২১, নভেম্বর, ২০১৮, বুধবার | | ১২ রবিউল আউয়াল ১৪৪০

গল্প ও চরিত্র পছন্দ হচ্ছে না

আপডেট: নভেম্বর ১০, ২০১৮

গল্প ও চরিত্র পছন্দ হচ্ছে না

নাট্য জগতের একজন দারুণ জনপ্রিয় অভিনেত্রী অহনা। পুরো নাম রহমান লাকি অহনা হলেও ছোট্ট করে সবাই তাকে অহনা নামেই চেনেন। কমেডি ঘরানোর নাটকে তাকে সবচেয়ে বেশি দেখা যায়। বিশেষ করে বরিশালের ভাষায় নির্মিত নাটকগুলোতে পরিচালকদের প্রথম পছন্দের নাম অহনা। অভিনয় করেছেন কিছু প্রেমের গল্পের নাটকেও।

নাট্য জগতের এই তারকা চারটি চলচ্চিত্রেও অভিনয় করেছেন। সে খবর হয়তো অনেকেরই অজানা। ২০০৮ সালে ‘চাকরের প্রেম’ চলচ্চিত্রের মাধ্যমে তিনি রূপালী পর্দায় পা রাখেন। যেটির নায়ক ছিলেন আমিন খান। সেখানে ধনি বাবার বিগড়ে যাওয়া এক মেয়ের চরিত্রে দেখা গিয়েছিল অহনাকে। তার বাবার ভূমিকায় ছিলেন এক সময়ের জনপ্রিয় চিত্রনায়ক আলমগীর।

এরপর ২০০৯ সালে ‘জলদস্যুর রক্তরহস্য’, ২০১০ সালে ‘দুই পৃথিবী’ এবং ২০১২ সালে ‘চোখের দেখা’ নামে আরও তিনটি ছবিতে অহনা অভিনয় করেন। কিন্তু দীর্ঘ ছয় বছর চলচ্চিত্র থেকে দূরে সেই নায়িকা। মজে আছেন টেলিভিশন নাটক নিয়ে। কিন্তু কী কারণে রূপালী পর্দায় আসছেন না চার ছবির এই নায়িকা। সম্প্রতি তিনি সেই কারণই জানিয়েছেন।

অহনার কথায়, ‘একটা সময় নিয়মিত চলচ্চিত্রে অভিনয়ের ইচ্ছা ছিল। সেই ভাবনা থেকেই চারটি ছবিতে অভিনয় করেছিলাম। এখনও বিভিন্ন চলচ্চিত্রে অভিনয়ের প্রস্তাব পাই। কিন্তু গল্প ও চরিত্র পছন্দ হয়, রাজিও হই না। যার কারণে ইচ্ছা থাকা সত্ত্বে চলচ্চিত্রে ফিরতে পারছি না। তবে মনের মতো গল্প ও চরিত্র পেলে আবারও রূপালী পর্দায় ফিরব।’

বর্তমানে একাধিক ধারাবাহিক নাটকের কাজ নিয়ে ব্যস্ত আছেন অহনা। বৈশাখী টিভিতে চলছে তার ‘ছায়াবিবি’ ধারাবাহিক নাটকটি। যেটির ইতিমধ্যেই ১০০ পর্ব প্রচারিত হয়েছে। এছাড়া আরটিভিতে চলছে তার ‘নোয়াশাল’ নাটকটি। বরিশাল ও নোয়াখালীর আঞ্চলিক ভাষায় নির্মিত কমেডি ঘরানার এ নাটকটিও চলছে দীর্ঘদিন ধরে। সামাজিক অবক্ষয় এবং হাস্যরসই এটির প্রধান উপজীব্য।