রাজধানীতে বিএনপির মহাসমাবেশ ও আওয়ামী লীগের তিন সহযোগী-ভ্রাতৃপ্রতিম সংগঠনের শান্তি সমাবেশকে কেন্দ্র করে নৈরাজ্য ঠেকাতে ঢাকার প্রবেশমুখ আমিনবাজারে চেকপোস্ট বসিয়ে বিভিন্ন পরিবহনে তল্লাশি কার্যক্রম চালাচ্ছে পুলিশ। এসময় সন্দেহভাজন হিসেবে অর্ধ শতাধিক ব্যক্তিকে আটক করা হয়েছে।

কিন্তু দেশবাসীর চোখ মূলত প্রধান দুই রাজনৈতিক দলের দিকে। নেতাকর্মী-সমর্থকসহ সাধারণ মানুষও ঢাকায় আসছেন। এ অবস্থায় রাজধানীর প্রবেশ মুখ আমিনবাজারে তল্লাশি চালাচ্ছে পুলিশ। সন্দেহভাজন হিসেবে আটক করা হয়েছে অর্ধ শতাধিক ব্যক্তিকে।

সকাল সাতটা থেকে আমিনবাজার ২০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালের সামনে ঢাকা-আরিচা মহাসড়কের ঢাকাগামী লেনে চেকপোস্ট বসিয়ে তল্লাশি চালাচ্ছে পুলিশ। বিভিন্ন বাস, প্রাইভেটকার, মাইক্রবাস ও মোটরসাইকেলের যাত্রীদের জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। যাচাই করা হচ্ছে তাদের মোবাইল ফোনও।

জানা গেছে, সন্দেহজনক কিছু না পেলে তল্লাশির আওতায় যারা আসছেন, তাদের ছেড়ে দিচ্ছে পুলিশ। যাদের সন্দেহ হচ্ছে, তাদের আটকে রাখা হচ্ছে। আটক বেশ কয়েকজনকে ২০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালের চত্বরে নিয়ে যাওয়া হয়। পরে সেখান থেকে তাদের প্রিজন ভ্যানে করে দিয়ে যায় পুলিশ সদস্যরা।

ঢাকা জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ক্রাইম অ্যান্ড অপস ও ট্রাফিক উত্তর বিভাগ) আব্দুল্লাহিল কাফী বলেন, নিয়মিত তল্লাশির অংশ হিসেবে এখানে সব সময় এ কর্মসূচি করা হয়। সাভারের বিরুলিয়া, আশুলিয়ার ধউর, জিরানী, জিরাবো ও বাইপাইল এলাকায় চেকপোস্ট কার্যক্রম চলছে। ঢাকায় দুটি দলের কর্মসূচি থাকায় কেউ যাতে কোনো ধরনের নৈরাজ্য চালাতে না পারে তাই তল্লাশিতে জোর দেওয়া।

তিনি আরও বলেন, বিভিন্ন পরিবহনে তল্লাশি চালিয়ে সন্দেহভাজন ব্যক্তিদের জিজ্ঞেসাবাদ করা হয়েছে। সন্তুষ্টজনক উত্তর দিলে তাদেরকে ছেড়ে দেওয়া হচ্ছে। এটি চেকপোস্টের চলমান কার্যক্রম।

বার্তা বাজার/জে আই