বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা ও রাজশাহী সিটির সাবেক মেয়র মিজানুর রহমান মিনু হুশিয়ারি উচ্চারণ করে বলেছেন, জুলুম চালিয়ে এ সরকারের শেষ রক্ষা হবে না। সরকারকে আন্দোলনের মাধ্যমে পতন ঘটাতে হবে।

রোববার (১০ ডিসেম্বর) সকালে নগরীর মালোপাড়া বাটার মোড় এলাকায় আন্তর্জাতিক মানবাধিকার দিবস উপলক্ষে রাজশাহীতে বিএনপির মানববন্ধনে তিনি একথা বলেন।

তবে কর্মসূচি শেষে বিএনপির ৫ নেতাকর্মীকে আটক করেছে পুলিশ।

বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা ও রাজশাহী সিটির সাবেক মেয়র মিজানুর রহমান মিনু বলেন, বর্তমান সরকার ক্ষমতাকে টিকিয়ে রাখতে বিএনপি নেতাকর্মীদের অন্যায়ভাবে মামলা দিচ্ছে। গত ২৮ অক্টোবরের পর থেকে এখন পর্যন্ত রাজশাহীতে ১ হাজার ৬৩৭ জন বিএনপি নেতাকর্মীদের গ্রেফতার করা হয়েছে। সাধারণ মানুষকে ধরে নিয়ে যাচ্ছে এবং তাদের কাছে প্রচুর টাকা দাবি করছে। টাকা দিতে না পারলে কারাগারে পাঠিয়ে দিচ্ছে।

নির্বাচন প্রসঙ্গে তিনি বলেন, আজ যারা এ ডামি নির্বাচন করছে, সেই নির্বাচনে বাংলাদেশের মানুষ অংশগ্রহণ করবে না, না, না। রাজশাহীতে আমরা অতীতের মতো প্রমাণ করে দেব, ওই নির্বাচনী সেন্টারগুলোতে বিশেষ চার পায়ের জন্তু ছাড়া কোনো মানুষ অংশগ্রহণ করবে না, করবে না করবে না।

মিনু বলেন, সরকারের গুম-খুন-নির্যাতন, মানবাধিকার লঙ্ঘনের শিকার হচ্ছেন নেতাকর্মী। তাদের পরিবারের সদস্যদের আহাজারি তাদের হৃদয়ে স্পর্শ করে না।

নেতাকর্মীদের উদ্দেশে তিনি বলেন, হয় শহীদ না হয় কারাবরণ। সেজন্য নেতাকর্মীদের প্রস্তুত হওয়ার আহবানও জানান মিনু।

মানববন্ধনে সভাপতিত্ব করেন মহানগর বিএনপির আহ্বায়ক অ্যাডভোকেট এরশাদ আলী ইশা। এতে বিএনপির বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক ও রাজশাহী সিটির সাবেক মেয়র মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুলসহ কেন্দ্রীয় ও মহানগর অঙ্গসংগঠনের নেতারা বক্তব্য দেন।

এদিন নগরীর মালোপাড়া পুলিশ ফাঁড়ির সামনে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করার কথা থাকলেও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কঠোর অবস্থান দেখে স্থান পরিবর্তন করে বিএনপি। পরে বাটার মোড় এলাকায় মানববন্ধন করে দলটি।

বিএনপির কর্মসূচি ঘিরে ঘটনাস্থলে সতর্ক অবস্থানে ছিল আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। মোতায়েন করা হয় বিপুল সংখ্যক পুলিশ। আটক করা হয় ৫ নেতাকর্মীকে।

এদের মধ্যে মহানগর বিএনপির সাবেক দফতর সম্পাদক নজরুল ইসলাম ডিকেন, রাজপাড়া থানা যুবদলের সাবেক সভাপতি মিঠু ও যুবদল নেতা কচি রয়েছেন। তবে অপর দু’জনের নাম তাৎক্ষনিকভাবে দলটির নেতারা জানাতে পারেননি।

দলটির বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক ও রাজশাহী সিটির সাবেক মেয়র মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুল অভিযোগ করে বলেছেন, আমরা শান্তিপুর্ণভাবে মানববন্ধন করেছি। মানববন্ধন শেষ করে কিছু দূর যাওয়ার পর কোনো কারণ ছাড়াই সাদা পোশাকের পুলিশ আমাদের ৫ জন নেতাকর্মীকে গ্রেফতার করে নিয়ে গেছে।

এ ব্যাপারে আরএমপির বোয়ালিয়া মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সোহরাওয়ার্দী হোসেন বলেন, আটক ব্যক্তিরা নাশকতা মামলার আসামি। তারা আত্মগোপনে ছিলেন। মানববন্ধনে অংশ নিতে এসেছিলেন তারা। আইন মেনেই তাদের আটক করা হয়েছে।

বার্তাবাজার/এম আই