ক্রিকেট মাঠের লড়াই ছেড়ে প্রথমবারের মতো এমপি হওয়ার লড়াইয়ে নেমেছেন অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান। দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে মাগুরা-১ (সদরের একাংশ ও শ্রীপুর উপজেলা) আসন থেকে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী হয়ে নির্বাচন করছেন তিনি। জাতীয় ক্রিকেট দলের অধিনায়ক সাকিব আল হাসান জমা দিয়েছেন মনোনয়নপত্র, সঙ্গে হলফনামাও।

সাকিব আল হাসানের হলফনামায় দেখা যায়, ক্রিকেট খেলা ও ব্যাংক আমানত থেকে তার বার্ষিক আয় ৫ কোটি ৫৫ লাখ ৭১ হাজার ২৬২ টাকা। এ ছাড়া বন্ড, ঋণপত্র ও শেয়ার বাজারে তার বিনিয়োগ আছে ৪৩ কোটি ৬৩ লাখ টাকা। সাকিবের ঋণ আছে ৩৩ কোটি টাকার বেশি।

রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয়ে জমা দেওয়া হলফনামা থেকে জানা যায়, সাকিব আল হাসান বিবিএ পাস। হলফনামায় পেশা হিসেবে তিনি নিজেকে একজন ক্রিকেটার উল্লেখ করেছেন। আয়ের উৎসের ঘরে সাকিব তার বার্ষিক আয় ক্রিকেট পেশা থেকে ৫ কোটি ৩২ লাখ ৭৪ হাজার ৭৬৯ টাকা এবং ব্যাংক আমানত থেকে ২২ লাখ ৯৬ হাজার ৪৯৩ টাকা।

সাকিব আল হাসানের হলফনামা পর্যালোচনা করে আরও জানা যায়, তার অস্থাবর সম্পদ হিসেবে ব্যাংকে জমা আছে ১১ কোটি ৫৬ লাখ ৯১ হাজার ৮৭৬ টাকা। এছাড়া ২৪ হাজার ২৬১ মার্কিন ডলার বৈদেশিক মুদ্রা রয়েছে তার। বন্ড, ঋণপত্র ও শেয়ার বাজারে ৪৩ কোটি ৬৩ লাখ টাকা বিনিয়োগ আছে সাকিবের। রয়েছে ২৫ ভরি স্বর্ণ, ১৩ লাখ টাকার আসবাবপত্র ও ইলেকট্রনিক্স সামগ্রী।

তবে হলফনামায় স্থাবর সম্পদের ঘর ফাঁকা রেখেছেন সাকিব আল হাসান। দেননি কোনো তথ্য। আর ‘দায়’-এর ঘরে তিনি উল্লেখ করেছেন, সিকিউরিটিজ এর বিপরীতে লোন ৩১ কোটি ৯৮ লাখ ৬১ হাজার ৩৮২ টাকা এবং ইস্টার্ন ব্যাংকে লোন ১ কোটি ৫০ লাখ ২০ হাজার ৩৬৩ টাকা।

বার্তা বাজার/জে আই