রাজধানীর নয়াপল্টনে দলীয় কার্যালয়ের সামনেই বাদ জুমা শুরু হবে বিএনপির মহাসমাবেশ। বিকালে কর্মসূচির অনুমতি পাওয়ার পর তাৎক্ষণিক সংবাদ সম্মেলনে পুলিশকে ধন্যবাদ জানানোর পাশাপাশি বিএনপির পক্ষ থেকে প্রতিশ্রুতি দেওয়া হলো শান্তিপূর্ণ মহাসমাবেশের। পাশাপাশি অভিযোগ ছিল দলীয় নেতা-কর্মীদের গ্রেফতারসহ নানাভাবে হয়রানির। বিএনপি নেতারা বলছেন, এক দফা দাবি আদায়ে চলমান আন্দোলনের নতুন কর্মসূচিও দেওয়া হতে পারে শুক্রবারের মহাসমাবেশ থেকে।

শুক্রবার (২৮ জুলাই) জুমার নামাজের পর নয়াপল্টনেই মহাসমাবেশ করবে বিএনপি। এ ব্যাপারে অনড় ছিলো দলটি। বৃহস্পতিবার সকালে পুলিশকে অবহিত করার প্রক্রিয়ার কথা জানান, বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী।

বৃহস্পতিবার বিকালে যখন পুলিশের পক্ষ থেকে শর্তসাপেক্ষে মহাসমাবেশের অনুমতি মেলে, তখন বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয় কেন্দ্রিক নেতা-কর্মীদের উচ্ছাস ছড়িয়ে পড়ে। তাৎক্ষণিক সংবাদ সম্মেলন করা হয়। যাতে অভিযোগ করা হয়, মহাসমাবেশকে ঘিরে নানা ধরনের উসকানি দিচ্ছে ক্ষমতাসীনরা। হোটেল-আবাসিক ভবন, পথে-ঘাটে তল্লাশি করে বিএনপির অনেক নেতা-কর্মীকে আটকের অভিযোগ করেন দলটির স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস।

মহাসমাবেশকে কেন্দ্র করে নয়াপল্টনে বিপুল সংখ্যক পুলিশ মোতায়েন করা হয়। কার্যালয়ের সামনের রাস্তায় দিনভর কাউকে দাঁড়াতে দেওয়া হয়নি। যদিও বিএনপি নেতারা জানান, শান্তিপূর্ণভাবে মহাসমাবেশ করতে চান তারা। একপর্যায়ে উপচে পড়া নেতা-কর্মীদের রাস্তা থেকে সরাতে বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতারাও আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে সহায়তা করেন।

বার্তা বাজার/জে আই