জাতীয় পার্টি আর কারও ক্ষমতায় যাওয়ার সিঁড়ি হয়ে দেশবাসীর কাছে দালাল হিসেবে পরিচিত হতে চায় না বলে মন্তব্য করেছেন রংপুর জেলা ও মহানগর জাতীয় পার্টির নেতারা।

শনিবার (১৮ নভেম্বর) দুপুরে রংপুর সেন্ট্রাল রোডের প্রধান কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত বাংলাদেশের চলমান রাজনৈতিক পরিস্থিতি পর্যালোচনা এবং বিশ্লেষণের জন্য আয়োজিত জেলা ও মহানগর জাতীয় পার্টির যৌথ কর্মী সভায় বক্তারা এমন মন্তব্য তুলে ধরেন।

নগরীর ৩৩টি ওয়ার্ড ও আট উপজেলা থেকে আসা সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকদের মধ্যে একজন ছাড়া সকলেই বর্তমান সরকারের অধীনে নির্বাচনে না যাওয়ার বিষয়ে মতামত দেন।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য ও রংপুর সিটি কর্পোরেশনের মেয়র মোস্তাফিজুর রহমান মোস্তফা বলেন, কয়েকদিন আগে ঢাকায় জাতীয় পার্টির যৌথ সভায় যে আলোচনা হয়েছে তা মাঠ পর্যায়ে অবগত করার জন্য আজকের এই সভা। বিভিন্ন ইউনিটের নেতারা তাদের মতামত তুলে ধরেছেন।

মেয়র বলেন, আমরা কেন্দ্রীয় সিদ্ধান্ত অর্থাৎ দলের চেয়ারম্যান জিএম কাদেরের সিদ্ধান্তের অপেক্ষায় আছি। সেখান থেকে সে সিদ্ধান্ত আসবে তা মাঠ পর্যায়ে বাস্তবায়নের জন্য আমরা প্রস্তুত। এজন্য আন্দোলন অথবা নির্বাচন দুটোর প্রস্তুতি নিতে সকলকে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।

এসময় মেয়র বলেন, ‘জাতীয় পার্টি দেশবাসীর কাছে আর দালাল হিসেবে পরিচিত হতে চায় না। যদি দালালি করতেই হয়, নির্বাচনে যেতেই হয় তাহলে পার্টির স্বার্থ আগে বিবেচনা করে ১০০ আসন ও ১০ মন্ত্রণালয় দিতে হবে। জাতীয় পার্টির দুর্গ হিসেবে গড়ে ওঠা রংপুর অঞ্চলের ২২টি আসন কাউকে ছাড় দেয়া হবে না।’

জাতীয় পার্টিতে বেগম রওশন এরশাদের কোনো সিদ্ধান্ত নেওয়ার এখতিয়ার নেই বলেও মন্তব্য করেন মেয়র।

যৌথ সভায় রংপুর জেলার আট উপজেলা ও রংপুর মহানগরের ৩৩টি ওয়ার্ডের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকসহ সকল অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকরা উপস্থিত ছিলেন।

সভাপতিত্ব করেন জাতীয় পার্টির কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির ভাইস চেয়ারম্যান ও রংপুর মহানগর সাধারণ সম্পাদক এসএম ইয়াসীর।বিশেষ অতিথি ছিলেন জাতীয় পার্টি কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক ও রংপুর জেলার সদস্য সচিব আলহাজ্ব আব্দুর রাজ্জাক। বক্তব্য দেন রংপুর জেলা যুব সংহতির সভাপতি হাসানুজ্জামান নাজিম, সদর উপজেলা জাতীয় পার্টির আহ্বায়ক ও সাবেক উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান মাসুদ নবী মুন্নাসহ অন্য নেতারা।

বার্তা বাজার/জে আই