বর্তমান সরকারের বিরুদ্ধে দেশের সব মানুষ ও বিরোধী দল অবস্থান নিয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান শামসুজ্জামান দুদু।

তিনি বলেন, এখন দেশের মানুষ বিশ্বাস করে এ সরকার ক্ষমতায় থাকতে পারবে না। দেশের সব মানুষ, সব বিরোধী দল এ সরকারের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছে। দ্রুত অবস্থা পরিবর্তনের ইঙ্গিত দিচ্ছে।

রোববার (২৪ সেপ্টেম্বর) ভোটের অধিকার শীর্ষক অবস্থান কর্মসূচিতে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে এ অবস্থান কর্মসূচির আয়োজন করে আমার দেশ আমার অধিকার।

অবস্থান কর্মসূচিতে শামসুজ্জামান দুদু আরও বলেন, বাংলাদেশের বয়স অর্ধশত বছর। যে দেশটি গণতন্ত্র, স্বাধীনতার জন্য যুদ্ধ করে এক সাগর রক্তের বিনিময়ে স্বাধীনতা অর্জন করেছে, সে দেশে ৫২ বছর পরও মানুষকে ভোটাধিকারের কথা বলতে হচ্ছে। এরচেয়ে লজ্জার বিষয় পৃথিবীতে দ্বিতীয়টি নেই। মানুষ ভোট দিতে পারে না, মানুষ তার পছন্দের প্রতিনিধি নির্বাচন করার ক্ষমতা রাখে না। এজন্য তারা (জনগণ) এখন রাস্তায় নেমেছে, লড়াই করছে এবং সরকারের পদত্যাগ দাবি করছে।

তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্কে বসে হতাশ হয়ে বলছেন, তার ছেলের সম্পদ, ব্যবসা, বাড়ি যদি জব্দ হয়ে যায়, হাতছাড়া হয়ে যায়, তাতেও তার বলার কিছু নেই। বাংলাদেশের এমন একজন প্রধানমন্ত্রী, যে তার সন্তানের সম্পদ রক্ষা করতে পারছে না, নিজের উপদেষ্টাকে রক্ষা করতে পারছেন না। তাহলে তিনি বাংলাদেশকে কিভাবে রক্ষা করবেন? এমন কোনো পরিস্থিতি সভ্য কোনো দেশে হলে, সে দেশের সরকার প্রধান দ্রুত পদত্যাগ করতো। অন্যকে রক্ষা করার দরকার নেই, গণতন্ত্র রক্ষা করলেই যথেষ্ট ছিল। তাহলে আজকে এ পরিস্থিতি দেশের হতো না।

গণতন্ত্রের পক্ষে অবস্থান নেওয়ায় বিশ্ববাসীকে ধন্যবাদ দিয়ে তিনি বলেন, আমরা ইউরোপ, আমেরিকা, কানাডা, অস্ট্রেলিয়াকে ধন্যবাদ জানাই। তারা বাংলাদেশের মানবাধিকার, ভোটাধিকার, গণন্ত্রের পাশে দাঁড়িয়েছে। তারা সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে দাঁড়িয়েছে।

বিএনপির এ নেতা আরও বলেন, বাংলাদেশের গণতন্ত্রের মাতা, তিনবারের প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে আপনারা (সরকার) আটকে রাখবেন, আর বড় বড় কথা বলবেন, এটি দেশবাসী মানে না। অনতিবিলম্বে দেশনেত্রীকে মুক্তি দিতে হবে। সব মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার করে দেশ নায়ক তারেক রহমানকে দেশে আসার সুযোগ দিতে হবে। হাজার হাজার মাইল দূরে থেকে তিনি গণতন্ত্রের পক্ষের লড়াইকে তিনি উজ্জীবিত করেছেন৷

তি‌নি ব‌লেন, প্রধানমন্ত্রী নিজেই স্বীকার করে নিয়েছেন তিনি ভালো নেই। তিনি যে বক্তব্য দিয়েছেন তাতে পরোক্ষভাবে বোঝা যায় তিনি দেশের জনগণ দেশের স্বাধীনতা রক্ষা করতে পারছেন না। যদি না পারেন তাহলে অনতবিলম্বে পদত্যাগ করুন। দেশে যে সংকট তৈরি হয়েছে সে সংকট থেকে দেশকে মুক্ত করুন।

আমার দেশ আমার অধিকারের সভাপতি শেখ সাখাওয়াত তানজিনের সভাপতিত্বে অবস্থান কর্মসূচিতে আরও উপস্থিত ছিলেন বিএনপির সহ-তথ্য বিষয়ক সম্পাদক কাদের গণি চৌধুরী, সাবেক এমপি অধ্যক্ষ নূর আফরোজ জোতি, মুক্তিযোদ্ধা দলের সাংগঠনিক সম্পাদক লায়ন মিয়া মো. আনোয়ার, দেশ বাঁচাও মানুষ বাঁচাও আন্দোলনের সভাপতি কে এম রকিবুল ইসলাম রিপন ও জাতীয়তাবাদী গণতন্ত্র পরিষদ সভাপতি মোক্তার আখন্দ।

বার্তাবাজার/এম আই