স্বামী বিদেশে, সেই সুযোগে স্ত্রীর প্রেম লিলায় মগ্ন মধ্যবয়সী পুরুষ থেকে শুরু করে এলাকার অনেক তরুণ-যুবক। কেউ ফোনে, কেউ মনে,কেউ আবার জানে-প্রাণে মগ্ন আখী আক্তারের প্রেমে। স্বামীর অবর্তমানে একাধিক প্রেমিককে ফোনে ব্যস্ত রাখলেও দুই সন্তানের রোমান সিকদার(৩৯) ছিলো আরেকটু এগিয়ে। বাড়ির পাশে দোকান থাকায় প্রায় দেখা হতো আখি ও রোমানের। সেই দেখা এক সময় রুপ নেয় পরকিয়ায়।

বিদেশ থেকে পরকিয়া প্রেমের খবর শুনে স্বামী ওমর ফারুক স্ত্রী আখিকে নিয়ে সংসার না করার সিদ্ধান্ত নিলে উভয় পক্ষের আত্মীয়-স্বজনের মধ্যস্থতায় বিষয়টি মীমাংশা হয়ে পুনরায় তারা দাম্পত্য জীবন শুরু করে।

তবে কিছুদিন যেতে না যেতে আখি আক্তার ‘আবারও রোমান শিকদারের সাথে পরকিয়া প্রেমে জড়িয়ে পড়ে এবং ২০২৩ সালের মাঝামাঝি সময়ে রোমান শিকদারের হাত ধরে পালিয়ে গিয়ে অজ্ঞাত স্থানে বাসা ভাড়া নিয়া বসবাস শুরু করে।

অনেক খোজা খুজির পর স্বামী ওমর ফারুক তার স্ত্রী ও প্রেমিক রোমান শিকদারের সন্ধান পেয়ে স্থানীয় লোকজন ও আত্মীয়-স্বজন তাদের কে বিয়ে দিতে চেষ্টা করে। তবে রোমান শিকদার তার প্রেমিকাকে বিবাহ করতে অস্বীকার করে। ফলে আসামী আথি আক্তার রোমান শিকদারের উপর চরমভাবে ক্ষিপ্ত হয়ে তাকে দুনিয়া হতে চিরতরে বিদায় করে দেওয়ার সিদ্ধান্ত গ্রহন করে।

আখি আক্তার তার সমস্ত অন্যায় অনৈতিক কর্মকান্ডের জন্য স্বামীর নিকট ক্ষমা চেয়ে এক সাথে ঘর-সংসার করতে থাকে এবং পরকিয়া প্রেমিক রুমান শিকদারকে হত্যার সুযোগ খুজতে থাকে।

চলতি বছরের মার্চ মাসের কোন একদিন আসামী আখি তার স্বামী ওমর ফারুক ও স্বামীর বন্ধু গ্রেফতারকৃত আসামী মোঃ আলাল মোল্লার সাথে সলাপরামর্শে রোমান শিকদারকে তার বাসায় ডেকে নির্মমভাবে হত্যা করে লাশ বস্তা বন্দী করে গুম করার উদ্দেশ্যে দক্ষিন কেরনীগঞ্জ থানার বাঘাশুর এলাকার সিংহ নদীর পানিতে ফেলে দেয়।

গত ২১ মে ৯৯৯ এর মাধ্যমে পুলিশ জানতে সিংহ নদীতে খনন কাজের সময় ভেকুর বাকেটে করে একটি কঙ্কাল উঠে আসে। ঘটনার পারিপাশ্বিকতায় প্রাথমিকভাবে ধারনা করা হয় এটি রোমানের লাশ, পরে তার স্বজনরা জামাকাপড় দেখে রোমানের লাশ শনাক্ত করে এবং হত্যায় জড়িত সন্দেহে পরকিয়া প্রেমিক আখি, স্বামী ওমর ফারুক, সহযোগী আলাল মোল্লাহ ও মুকবুল হোসেন কে গ্রেফতার করে। পরে মিথ্যা তথ্য দিয়ে ফারুক ও মকবুল জামিনে বের হয়ে যায় এতে রোমানের পরিবার হুমকিতে রয়েছে বলে অভিযোগ তার মা সানোয়ারা বেগমের।

এদিকে পরিবারের নিরাপত্তা, হত্যাকারীদের জামিন বাতিল, পলাতক আসামিদের দ্রুত গ্রেফতার ও ফাঁসির দাবিতে মানববন্ধন করেছে এলাকাবাসী।

বুধবার (২৯ নভেম্বর) সকাল ১০ টায় রামেরকান্দা-আব্দুল্লাহপুর সড়কের বাঘাশুর এলাকায় ঘন্টা ব্যাপী মানববন্ধন ও বিক্ষোভে এলাকার শতশত লোক অংশগ্রহণ করে।

এসময় তারা পরকিয়া প্রেমিক আখি, তার স্বামী ওমর ফারুক, আলাল মোল্লাসহ আখির শাশুড়ী পারুল ও শশুর মমিনকেও আইনের আওতায় আনার দাবী জানান।

পরে একটি বিক্ষোভ মিছিল বের হয়ে বিভিন্ন রাস্তা প্রদক্ষিণ করে।

বার্তা বাজার/জে আই