২০, নভেম্বর, ২০১৮, মঙ্গলবার | | ১১ রবিউল আউয়াল ১৪৪০

তৃতীয় শক্তি কে হবে?

আপডেট: নভেম্বর ১১, ২০১৮

তৃতীয় শক্তি কে হবে?

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিএনপি যদি অংশগ্রহণ করে তবে একটি দল বিজয়ী ও আর একটি দল প্রধান বিরোধী দল হবে এটা নিশ্চিত। বাংলাদেশের রাজনীতিতে আমরা ৯১’ এর পর থেকে প্রতিদ্বন্দ্বিতামূলক গণতন্ত্রের প্রতিচ্ছবি দেখতে পাই। তবে, প্রতিবারই নির্বাচনে দুইটি প্রধান দল একক ক্ষমতাবলে ক্ষমতায় আসেনি। ক্ষমতায় আসতে সাহায্য নিয়েছে তৃতীয় শক্তির।

৯১’ এর নির্বাচনে বিএনপিকে জামাতের উপর ভর করে ক্ষমতায় আসতে হয়েছিল। তৃতীয় শক্তি হিসেবে জামাতের আবির্ভাব হয়েছিল তখন। একইভাবে, ৯৬’এর নির্বাচনে আওয়ামী লীগকে জাতীয় পার্টির সাহায্য নিতে হয়েছিল। শুধু তাই নয় জাতীয় পার্টির নেতা আনোয়ার হোসেন মঞ্জুকে মন্ত্রিসভায় নিয়ে সরকার গঠন করেছিল আওয়ামী লীগ। জাতীয় পার্টি ঐ সময় তৃতীয় পার্টির ভূমিকা পালন করেছিল। আবার, ২০০১-এর নির্বাচনে জামাত এসেছিল তৃতীয় শক্তি হিসেবে। জামাতকে নিয়েই ক্ষমতায় বসেছিল বিএনপি। এদিকে ২০০৮-এর নির্বাচনে জামাতকে পিছে ফেলে তৃতীয় শক্তির অবস্থান আবার দখলে নেয় জাতীয় পার্টি। ২০১৪-এর নির্বাচনে বিএনপি অংশগ্রহণ না করায় প্রতিদ্বন্দ্বিতামূলক নির্বাচন থেকে বঞ্চিত হয় দেশবাসী।

এবারের নির্বাচনের তাৎপর্যপূর্ণ দিক হচ্ছে, জামাতের নিবন্ধন বাতিল হওয়ায় প্রতীক হারিয়েছে দলটি। এরফলে, জামাত এখন আর নিজস্ব পরিচয়ে নির্বাচন করতে পারবে না। সেই সঙ্গে, জঙ্গিবাদ ও যুদ্ধাপরাধীদের বিচার হওয়ার ফলে জামাত আর আগের অবস্থানেও নেই। এই কারণে জামাতের তৃতীয় শক্তি হিসেবে আবির্ভূত হওয়ার সম্ভাবনা নেই। তাই, এবারের নির্বাচনে কে ক্ষমতায় আসবে, কে বিরোধী দল হবে এর চেয়ে চিত্তাকর্ষক বিষয় হচ্ছে রাজনীতির মাঠে তৃতীয় শক্তি হিসেবে কার আবির্ভাব ঘটে?

তৃতীয় শক্তি হিসেবে জাতীয় পার্টির পাশাপাশি বিকল্পধারা বড় সম্ভাবনার একটি ক্ষেত্র তৈরি করেছে। কেননা বিকল্পধারা মধ্যে বিএনপিসহ আওয়ামী লীগের পক্ষ ও বিপক্ষের শক্তি রয়েছে।

এদিকে, বিভিন্ন দাবিদাওয়া নিয়ে রাজনীতিতে টিকে আছে বামদলগুলো। এবার যদি তারা নির্বাচনে অংশগ্রহণ করে তবে তৃতীয় শক্তি হিসেবে তাদের এগিয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা কতটুকু তা ভোটের মাধ্যমেই দেখা যাবে।

সাম্প্রতিককালে বাংলাদেশের রাজনীতির একটি চোখে পড়ার মতো দিক হচ্ছে, খেলাফত মজলিশসহ ইসলামী দলগুলো ঐক্যবদ্ধভাবে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করেছে। গত কয়েকটি সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে তারা ভালো ফলাফলও করেছে। শুধু তাই নয়, অধিকাংশ জায়গাগুলোতে খেলাফত মজলিশ তৃতীয় অবস্থান দখল করেছে। যদিও বাংলাদেশে এখনো একটি জনগোষ্ঠী আছে, যারা ধর্মভিত্তিক রাজনীতিকে প্রাধান্য দেয়, যারা ইসলামী মনস্ক ধ্যান ধারণা পোষণ করে, এদের সংখ্যা কিন্তু একেবারেই কম নয়। শেষমেশ জামাতকে যদি নির্বাচন করতে হয় তবে ধানের শীষ প্রতীক নিয়েই করতে হবে। সেক্ষেত্রে বলা যেতেই পারে, তাদের এ ভোটগুলো জামাতের পক্ষে যাচ্ছেনা। সুতরাং, এবারের নির্বাচনে খেলাফত মজলিশসহ ইসলামী দলগুলো কোন বিস্ময় নিয়ে আবির্ভাব হয় কিনা এটাই এখন দেখার বিষয়।

যদিও একটি গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়ার মধ্য দিয়েই তৃতীয় শক্তির উত্থান, পতন ও বিকাশ ঘটে। বাংলাদেশের রাজনীতিতে তৃতীয় শক্তি কখনোই সুবিধা করতে পারেনি। আবার প্রধান দুইটি দল সবসময়ই এই তৃতীয় শক্তির উপর নির্ভর করেছে। সেইসঙ্গে সুবিধামতো করেছে ব্যবহার। আমরা বারবার দেখেছি, জামাত ও জাপার মধ্যে তৃতীয় শক্তির অদল-বদল হয়েছে। এবারের নির্বাচনে জামাত থাকছে না, সেক্ষেত্রে জাতীয় পার্টি, বিকল্পধারা নাকি খেলাফত মজলিশের মতো ইসলামী কোন দলের তৃতীয় শক্তি হিসেবে উত্থান হয়, তা নিয়ে রাজনৈতিক মহল ব্যাপক আগ্রহ ব্যাপক।