একাত্তরে পরাজিত শক্তির দালাল এবং দোসরদের না বলার আহ্বান জানিয়েছেন আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা। বাংলাদেশকে আর কখনোই পরাজিত শক্তির হাতে তুলে না দিতে দেশবাসীর প্রতি আহ্বান জানান তিনি। ১৪ ডিসেম্বর শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবসের স্মরণে আওয়ামী লীগের আলোচনা সভায় তিনি আরও বলেন, দেশের মানুষ এবার ভোটাধিকার প্রয়োগ করে উন্নত জীবনের অধিকারী হবে।

রাজধানীর বঙ্গবন্ধু সম্মেলন কেন্দ্রে শহীদদের স্মরণে দাঁড়িয়ে এক মিনিট নীরবতা পালনের মধ্য দিয়ে শুরু হয় ১৪ ডিসেম্বরে শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবসে আওয়ামী লীগের আলোচনা সভা। আওয়ামী লীগ সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় বক্তৃতা করেন দলের কেন্দ্রীয় মহানগরের নেতারা।

এসময় আওয়ামী লীগ সভাপতি বলেন, শহীদ বুদ্ধিজীবী এবং দেশের জন্য জীবন দেয়া মানুষগুলোর পরিবারের দুঃখের কথা অনুভব করতে হবে প্রত্যেকটি মানুষকে। পাশাপাশি সতর্ক ও সচেতন থাকতে হবে দেশ বিরোধী শক্তির ষড়যন্ত্রের বিরুদ্ধে।

সামরিক শাসকের পকেট থেকে বেড়ে ওঠা দল বিএনপির মুখে গণতন্ত্রের কথা বেমানান উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, শহীদের আত্মত্যাগ স্মরণ রেখেই বাংলাদেশকে ক্ষুধা ও দারিদ্র্যমুক্ত বাংলাদেশি হিসেবে গড়ে তুলছে তার সরকার। দেশের মানুষ কারো কাছে হাত পেতে বা ভিক্ষা করে চলবে না। বিজয়ী জাত হিসেবে মাথা উঁচু করে চলবে বলেও মন্তব্য করেন শেখ হাসিনা।

জিয়া এবং খালেদা জিয়ার পদাঙ্ক অনুসরণ করেই তাদের সন্তান তারেক রহমান বিদেশে বসে হুকুম দিয়ে দেশের মানুষকে আগুন দিয়ে পুড়িয়ে মারছে বলে উল্লেখ করেন আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা।

ভোট চুরির অপরাধে খালেদা জিয়াকে ক্ষমতা থেকে নাকে খত দিয়ে বিদায় নেয়ার ইতিহাস বিএনপি নেতাদের স্মরণ রাখতে বলেন আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা। প্রতিবার নির্বাচনের আগে চক্রান্ত ষড়যন্ত্র শুরু হয় উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেছেন এবারও দেশের নির্বাচন নিয়ে চক্রান্ত ষড়যন্ত্র অব্যাহত রয়েছে।

শেখ হাসিনা বলেন, যারা জীবন্ত মানুষকে পুড়িয়ে হত্যা করে তারা দেশে কোন গণতন্ত্র দেবে তা দেশের মানুষ ঠিকই বুঝতে পারছে তাই তাদের আন্দোলন সংগ্রামে সাড়া দিচ্ছে না।

বার্তাবাজার/এম আই