২২, জানুয়ারী, ২০১৯, মঙ্গলবার | | ১৫ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪০

অজি প্রধানমন্ত্রীর নিমন্ত্রণে কোহলি-আনুশকা; কী হলো সেখানে?

আপডেট: জানুয়ারি ২, ২০১৯

অজি প্রধানমন্ত্রীর নিমন্ত্রণে কোহলি-আনুশকা; কী হলো সেখানে?

অস্ট্রেলিয়া সফররত ভারতীয় ক্রিকেট দলের অধিনায়ক বিরাট কোহলি এবং তার সহধর্মীনি আনুশকা শর্মার জন্য একটি অন্যরকম দিন ছিল এটি। এদিন তাদের চা চক্রে আমন্ত্রণ জানিয়েছিলেন অজি প্রধানমন্ত্রী স্কট মরিসন। শুধু কোহলি দম্পতি নন; আমন্ত্রিত ছিলেন অজি দলনেতা টিম পেইন এবং তার স্ত্রী। নতুন বছরের প্রথম দিন প্রধানমন্ত্রীর চায়ের আসরে বক্তা হিসেবে বাজিমাত করলেন টিম পেইন। তার কথাগুলো মন ছুঁয়ে গেছে সবার।

বিরাট কোহালির দলের বিপক্ষে মাঠের লড়াইয়ে পিছিয়ে থেকেও তাদের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন পেইন। প্রধানমন্ত্রী স্কট মরিসনের সামনে বক্তব্য রাখতে গিয়ে দাঁড়িয়ে কোহলি এবং তার দলকে উদ্দেশ্য করে পেইন বললেন, ‘যে রকম স্পিরিট নিয়ে এবং প্রতিদ্বন্দ্বিতা গড়ে তুলে তোমরা এই সিরিজে খেলছ, তা অস্ট্রেলিয়ার মানুষকে আবারাও ক্রিকেট মাঠে টেনে এনেছে। তাদের ক্রিকেট প্রেম ফিরিয়ে এনেছে।’

দক্ষিণ আফ্রিকায় বল টেম্পারিং কেলেঙ্কারিকে কেন্দ্র করে অস্ট্রেলীয় ক্রিকেটে ঝড় বয়ে গেছে। সিরিশ কাগজ দিয়ে বল ঘষার ছবি সারা পৃথিবীর মানুষ দেখে ফেলার পরে লজ্জায় প্রধানমন্ত্রীর দপ্তর থেকেই বিশেষ নির্দেশ গিয়েছিল, দোষীদের চিহ্নিত করে শাস্তি দাও। শোনা যায়, প্রধানমন্ত্রীর দফতরই চায়নি, স্টিভ স্মিথ আর ক্যাপ্টেন থাকুন। অস্ট্রেলীয় ক্রিকেটের সেই কঠিন সময়ের দিকে ইঙ্গিত করেই পেইন প্রতিপক্ষের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।

তিনি আরও বলেন, ‘গত এক মাসের উপর অস্ট্রেলিয়ায় আসার পর থেকে যে উঁচু মানের ক্রিকেট তোমরা খেলেছ, তা আমাদেরও সাহায্য করেছে নিজেদের দেশের ক্রিকেট অনুরাগীদের মন জয় করতে। তোমাদের তাই ধন্যবাদ দিতে চাই।’

অস্ট্রেলীয় অধিনায়কের বক্তব্য শোনার পরে উপস্থিত সবাই হাততালি দিয়ে ওঠেন। এরপর পালা কোহলির। ভারত অধিনায়ক মাইক্রোফোন হাতে নিয়ে বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রীর আমন্ত্রণে আসতে পারাটাই একটা বড় সম্মানের বিষয়। অস্ট্রেলিয়ার মাটিতে খেলা ক্রিকেট বিশ্বের সব চেয়ে কঠিন চ্যালেঞ্জ। শুধু যে অস্ট্রেলিয়া টিমের বিপক্ষেই আমরা খেলছি তা নয়; ব্যাট হাতে নামলে পুরো স্টেডিয়ামই যেন আপনাকে আউট করতে লেগে যায়। অস্ট্রেলিয়ার ক্রিকেট সংস্কৃতি এ রকমই। হারতে চায় না কেউ। তাই আমি ছেলেদের বলেছি, এমন এক দেশে এসে প্রথম তিনটি টেস্টে তোমরা যে রকম ক্রিকেট খেলেছ, তাতে গর্বিত হওয়া যায়। ফলাফল যাই হোক, দারুণ উপভোগ্য ক্রিকেট হয়েছে।’