আব্দুর রহমান বদি, নানা কারণে আলোচিত উখিয়া-টেকনাফের এই সাবেক সংসদ সদস্য এবার দলীয় মনোনয়ন পাচ্ছেন না।

আওয়ামী লীগের নীতি নির্ধারনী মহলের একটি সূত্র বলছে আইনি জটিলতা, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বেফাঁস মন্তব্য কিংবা মাদককে ঘিরে পুরাতন তকমা – সব মিলিয়ে ২০১৮ এর নির্বাচনের পর এবারো মনোনয়ন বঞ্চিত থাকছেন তিনি।

সর্বশেষ সংসদে গুরুত্বপূর্ণ এই আসনে প্রায় সাড়ে ৩ লাখ ভোটারের হয়ে নামে মাত্র প্রতিনিধিত্ব করেছেন বদির স্ত্রী শাহীন আক্তার।

স্ত্রীর মাধ্যমে এলাকায় নিজের সাম্রাজ্য ধরে রাখতে চান বদি। সংসদের অধিবেশনে অংশ নিবেন শাহীন আর এমপি না হয়েও এলাকায় সব জনপ্রতিনিধিত্ব মূলক কার্যক্রমে দেখা যাবে বদিকে।

গতবারের মতো এবারো সে লক্ষ্যে ফের কেনা হয়েছে শাহীনের দলীয় মনোনয়ন ফরম।

দলীয় সভানেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, বর্তমান এমপিদের আবারো মনোনয়নের ক্ষেত্রে প্রাধান্য দিচ্ছেন – এলাকায় গ্রহণ যোগ্যতা, জনসম্পৃক্ততা, সাংগঠনিক দক্ষতা সহ বিভিন্ন মানদন্ডকে।

এসব বিবেচনায় আনলে এবার শাহীনের নৌকা প্রতীক পাওয়ার সম্ভাবনা ক্ষীণ হলেও, বদির আঞ্চলিক জনপ্রিয়তা ও কেন্দ্রে সুসম্পর্ক শেষ মূহুর্তে শাহীনের সৌভাগ্যের কারণ হয়ে উঠতে পারে।

অন্যদিকে সাংগঠনিক কার্যক্রম ও টানা তিন মেয়াদে উখিয়া সদরে রাজাপালং ইউপি চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালন করার অভিজ্ঞতায় মনোনয়ন দৌঁড়ে এগিয়ে আছেন জাহাঙ্গীর কবির চৌধুরী।

শাহীন আক্তারের ছোট ভাই তথা বদির আপন শ্যালক হলেও বোন এবং দুলাভাইয়ের চেয়ে ব্যতিক্রম উখিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি জাহাঙ্গীর কবির চৌধুরীর রাজনৈতিক বৃত্তান্ত।

গণভবনে আওয়ামীলীগের প্রতিনিধি সভায় প্রধানমন্ত্রীর বাহবা পাওয়া জাহাঙ্গীর মাঠের রাজনীতিতে দীর্ঘদিন ধরে সরব।

২০১৯ সাল থেকে ২০২২ সাল পর্যন্ত যুক্তরাষ্ট্রে বিশ্ব ব্যাংকে বিকল্প নির্বাহী পরিচালকের দায়িত্ব পালন করা সাবেক মন্ত্রী পরিষদ সচিব শফিউল আলম এর নাম মনোনয়ন প্রত্যাশী হিসেবে আলোচিত হলেও রাজনীতির মাঠে এখন পর্যন্ত দেখা যায়নি তাঁর উপস্থিতি।

তবে প্রধানমন্ত্রীর কাছে থেকে দায়িত্ব পালনের অভিজ্ঞতা থাকায় সাবেক এই আমলাও হতে পারেন আওয়ামী লীগের নতুন চমক।

মনোনয়ন প্রত্যাশীদের মধ্যে টেকনাফ উপজেলায় শক্ত অবস্থানে আছেন সাবেক এমপি মোহাম্মদ আলীর পুত্র ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মাহবুব মোর্শেদ।

