১৪, ডিসেম্বর, ২০১৮, শুক্রবার | | ৫ রবিউস সানি ১৪৪০

বিএনপি-হেফাজত গোপন আঁতাত!

আপডেট: ডিসেম্বর ৮, ২০১৮

বিএনপি-হেফাজত গোপন আঁতাত!

আওয়ামী লীগের সঙ্গে বাইরে সখ্য রেখে হেফাজত নির্বাচনে বিএনপির পক্ষেই কাজ করবে। বিএনপির কয়েকজন শীর্ষ স্থানীয় নেতার সঙ্গে হেফাজতের বেশ ক’জন নেতার নিয়মিত বৈঠকের খবর পাওয়া গেছে। এরা হেফাজতের প্রধান নেতা আল্লামা শফীকে আড়াল করে বিএনপির সঙ্গে বৈঠক করছে বলে খবর পাওয়া গেছে।

একাধিক সূত্র বলছে, হেফাজতের অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা এবং ইসলামিক ঐক্য জোটের নেতা মুফতি ইজহারুল ইসলাম, মাওলানা আবদুল হালিম বুখারী, মাওলানা আবদুল কুদ্দুস বিএনপির একাধিক গুরুত্বপূর্ণ নেতার সঙ্গে কথা বলেছেন। একটি সূত্র বলছে, হেফাজতের একজন গুরুত্বপূর্ণ নেতার সঙ্গে লন্ডনে পলাতক বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক জিয়া কথা বলেছেন। ঐ নেতাকে ২০১৩ সালের ৫ মে’র ঘটনাবলী মনে করিয়ে দেওয়া হয়েছে। হেফাজতকে বিএনপি কি কি সুযোগ সুবিধা দেবে, তারও ফিরিস্তি তুলে ধরা হয়েছে। দেশের বিভিন্ন স্থানে হেফাজতের লোকজন আওয়ামী লীগ প্রার্থীর বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছে বলে জানা গেছে। শুধু হেফাজত নয়, কৌশলে ইসলামপন্থী দলগুলোকে আওয়ামী লীগের বিরুদ্ধে ব্যবহার করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে বিএনপি। জামাত ছাড়াও এবার বেশ কিছু ইসলামপন্থী দল নির্বাচনে অংশ নিচ্ছে। এদের মধ্যে জাতীয় পার্টির নেতৃত্বাধীন সম্মিলিত জাতীয় জোটের বাংলাদেশ খেলাফত মজলিশ এবং বাংলাদেশ ইসলামী ফ্রন্ট আওয়ামী লীগের পক্ষেই ছিল। কিন্তু অতি সম্প্রতি, তারা আওয়ামী লীগের উপর অসন্তোষ প্রকাশ করছে। এদের সঙ্গে বিএনপির যোগাযোগ হয়েছে। এই দুই দলকে আওয়ামী লীগের বিরুদ্ধে ব্যবহারের চেষ্টা চলছে। বাংলাদেশ খেলাফত আন্দোলন এবং ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ আলাদা ভাবে নির্বাচন করছে। এদের মধ্যে খেলাফত আন্দোলন ২৬টি আসনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করলেও ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ ২৯৯টি আসনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছে বলে জানা গেছে। বিএনপি এই দুটি রাজনৈতিক দলকে আওয়ামী লীগ এবং ভারত বিরোধী প্রচারণায় কাজে ব্যবহার করবে বলে জানা গেছে। বিএনপি যে কথাগুলো এখন বলতে পারে না, ভারত বিদ্বেষী সেই বক্তব্যগুলো তাঁরা ইসলামী দলগুলোকে দিয়ে বলাতে চায়। বিএনপি অতীতে যেভাবে আওয়ামী লীগকে ভারতের অনুগত কিংবা ইসলাম বিদ্বেষী বলে প্রচার করতো, সেই প্রচারে এবার এই সব ইসলামী দলগুলোকে ব্যবহার করতে চায়।

আর হেফাজতে ইসলামকে বিএনপি সামনে আনতে চায় ৫ মে’র ঘটনার স্মরণ করিয়ে দিতে। যদিও ২০১৩ সালের পর অনেক জল গড়িয়েছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কওমি মাদ্রাসাকে স্বীকৃতি দিয়েছেন। এজন্য হেফাজতের পক্ষ থেকে প্রধানমন্ত্রীকে সংবর্ধনা দেওয়া হয়। ঐ সংবর্ধনায় প্রধানমন্ত্রীকে হেফাজতের পক্ষ থেকে ‘কওমি জননী’ স্বীকৃতি দেয়। যদিও হেফাজতের অনেকে বলছেন, হেফাজতের শীর্ষ নেতাদের সাথে আওয়ামী লীগের মধুর সম্পর্ক থাকলেও নীচের সবাই আওয়ামী বিরোধী। তাদেরই নির্বাচনে আওয়ামী লীগের বিরুদ্ধে নামাতে চায় বিএনপি।