সত্যতা নেই মর্মে লিখিত ভাবে ডিমলা থানায় অবহিত করেছি। একটি কুচক্রী মহল আমাকে কর্মক্ষেত্রে ও সামাজিকভাবে হেয় করতে প্রতিবেদককে দিয়ে মিথ্যা বানোয়াট ও ভিত্তিহীন সংবাদ প্রকাশ ও প্রচার করেছে। প্রকাশিত সংবাদের তীব্র প্রতিবাদ জানাচ্ছি।

নীলফামারী জেলা পরিষদ সদস্য ফেরদৌস পারভেজ জানান, নৌকা মার্কার সুনিশ্চিত বিজয় ও বীর মুক্তিযোদ্ধা আফতাব উদ্দিন সরকারের জনপ্রিয়তায় দিশেহারা সাবেক সংসদ সদস্য জনাব জাফর ইকবাল সিদ্দিকী। তাই তাকে ফাঁসাতে ষড়যন্ত্রের অংশ হিসেবে জিডি করেছেন তিনি।

এবিষয়ে বিএনএম মনোনীত প্রার্থী ও সাবেক সংসদ সদস্য জাফর ইকবাল সিদ্দিকী বলেন, ডাবলু মিয়ার লিখিত অবহতির বিষয়ে তিনি কিছুই জানেন না। বিমানবন্দর থেকে বের হয়ে প্রতিবেদকের সাথে কথা বলতে চান তিনি।

এবিষয়ে মোঃ ডাবলু মিয়া নামে এক ব্যক্তির লিখিত অবহতি প্রাপ্তির কথা জানিয়ে ডিমলা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) দেবাশীষ কুমার রায় বলেন, পুলিশের তদন্ত শেষে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

বার্তা বাজার/জে আই