পিতার রাজনৈতিক ইতিহাস আশীর্বাদ হয়ে থাকলে নৌকা নিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে দেখা যেতে পারে মোর্শেদকে।

জেলা যুবলীগের সাবেক সভাপতি সোহেল আহমেদ বাহাদুর মনোনয়ন প্রত্যাশীদের মধ্যে অন্যতম হলেও অঙ্গ সহযোগী সংগঠনের রাজনৈতিক সমীকরণে এবার তার মনোনয়ন পাওয়ার সম্ভাবনা কমে এসেছে। তবুও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক এই ছাত্র আছেন কেন্দ্রীয় বিবেচনায়।

উল্লেখ্য, আসন্ন দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন সামনে রেখে প্রায় ৩০০ আসনে দলীয় প্রার্থী চূড়ান্ত করেছে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ। এবার দলীয় মনোনয়ন থেকে বর্তমান অনেক সংসদ-সদস্য বাদ পড়েছেন, স্থান পেয়েছেন নতুন মুখ।

কারা বাদ পড়েছেন আর কারা নতুন করে দলে জায়গা করে নিয়েছেন, এনিয়ে দলীয় নেতাকর্মীদের মধ্যে রয়েছে ব্যাপক আগ্রহ। শুধু দলীয় নেতাকর্মীই নন, পুরো দেশের মানুষ তাকিয়ে আছে সেই দিকে।

সর্বত্র এ নিয়ে চলছে আলোচনা, চলছে চুলচেরা বিশ্লেষণ। তৃণমূলের নেতাকর্মীরা পছন্দের নেতাকে সমর্থন করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বিভিন্ন সময়ে পোস্ট দিচ্ছেন। তারা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে নেতাদের গুণাবলি, বিভিন্ন উন্নয়ন, কর্মসূচির তথ্য তুলে ধরছেন। দাবি করছেন তিনিই পাবেন দলীয় মনোনয়ন।

তালিকা প্রকাশের পরই চুড়ান্ত ভাবে জানা যাবে দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে শেষ পর্যন্ত নৌকার পাল তুলল কারা। আর কারাই বা নৌকার পাল নামাতে বাধ্য হলেন।

এবার দলীয় মনোনয়নে প্রার্থীদের অনেকগুলো দিক বিবেচনা করা হয়েছে। জনপ্রিয়তা, দলে গ্রহণযোগ্যতা, মানবিকতা, দুর্দিনে মানুষের পাশে থাকা ও পরিচ্ছন্ন ভাবমূর্তির প্রার্থীদের নৌকার হাল ধরারা সুযোগ করে দিয়েছে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ। পাশাপাশি বিবেচনা করা হয়েছে বিভিন্ন সংস্থার জরিপ এবং দলের সাংগঠনিক রিপোর্ট -এমনটাই দলীয় সূত্রে জানা গেছে।

দলীয় সূত্র বলছে, এবার দলীয় মনোনয়ন দেওয়া হয়নি বিতর্কিত, জনবিচ্ছিন্নসহ শারীরিকভাবে অসুস্থ ও প্রবীণ বেশকিছু সংসদ-সদস্যকে। জায়গা পেয়েছেন ক্লিন ইমেজ, জনগণের কাছে জনপ্রিয় এবং এলাকায় পরিচিত নতুন প্রার্থীরা।

কারা মনোনয়ন পাচ্ছেন, কারা বাদ পড়ছেন, এ বিষয় নেতারা মুখ খোলেননি। নেতারা বলছেন, বাদ দেওয়ার পরও অনেক সময় তাকেই প্রার্থী করা হয়, আবার ঘোষিত প্রার্থীকে বাদ দেওয়ার নজিরও আছে। এ কারণেই এবার দলের পক্ষ থেকে কঠোর গোপনীয়তা রাখা হচ্ছে।

বার্তা বাজার/জে আই