ইসরাইলি বাহিনীর বিরুদ্ধে গাজা উপত্যকার যুদ্ধে ফিলিস্তিনের প্রতিরোধ আন্দোলন হামাসের জয়ে পাল্লা ভারী হয়ে উঠছে। দুই মাসেরও বেশি সময়ের ইসরাইলি পাশবিকতা সত্ত্বেও গতকাল (শুক্রবার) ইসরাইলের রাজধানী তেল আবিবে তিন দফা রকেট বর্ষণ করেছে হামাস। এছাড়া গাজার বিভিন্ন ফ্রন্টেও দখলদার সেনাদের চরম বেকায়দায় ফেলেছে তারা।

হামাসের সামরিক বাহিনী ইজ্জাদ্দিন কাসসাম ব্রিগেডের মুখপাত্র আবু উবায়দা বলেছেন, তেল আবিবসহ ইসরাইলের অন্যান্য শহরে বৃষ্টির মতো রকেট বর্ষণ করেছেন তার বাহিনীর যোদ্ধারা। শুক্রবার রাতে এক বিবৃতিতে তিনি বলেন, এছাড়া, গাজা উপত্যকার বিভিন্ন স্থানে ইহুদিবাদী বাহিনীর ট্যাংক ও সাঁজোয়া যান লক্ষ্য করে বহুবার হামলা চালিয়েছেন হামাস যোদ্ধারা। তারা দখলদার সেনাদের সঙ্গে মুখোমুখি সংঘর্ষেও লিপ্ত হয়েছেন। এসব হামলা ও সংঘর্ষে বহু ইসরাইলি সেনা হতাহত হয়েছে বলে তিনি জানান।

আবু উবায়দা বলেন, হামাস যোদ্ধাদের হামলায় গত ২৪ ঘণ্টায় গাজা উপত্যকা জুড়ে ২১টি ইসরাইলি ট্যাংক ও সাঁজোয়া যান আংশিক বা পুরোপুরি ধ্বংস হয়েছে।

এর আগে ইসরাইলি সেনা মুখপাত্র রিয়ার অ্যাডমিরাল ড্যানিয়েল হ্যাগারি দাবি করেন, গাজায় হামাসের প্রতিরোধ ভেঙে পড়তে শুরু করেছে। তিনি এক্ষেত্রে ইসরাইল অভিমুখে হামাসের রকেট হামলা কমে আসার প্রতি ইঙ্গিত করেন।

তার ওই দাবির পরপরই তেল আবিবে এক ঝাঁক রকেট নিক্ষেপ করেন হামাস যোদ্ধারা। তারা বলেন, এই প্রথমবারের মতো তারা ইসরাইলে হামলা চালানোর কাজে এম-৯০ রকেট ব্যবহার করছেন। গাজা থেকে ৮০ কিলোমিটার উত্তরে অবস্থিত তেল আবিব পর্যন্ত যেতে হামাসের রকেটগুলোকে অন্তত ১০ জায়গায় আয়রন ডোম মোকাবিলা করতে হয়। কিন্তু তারপরও গতরাতে তেল আবিবের আকাশে অন্তত ৮টি রকেট দেখা গেছে। কিন্তু এসব রকেট ওই নগরীতে আঘাত হেনেছে কিনা বা তাকে কী পরিমাণ ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে তা প্রকাশ করেনি তেল আবিব।

আবু উবায়দা তার বিবৃতিতে তার বাহিনীর হাতে আটক ইসরাইলি বন্দিদের মুক্ত করে নেয়ার একটি ব্যর্থ ইসরাইলি প্রচেষ্টার কথাও উল্লেখ করেন। তিনি বলেন, দখলদার সেনারা হামাসের হাতে আটক একদল বন্দিকে ছাড়িয়ে নিতে এসেছিল, কিন্তু যোদ্ধাদের পাল্টা হামলায় তারা পিছু হটে যেতে বাধ্য হয়েছে। এ সময় ইসরাইলি বিমান হামলায় একজন বন্দি নিহত ও কয়েকজন বন্দি আহত হয় বলে তিনি জানিয়েছেন। পার্সটুডে

বার্তাবাজার/এম আই