সিনহার অপকর্মের কথা জেনেও চুপ ছিলাম: সিনহার বড় ভাই

এস কে সিনহার বড় ভাই নরেন্দ্র কুমার সিনহা দুদক কার্যালয়ে সাক্ষ্য দিয়ে বলেছেন, সাবেক প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার (এস কে) সিনহার সঙ্গে আমাদের পারিবারিক দূরত্ব ছিল আগের থেকেই। তার অপকর্ম সম্পর্কে আমরা ওয়াকিবহাল ছিলাম, কিন্তু পরিবারের সদস্য হওয়ায় আমরা চুপ ছিলাম।

সোমবার (১৬ মে) দুদকের প্রধান কার্যালয়ে সাক্ষ্য শেষে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে তিনি এ কথা বলেন।

দুদকের উপ-পরিচালক গুলশান আনোয়ার প্রধানের ডাকে সাড়া দিয়ে নরেন্দ্রসহ ৩ জন আজ কমিশনে হাজির হন। পরে দুপুর দেড়টায় তাদের দুদকের একটি মাইক্রোবাসে করে আদালতে নিয়ে যাওয়া হয়।

পরে আদালতে তারা এসকে সিনহার বিরুদ্ধ ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দেন বলে জানা গেছে। দুদকে আসা অন্য দুইজন হলেন শঙ্খজিৎ সিংহ ও ইঞ্জিনিয়ার সুজিত।

নরেন্দ্র কুমার সিনহা সাংবাদিকদের বলেন, ‘এস কে সিনহার সঙ্গে আমাদের পারিবারিক দূরত্ব ছিল আগে থেকেই। তার অপকর্ম সম্পর্কে আমরা ওয়াকিবহাল ছিলাম, কিন্তু পারিবারের সদস্য হওয়ায় আমরা চুপ ছিলাম।’

দুদক উত্তরায় প্লট জালিয়াতির ঘটনায় ২০২১ সালের ৭ অক্টোবর এসকে সিনহার বিরুদ্ধে ৭ কোটি ১৪ লাখ ৫ হাজার ৮৬৫ টাকা অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগে মামলা করে।

মামলায় বলা হয়, সাবেক প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহা তার নিজ নামে ইতোপূর্বে রাজউক থেকে উত্তরা আবাসিক এলাকায় একটি প্লট বরাদ্দপ্রাপ্ত হন। পরে তিনি অসৎ উদ্দেশ্যে নিজ ক্ষমতার অপব্যবহার করে অবৈধ প্রভাব বিস্তারের মাধ্যমে প্রতারণার আশ্রয়ে তার ভাই নরেন্দ্র কুমার সিনহার নামে রাজউক পূর্বাচল প্রকল্পে প্লটের জন্য আবেদন করান এবং ৩ কাঠার একটি প্লট বরাদ্দ করান। পরে ক্ষমতার প্রভাব খাটিয়ে ওই তিন কাঠার প্লটটি পাঁচ কাঠার প্লটে উন্নীত করান।

পূর্বাচল থেকে প্লট স্থানান্তর করে উত্তরার সেক্টর-৪, রোড নং-৬, বাড়ি নং-১/এ প্লটটি রাজউক থেকে অনুমোদন করান। সুরেন্দ্র কুমার সিনহা নিজেই ওই প্লটের যাবতীয় অর্থ মোট ৭৫ লাখ টাকা পরিশোধ করেন। পরে ওই প্লটে ৯তলা ভবন নির্মাণ করেন।

দুদক সূত্রে আরও জানা যায়, অনুসন্ধানকালে নিরপেক্ষ প্রকৌশলীর প্রতিবেদন অনুযায়ী, উত্তরা আবাসিক এলাকায় সেক্টর-৪ এর বাড়িটির নির্মাণ ব্যয় ৬ কোটি ৩১ লাখ ৫ হাজার ৮৬৫ টাকা। এছাড়া ওই প্লটের মূল্য হিসেবে রাজউকে পরিশোধ করা হয় ৭৫ লাখ টাকা। সে হিসেবে প্লটের মূল্যসহ ভবন নির্মাণ ব্যয় দাঁড়ায় ৭ কোটি ৬ লাখ ৫ হাজার ৮৬৫ টাকা। এর মধ্যে খালেদা চৌধুরীর কাছ থেকে ফ্ল্যাট বিক্রির অগ্রিম বাবদ ৭০ লাখ টাকা টাকা পান। ওই টাকা বাদে অবশিষ্ট ৬ কোটি ৩৬ লাখ ৫ হাজার ৮৬৫ টাকা ও সিনহার পরিচিত শঙ্খজিৎ সিংহের নামে স্থায়ী ও নগদে ৭৮ লাখ টাকা জমা করেন।

অর্থাৎ ৭ কোটি ১৪ লাখ ৫ হাজার ৮৬৫ টাকার সম্পদ সুরেন্দ্র কুমার সিনহা ক্ষমতার অপব্যবহার ও প্রতারণার মাধ্যমে নিজ ভাই এবং আত্মীয়ের নামে বেনামে অর্জন করেছেন। যার কোনো বৈধ উৎস নেই বা তার জ্ঞাত আয়ের সঙ্গে অসঙ্গতিপূর্ণ।

দুদকে এসকে সিনহার বিরুদ্ধে মোট তিনটি মামলা হয়েছে। এর মধ্যে ঋণ জালিয়াতি ও অর্থপাচারের দুই মামলায় সাবেক এই প্রধান বিচারপতিকে চার ও সাত বছরের কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। এর মধ্যে ঋণ জালিয়াতির মামলায় চার বছর এবং অর্থ পাচারের মামলায় সাত বছরের কারাদণ্ড হয় তার।

বার্তাবাজার/এম আই

বার্তা বাজার .কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
এই বিভাগের আরো খবর