‘মাদক নির্মূলে সরকারের যে জিরো টলারেন্স নীতি আছে তা বাস্তবায়নে আমরা বন্ধ পরিকর। দিনাজপুরের পুলিশ সুপার স্যার এই বিষয়ে সার্বক্ষণিক দিক নির্দেশনা দিয়ে যাচ্ছে। সেই অনুয়ায়ী আমরা কাজ করছি। আমাদের গোয়েন্দা সদস্যরা মাঠ পর্যায়ে গিয়ে তথ্য সংগ্রহ করছে। সেই অনুযায়ী আমরা নিয়মিত অভিযান পরিচালনা করছি।’ এমন কথা বলেছেন দিনাজপুরের ঘোড়াঘাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আসাদুজ্জামান আসাদ।

ওসি আরো বলেন, পুলিশ সুপারের নির্দেশ মাদকের সাথে কোন আপোষ চলবে না। মাদক ব্যবসায়ী ও কারবারীদের পাশাপাশি মাদকসেবীদেরকেও আইনের আওতায় নিয়ে আসতে হবে। কারণ তারা সকলে একে অপরের পরিপূরক।’

সেই জিরো টলারেন্স নীতি বাস্তবায়নে সোমবার দুপুর থেকে মঙ্গলবার বেলা সাড়ে ১০টা পর্যন্ত একাধিক মাদক বিরোধী অভিযান চালিয়ে ২ জন মাদক ব্যবসায়ীসহ ৮ জন মাদক সেবীকে আটক করেছে ঘোড়াঘাট থানা পুলিশ।

অভিযান শেষে পুলিশ বাদী হয়ে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে একটি মামলা করেছে। সেই মামলায় আটক ওই মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে। তাদের কাছে থেকে জব্দ করা হয়েছে নেশা জাতীয় ব্যথানাশক ২০ পিস টাপেন্টাডল ট্যাবলেট।

গ্রেপ্তার মাদক ব্যবসায়ীরা হলেন, ঘোড়াঘাট পৌর এলাকার জমিলাপুর গ্রামের মৃত দুদু আলী শেখের ছেলে ইনসান আলী (৩৫) এবং মিতালী গুচ্ছগ্রামের মোস্তফা মিয়ার ছেলে বেল্লাল হোসেন (৩০)।

এছাড়াও মাদক সেবনের সময় আটক ৮ জনকে ৩ মাস এবং অপর আরো একজনকে ২ মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ড দিয়েছে ভ্রাম্যমান আদালত। ভ্রাম্যমান আদালতের নেতৃত্বে ছিলেন ঘোড়াঘাট উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) এবং নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট রাফিউল আলম।

সাজাপ্রাপ্তরা হলেন, ঘোড়াঘাট উপজেলার মগলিশপুর গ্রামের মৃত শরাফত প্রধানের ছেলে রেজাউল করিম (৫৪), কশিগাড়ী গ্রামের নজরুল ইসলামের ছেলে বকুল সরকার (৩৮), দিলজার হোসেনের ছেলে তারাজুল ইসলাম (৩২) ও মৃত ওসমান আলীর ছেলে আমিরুল ইসলাম (৪৩), দক্ষিণ দেবীপুর গ্রামের জাহিদুল ইসলামের ছেলে মেহেদুল ইসলাম (২৬), সিংড়া গ্রামের কালাম হোসেনের ছেলে আতিয়ার রহমান (২৭), রামেশ্বরপুর গ্রামের সোলেমান মিয়ার ছেলে বাবু মিয়া (৪৫) এবং কাদিমনগর গ্রামের সাইদুল ইসলামের ছেলে রাজু মিয়া (৩১)। তাদের সকলের ৩ মাসের কারাদন্ড। এছাড়াও ২ মাসের কারাদন্ডপ্রাপ্ত একজন হলেন রংপুরের পীরগঞ্জ উপজেলার চতরা-কামারপাড়া গ্রামের মৃত দীনেশ চন্দ্রের ছেলে নির্মল চন্দ্র (৩৫)।

থানা ও ইউএনও কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, সোমবার রাত সাড়ে ১১টায় ঘোড়াঘাট পৌর এলাকার ইসলামপুর গ্রামে রাস্তার উপর থেকে মাদক বেচাকেনার সময় দুজন মাদক ব্যবসায়ীকে টাপেন্টাডল ট্যাবলেটসহ আটক করে পুলিশ।

এছাড়াও সোমবার দুপুর থেকে মঙ্গলবার সকাল পর্যন্ত ৩নং সিংড়া ইউনিয়নের বিভিন্ন স্থানে পৃথক কয়েকটি অভিযানে ৯ মাদকসেবীকে মাদক সেবনের সময় হাতেনাতে আটক করে পুলিশ। তাৎক্ষণিক সেসব স্থানে ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করে তাদেরকে বিভিন্ন মেয়াদে সাজা দিয়েছেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট।

ঘোড়াঘাট উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) রাফিউল আলম বলেন, মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইন ৩৬ সারণির ৯ (গ) ধারায় মাদকসেবী ৯ জনকে বিভিন্ন মেয়াদে সাজা প্রদান করেছি।

হাকিমপুর সার্কেলের সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার শরিফুল ইসলাম বলেন, আমাদের নিয়মিত অভিযানে ঘোড়াঘাট ও হাকিমপুর উপজেলার মাদক ব্যবসায়ীরা অনেকটাই কোণঠাসা হয়ে পড়েছে। অনেকে মাদক ব্যবসা ছেড়ে স্বাভাবিক জীবনে ফিরেছে। আমরা মাদক একেবারে নির্মূল করতে চাই। সেহেতু আমাদের অভিযান চলমান থাকবে।

বার্তাবাজার/এম আই