রেস্তোরাঁ মালিকদেরকে আইন মেনে চলার নির্দেশ দিলেন মেয়র নাছির

হোটেল-রেস্তোরাঁ পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন রাখা ও মানসম্পন্ন নিরাপদ খাদ্য তৈরির জন্য মানসিকতার পরিবর্তন প্রয়োজন বলে মন্তব্য করেছেন চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের মেয়র জনাব আ জ ম নাছির উদ্দীন।

রোববার (৮ সেপ্টেম্বর) সকালে রীমা কনভেনশন সেন্টারে নগরের হোটেল মালিকদের সঙ্গে মতবিনিময় সভায় তিনি এসব কথা বলেন।

হোটেল মালিকদের উদ্দেশ্য করে মেয়র বলেন, রেস্তোরাঁ মালিক হলেও আপনি অন্য জায়গায় ভোক্তা। আমাদের একমাত্র পরিচয় ভোক্তা। মেয়াদোত্তীর্ণ খাবার নিজে খাবেন না। তাহলে ভোক্তাদের কেন খাওয়াবেন। কর্মচারীরা যাতে সঠিকভাবে দায়িত্ব পালন করে সেদিকে লক্ষ্য রাখবেন। জরিমানা মুখ্য উদ্দেশ্য নয়। আমাদের উদ্দেশ্য নিরাপদ খাদ্য নিশ্চিত করা। জনস্বার্থে আইন তৈরি করে সরকার। আমরা চাই আপনারা আইন মেনে চলেন। আইন জানি না বলার সুযোগ নেই। ব্যবসা পরিচালনা করতে হলে আইন জেনে নিতে হবে।

চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মো. সামশুদ্দোহার সভাপতিত্বে সভায় বক্তব্য দেন চসিকের মডার্ন খাদ্য পরীক্ষাগারের মাইক্রো বায়োলজিস্ট আশীষ কুমার দাশ, চসিকের স্বাস্থ্য পরিদর্শক ইয়াসিনুল হক চৌধুরী, ইপসার কর্মকর্তা ওমর সাহেদ হিরু, হোটেল মালিক সমিতির প্রধান উপদেষ্টা দিদারুল আলম সহ প্রমুখ।

চসিকের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আফিয়া আখতার বলেন, জনগণের স্বার্থে আইন তৈরি ও প্রয়োগ করা হয়। আইন জানতে হবে। সচেতন করার জন্যই জরিমানা করা হয়। হোটেল মালিকদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, আপনার বাসার রান্নাঘরের পরিবেশ যেমন রাখেন তেমন হোটেলের রান্নাঘরের পরিবেশও পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন রাখুন।

কনজ্যুমার অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় সহ-সভাপতি এসএম নাজির হোসেন বলেন, আমরা দেখেছি হোটেল রেস্তোরাঁকে জরিমানার পরও সংশোধন হচ্ছে না। অভিযান আরও বাড়াতে হবে। দেশে ক্যান্সারসহ অনেক জটিল রোগের মূল কারণ অস্বাস্থ্যকর ও পঁচা বাসি খাবার। তাই নিরাপদ খাদ্য নিশ্চিতকরণে সবাইকে আন্তরিক হতে হবে।

চট্টগ্রাম রেস্তোরাঁ মালিক সমিতির সভাপতি ইলিয়াস আহমেদ ভূঁইয়া বলেন, নগরের হোটেলগুলোকে সবুজ, হলুদ ও লাল চিহ্নিত করা হবে। রেস্তোরাঁ কর্মচারীদের প্রশিক্ষণ দেয়া সহ সকল রেস্তোরাঁ মালিকদের সচেতন করবো।

সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আবদুল হান্নান বাবু বলেন, জরিমানা বেশি করে আইন পাকাপোক্ত করা যায় না। আজ থেকে আমরা শুধু রেস্তোরাঁ নয়, পুরো শহরকে পরিষ্কার রাখবো। আমরা যে খাবার নিজে খাবো তা গ্রাহকদের খাওয়াবো। আমরা ভুল সংশোধনের জন্য এক বছর সুযোগ চাই।

বার্তা বাজার/কে.জে.পি

বার্তা বাজার .কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
এই বিভাগের আরো খবর