১৬, জানুয়ারী, ২০১৯, বুধবার | | ৯ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪০

সাভারে শ্রমিক নেতাকে মেরে হাসপাতালে পাঠানোর অভিযোগ

আপডেট: জানুয়ারি ১৪, ২০১৯

সাভারে শ্রমিক নেতাকে মেরে হাসপাতালে পাঠানোর অভিযোগ

মোঃ আল মামুন খান, সাভার প্রতিনিধি: ঢাকার সাভারে বেতন বৈষম্য নিয়ে চলমান আন্দোলনে আশুলিয়ায় ‘এসবি নিটিং লিমিটেড’ কারখানার শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি, অপারেটর মুরাদ সরকারকে (২৪) মেরে হাসপাতালে পাঠানোর অভিযোগ উঠেছে থানা যুবলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক মঈনুল ইসলাম ভূঁইয়ার বিরুদ্ধে। গুরুতর আহত অবস্থায় ওই শ্রমিক নেতাকে বাইপাইল এলাকার এশিয়ান হাসপাতাল অ্যান্ড ডায়াগনস্টিক সেন্টারে ভর্তি করা হয়েছে।

শ্রমিকরা কাজ করতে না চাওয়ায় জোর করে কাজ করতে বাধ্য না করাতে মুরাদকে মারধর করা হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। তবে মুঠোফোনে মঈনুল ইসলামের কাছে এ বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, এ ধরণের কোনো ঘটনা গত এক সপ্তাহের ভিতরে ঘটে নাই। তিনি এই প্রতিবেদককে কারখানায় গিয়ে খোঁজ নিতে অনুরোধ করেন।

তবে এব্যাপারে জানতে চাইলে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন মুরাদ বলেন, ‘এসবি নিটিং লিমিটেড কারখানায় চার বছর ধরে অপারেটর হিসেবে কাজ করছি। বর্তমান আমি এই কারখানার শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি। বৃহস্পতিবার সকালে শ্রমিকরা মজুরি বৈষম্যর অভিযোগ তুলে কারখানার ভেতরে কাজ বন্ধ রেখে কর্মবিরতি পালন করে। এসময় পাশের সাফ নিটিং লিমিটেড কারখানার শ্রমিকরা আমাদের কারখানায় ইটপাটকেল নিক্ষেপ করলে সবাই বের হয়ে চলে যাই। এ ঘটনায় কারখানাটির প্রশাসনিক কর্মকর্তা শিহাব মাইকে ঘোষণা দিয়ে আন্দোলনকারী শ্রমিকদের কাজে ফেরানোর নির্দেশ দেন। এসময় এসবি নিটিং লিমিটেড কারখানার শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি হিসেবে আমি মালিক পক্ষকে মজুরি কাঠামো পূর্ণগঠনের ঘোষণা দিতে বলি।

তিনি আরও জানান, ঐ দিন বিকেলের দিকে বগাবাড়ি এলাকায় নিজের ডিশ অফিসে বসে থাকা অবস্থায় আশুলিয়া থানা যুবলীগ নেতা মঈনুল ইসলাম ভূঁইয়ার ড্রাইভার আমার কলার ধরে টেনে নিয়ে যায়। পরে তারা লোহার রড দিয়ে পিটিয়ে আমাকে আহত করে। এরপর আমার ক্ষত স্থানে ব্যথা নাশক স্প্রে করে এবং ঔষধ খাইয়ে বিষয়টি কাউকে না জানানোর হুমকি দেয়।

আহত শ্রমিক নেতা মুরাদের স্ত্রী অভিযোগ করেন, যুবলীগ নেতা ওই কারখানায় ঝুট ব্যবসা করেন। এ কারণে তার স্বামী শ্রমিক আন্দোলন করাচ্ছে এমন মিথ্যে অভিযোগ তুলে রড দিয়ে পিটিয়ে হত্যার চেষ্টা করে।

এব্যাপারে বাংলাদেশ গার্মেন্টস ইন্ডাস্ট্রিয়াল শ্রমিক ফেডারেশনের সাভার-ধামরাই এলাকার সভাপতি ইব্রাহিম বলেন, শ্রমিক যদি কোন অন্যায় করে থাকে কারখানা কর্তৃপক্ষ তার বিচার করবেন। কিন্তু ঝুট ব্যবসায়ী কেন শ্রমিককে রড দিয়ে পেটাবে। আমরা এ ঘটনার সুষ্ঠু বিচার দাবি করছি।

এ ব্যাপারে আশুলিয়া থানার পরিদর্শক (ওসি তদন্ত) জাবেদ মাসুদ বলেন, বিষয়টি তার জানা নেই। তবে এ ঘটনায় লিখিত অভিযোগ পেলে বিষয়টি তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।