বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেছেন, সুষ্ঠু নির্বাচনকে গোরস্থানে পাঠিয়েছে সরকার। আজকে দেশের জনগণ ও গণতান্ত্রিক বিশ্ব বলছে এই সরকারের অধীনে সুষ্ঠু নির্বাচন সম্ভব নয়। এটা তো ন্যায্য দাবি। আজকে সরকারের মন্ত্রী-এমপিরা এত কথা বলেন কিন্তু সুষ্ঠু নির্বাচনে কথা শুনলে তারা আতঙ্কিত হয়ে যান। তারা রাষ্ট্র শক্তি ও গোয়েন্দা সংস্থাগুলোকে ব্যবহার করছে। যাতে কেউ সুষ্ঠু নির্বাচনের দাবি না জানায়।

মঙ্গলবার (১২ ডিসেম্বর) বিকেলে এক ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন রিজভী।

তিনি বলেন, ‘মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, অস্ট্রেলিয়াসহ সব গণতান্ত্রিক বিশ্ব বলছে বলছে বাংলাদেশে অবাধ সুষ্ঠু নির্বাচন দিতে হবে। কিন্তু তারা সেটা কর্ণপাত করছে না। সেজন্যই কোথাও যাতে কেউ টু শব্দ না করে সেজন্য রাষ্ট্র শক্তি ব্যবহার করে নির্যাতন নিপীড়ন অব্যাহত রয়েছে। তবুও আমাদের নেতাকর্মীরা দাবি আদায়ে যেভাবে চলমান কর্মসূচি সফল করছেন তা বীরোচিত।’

রিজভী বলেন, সরকার সারা দেশে বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে মিথ্যা ও গায়েবি মামলা দায়ের করে গ্রেপ্তার ও হয়রানি করছে। দিনাজপুরের কাহারোল উপজেলা যুবদলের যুগ্ম আহ্বায়ক আনোয়ার হোসেন ইমরানকে বিনা কারণেই গ্রেপ্তার করে পুলিশ। তাকে রিমান্ডে নিয়ে ট্রাকে অগ্নিসংযোগের মিথ্যা ঘটনা সাজিয়ে জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক বখতিয়ার আহমেদ কচির নাম জোরপূর্বক স্বীকারোক্তি নেওয়ার জন্য অসহ্য নির্যাতন চালানো হচ্ছে। আমি এহেন মিথ্যা ঘটনায় রিমান্ডের নামে নির্যাতনের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি।’

গত ২৪ ঘণ্টায় সারা দেশে বিএনপি ও অঙ্গসহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীদের নির্যাতনের চিত্র তুলে ধরে তিনি বলেন, সারা দেশে মোট গ্রেপ্তার ২৫৫ জনের অধিক নেতাকর্মী, মোট ৭টি মামলায় আসামি ৮৭০ জনের অধিক নেতাকর্মী। মোট আহত ৩৫ জনের অধিক নেতাকর্মী এবং মৃত্যু ১ জন। গত ১৫ নভেম্বর তপশিল ঘোষণার পর থেকে মোট গ্রেপ্তাতার ৯১৩৫ জনের অধিক নেতাকর্মী, ৩৩০টি মামলায় মোট আসামি ৩৬৬৮৫ জনের অধিক নেতাকর্মী, মোট আহত ১৩২৭ জনের অধিক নেতাকর্মী এবং মোট মৃত্যু ৮ জন। এ ছাড়া ২৮ অক্টোবর বিএনপির মহাসমাবেশের ৪/৫ দিন পূর্ব থেকে অদ্যাবধি পর্যন্ত মোট গ্রেপ্তার ২১১৫০ জনের অধিক নেতাকর্মী, ৫৯৯টির অধিক মামলা, মোট আহত ৬১৫৩ জনের অধিক নেতাকর্মী।

বার্তাবাজার/এম আই