ট্রেনের পাওয়ার কার থেকে চুরি করে ডিজেল তেল বিক্রির সময় দুইজনকে আটক করেছে রেলওয়ে নিরাপত্তা বাহিনী রাজশাহীর গোয়েন্দা শাখার সদস্যরা। এ সময় ৪৫ লিটার রেলওয়ের ডিজেল তেল জব্দ করা হয়।

রোববার (৬ আগস্ট) রাত আটটার দিকে রাজশাহী-ঈশ্বরদী রেলরুটের আজিমনগর রেলওয়ে স্টেশন থেকে তাদের হাতেনাতে আটক করা হয়।

আটককৃতরা হলেন, বগুড়ার আদমদিঘী উপজেলার ছাকনী গ্রামের মৃত তাহের সরদারের ছেলে আন্তঃনগর কমিউটার এক্সপ্রেসের পাওয়ার কার ড্রাইভার (ইলেকট্রিক ফিটার) হেলাল উদ্দিন (৩৭) এবং নাটোরের লালপুর উপজেলার গোপালপুর পৌর এলাকার বিরোপাড়া গ্রামের মৃত আকিমুদ্দিনের ছেলে রোকনুজ্জামান রোকন (৪৫)।

রেলওয়ে নিরাপত্তা বাহিনী (আরএনবি) রাজশাহী গোয়েন্দা শাখার সহকারী উপ-পরিদর্শক (এএসআই) উজ্জল আলী জানান, দীর্ঘদিন ধরে রাজশাহী- ঈশ্বরদী রেলরুটের বিভিন্ন স্টেশনে অসাধু কিছু রেলওয়ে কর্মচারী ট্রেনের পাওয়ার কার থেকে চুরি করে গোপনে রেলওয়েতে ব্যবহৃত ডিজেল তেল বিক্রি করে আসছিল।

রোববার (৬ আগস্ট) রাতে রেলওয়ে নিরাপত্তা বাহিনীর গোয়েন্দা শাখার রাজশাহীর একটি টিম সাদা পোশাকে রাজশাহী থেকে ঈশ্বরদী অভিমুখী আন্তঃনগর কমিউটার এক্সপ্রেস ট্রেনে যাত্রা করি। ট্রেনটি রাজশাহী-ঈশ্বরদী রেলপথের আজিমনগর রেল স্টেশনে পৌঁছালে বাংলাদেশ রেলওয়েতে ব্যবহৃত ডিজেল তেল ৫ লিটার বোতলে ভর্তি ৬টি জার রেলওয়ে কর্মচারী পাওয়ার কারের ড্রাইভার হেলালের হাত থেকে দুটি প্লাস্টিকের ব্যাগ আজিমনগর স্টেশনে দাঁড়িয়ে থাকা রোকনের কাছে দেওয়ার সময় আমরা হাতেনাতে তাদের আটক করি। এসময় ৬টি জার ভর্তি ৪৫ লিটার ডিজেলসহ তাদের ঈশ্বরদী রেলওয়ে নিরাপত্তা বাহিনীর কারাগারে নিয়ে আসা হয়।

ঈশ্বরদী রেলওয়ে নিরাপত্তা বাহিনীর ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ফিরোজ হোসেন এ তথ্য নিশ্চিত করে জানান, রাজশাহী থেকে আসা ঈশ্বরদীগামী আন্তঃনগর কমিউটার এক্সপ্রেস ট্রেনের ৫৪১৮ নাম্বার পাওয়ার কার থেকে ৪৫ লিটার ডিজেল তেল চুরি করে বিক্রির সময় রেলওয়ে পাওয়ার কারের ড্রাইভারসহ ক্রেতাকে হাতেনাতে আটক করা হয়েছে। তাদের নামে মামলা নথিভুক্ত করার পর রেলওয়ে জিআরপি থানায় সোপর্দ করা হবে।

ঈশ্বরদী রেলওয়ে জিআরপি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) হারুজ্জামান রোমেল জানান, চুরি করে তেল বিক্রির ঘটনায় রেলওয়ে নিরাপত্তা বাহিনীর গোয়েন্দা শাখার সদস্যরা বাদী হয়ে ঈশ্বরদী রেলওয়ের জিআরপি থানার অভিযোগ দিয়েছেন। মামলাটি রুজু করে সোমবার (৭ আগষ্ট) সকালে আটক হওয়া দুই আসামীকে আদালতের মাধ্যমে পাবনা জেলা কারাগারে পাঠানো হবে।

বার্তাবাজার/এম আই