বাংলাদেশে গেলো দুই সপ্তাহ ধরে চলছেসরকার বিরোধীদের অবরোধ। দেশকে গ্রাস করেছে সহিংসতা। এমন সময়ে যুক্তরাষ্ট্রের দূতাবাস বলেছে, রাষ্ট্রদূত পিটার হাস তিনটি বড় রাজনৈতিক দলের সিনিয়র নেতাদের সঙ্গে মিটিং আহ্বান করেছেন। যুক্তরাষ্ট্র চায় শান্তিপূর্ণ উপায়ে অবাধ, সুষ্ঠু নির্বাচন। সহিংসতা পরিহার এবং সংযম চর্চা করার জন্য সব পক্ষের প্রতি আহ্বান জানানো হয়েছে।

নির্বাচন কমিশন নির্বাচনের তারিখ ঘোষণা করতে পারে যে কোনো দিন। তার আগে যুক্তরাষ্ট্র এমন উদ্যোগ নিয়েছে। এ বিষয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিষয়ক প্রফেসর মোহাম্মদ তানজিমুদ্দিন খান বলেন, আগামী নির্বাচনকে সামনে রেখে এটা হলো রাজনৈতিক অচলাবস্থা ভাঙাতে যুক্তরাষ্ট্রের আনুষ্ঠানিক ও সরাসরি উদ্যোগ।

সোমবার (১৩ নভেস্বর) যুক্তরাষ্ট্রের দূতাবাস থেকে বলা হয়েছে, দেশের বড় তিনটি রাজনৈতিক দলের নেতাদের সঙ্গে মিটিং আহ্বান করেছেন রাষ্ট্রদূত পিটার হাস। জানুয়ারিতে বাংলাদেশে নির্বাচন হওয়ার কথা। কিন্তু প্রধান বিরোধী দল বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল বিএনপি এবং তার মিত্ররা বলেছে, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পদত্যাগ না করা পর্যন্ত এবং নির্বাচন তদারক করতে একটি নির্দলীয় সরকার প্রতিষ্ঠা না হওয়া পর্যন্ত তারা নির্বাচন বর্জন করবে।

২৮ অক্টোবর বিরোধী দলের মহাসমাবেশ পুলিশ পণ্ড করে দেওয়ার পর থেকে বিএনপির বিরুদ্ধে বড় রকমের দমনপীড়ন চালিয়ে যাচ্ছে সরকার। বিএনপি বলছে, তখন থেকেই তাদের প্রায় সব শীর্ষ নেতা ও কমপক্ষে ১১ হাজার নেতাকর্মীকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

যেহেতু প্রায় পুরো শীর্ষ নেতাদের গ্রেফতার করা হয়েছে, তাই সংলাপে বিএনপির প্রতিনিধিত্ব কে করবেন তা পরিষ্কার নয়। বিএনপি বলেছে, ২৮ অক্টোবর থেকে পুলিশ তাদের কমপক্ষে ১১ হাজার ২৫০ নেতাকর্মীকে গ্রেফতার করেছে। এর মধ্যে আছেন দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া জেলে থাকায় এবং তার ছেলে তারেক রহমান বিদেশে থাকায় দলটির নেতৃত্ব দিচ্ছেন মির্জা ফখরুল।

বার্তাবাজার/এম আই