পাকুন্দিয়ায় স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণের পর হত্যা: প্রধান আসামি গ্রেপ্তার

কিশোরগঞ্জের পাকুন্দিয়ায় স্কুল ছাত্রী স্মৃতি আক্তার রীমাকে (১৫) ধর্ষণের পর হত্যা মামলার প্রধান আসামিকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। রোববার বিকেলে কিশোরগঞ্জ থেকে তাকে গ্রেপ্তার করে পাকুন্দিয়া থানা পুলিশ। সে পাকুন্দিয়া উপজেলার চরফরাদী গ্রামের খুরশিদ মিয়ার ছেলে।

পুলিশ সূত্রে জানা যায়, রোববার বিকেলে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা পাকুন্দিয়া থানার ওসি (তদন্ত) এসএম শফিকুল ইসলামের নেতৃত্বে একদল পুলিশ বিশেষ অভিযান চালিয়ে কিশোরগঞ্জের জেলা স্মরণী মোড় এলাকা থেকে জাহিদকে গ্রেপ্তার করে। সে স্কুল ছাত্রী স্মৃতি আক্তার রীমা ধর্ষণ ও হত্যা মামলার এজাহারভুক্ত এক নম্বর আসামী।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসএম শফিকুল ইসলাম জাহিদকে গ্রেপ্তারের বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, বিকেলে বিশেষ অভিযান চালিয়ে কিশোরগঞ্জ থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। থানা হেফাজতে রেখে তাকে স্কুল ছাত্রী রীমা ধর্ষণ ও হত্যার প্রকৃত ঘটনা উদঘাটনের জন্য জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে।

উল্লেখ্য, গত ১৬জুলাই (মঙ্গলবার) বিকেলে মায়ের সাথে অসুস্থ নানীকে দেখতে পাকুন্দিয়া উপজেলার গাংধোয়ারচর গ্রামে নানার বাড়িতে আসে রীমা। ১৮জুলাই বৃহস্পতিবার নানার বাড়ির পশ্চিম পাশে পুকুর পাড়ে একটি বরই গাছের ডালে ঝুলন্ত রীমার মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। এ ঘটনায় রীমার মা আঙ্গুরা খাতুন ১৯জুলাই শুক্রবার রাতে বাদী হয়ে চরফরাদী গ্রামের খুরশিদ মিয়ার ছেলে জাহিদ মিয়া, রুবেল মিয়ার ছেলে পিয়াস মিয়া, ফারুক মিয়ার ছেলে রুমান মিয়া ও কফুল উদ্দিনের ছেলে রাজু মিয়ার নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাত আরও পাঁচ-ছয়জনকে আসামি করে পাকুন্দিয়া থানায় একটি মামলা দায়ের করেন।

সস্কৃতি আক্তার রীমা পাশবর্তী হোসেনপুর উপজেলার জামাইল গ্রামের মৃত আবুল হোসেনের মেয়ে। সে হোসেনপুর পাইলট বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে নবম শ্রেণীতে পড়ালেখা করতো।

-নয়া দিগন্ত অনলাইন

 

বার্তা বাজার/ এস.আর

বার্তা বাজার .কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
এই বিভাগের আরো খবর