মধ্যযুগীয় বর্বরাতেকেও হার মানিয়েছে পাষণ্ড স্বামী

প্রিয় মানুষটা যেন হয়ে গেলেন সুন্দর বনের হিংস্র প্রাণী রয়েল বেঙ্গল টাইগার। শুধু তাই নয়, যেন আহত কোন হিংস্রে প্রাণী। ফরিদপুরে মধ্যযুগীয় কায়দায় এক গৃহবধূকে নির্যাতন করেছে তার স্বামী। গৃহবধূর মাথা ন্যাড়া করে শরীরের বিভিন্ন অংশে লোহার রড ও হাতুরি দিয়ে পিটিয়ে মারাত্মক আহত করার পর শরীরে দেয়া হয়েছে আগুনের ছ্যাঁকা। পরে মাথা ন্যাড়া অবস্থায় অসুস্থ ওই গৃহবধূকে এলাকার বিভিন্ন স্থানে ঘোরানো হয়।

নির্মম এ ঘটনাটি ঘটেছে ফরিদপুর শহরের আলীপুর শাপলা সড়ক এলাকায়। ঘটনার পর স্বামী কৌশলে স্ত্রী বৃষ্টিকে নিয়ে পালিয়ে শহরের নির্জন একটি ঘরে তালাবদ্ধ করে রাখে। বৃষ্টির মা থানায় অভিযোগ করলে শনিবার সন্ধ্যায় শহরের রথখোলা এলাকা থেকে গৃহবধূ বৃষ্টিকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এ সময় পাষণ্ড স্বামীকে আটক করে পুলিশ।

পুলিশ ও এজাহার সূত্রে জানা যায়, এক বছর আগে শহরের রথখোলা এলাকার বাসিন্দা ওই তরুণীর সাথে বিয়ে হয় শহরের আলীপুর মহল্লার শাপলা সড়ক এলাকার মাহামুদুলের সাথে। বিয়ের কিছুদিন পর থেকেই কারণে অকারণে ওই গৃহবধূর উপর মানসিক ও শারীরিক নির্যাতন শুরু করে অভিযুক্ত স্বামী মাহামুদুল।

শারীরিক নির্যাতনের ফলে গত বৃহস্পতিবার ওই গৃহবধূ অসুস্থ হয়ে পড়লে ফরিদপুর জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে যান। ওই সময় স্বামী মাহামুদুল তাকে হাসপাতাল থেকে বাসায় নিয়ে আসেন। পরে ওই গৃহবধূর মাথার চুল কেটে ন্যাড়া করে এবং হাতুড়ি দিয়ে শরীরের বিভিন্ন স্থানে পিটিয়ে আহত করে সে। নির্যাতনের একপর্যায়ে জ্ঞান হারিয়ে ফেলেন ওই গৃহবধূ।

স্বামীর নির্যাতনের শিকার ওই গৃহবধূ বর্তমানে ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে ফরিদপুর কোতয়ালী থানার ওসি এ এফ এম নাসিম বলেন, এ ব্যাপারে শনিবার সন্ধ্যায় ওই গৃহবধূ নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে স্বামী মাহামুদুলকে আসামি করে একটি মামলা দায়ের করেছেন। তিনি বলেন, মামলার পর শনিবার রাতেই স্বামী মোঃ মাহামুদুল হাসানকে গ্রেফতার করা হয়। রোববার মাহবুবকে জেলার মূখ্য বিচারিক হাকিমের আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে পাঠিয়ে দেয়া হয়েছে।

বার্তাবাজার/এএস

বার্তা বাজার .কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
এই বিভাগের আরো খবর