পর্যাপ্ত আশ্রয়কেন্দ্র নেই ভোলায়, দুর্যোগ ঝুঁকিতে ২ লাখ মানুষ

পর্যাপ্ত আশ্রয়কেন্দ্র না থাকায় দুর্যোগ ঝুঁকিতে আছে ভোলার মেঘনা-তেঁতুলিয়া নদীর মধ্যবর্তী চরাঞ্চলের দুই লক্ষাধিক মানুষ। নিরাপদ আশ্রয়কেন্দ্রের অভাবে বিচ্ছিন্ন এসব চরের বাসিন্দাদের অর্ধেকের বেশি ঝড়-বাদলে অরক্ষিত। এসব মানুষের নিরাপত্তার স্বার্থে প্রয়োজনীয় আশ্রয়কেন্দ্র নির্মাণের দাবি সংশ্লিষ্টদের। অবশ্য এসব চরবাসীর নিরাপত্তা নিশ্চিতে পর্যাপ্ত আশ্রয়কেন্দ্র নির্মাণের আশ্বাস দিয়েছেন জেলা প্রশাসক।

তজুমদ্দিন উপজেলার মেঘনার মধ্যবর্তী চর মোজাম্মেলে বাস করেন প্রায় ১০ হাজার মানুষ। আর ঝড়- জলোচ্ছ্বাস থেকে রক্ষায় রয়েছে এক হাজার লোকের ধারণক্ষমতার মাত্র একটি স্কুল কাম সাইক্লোন সেল্টার। একই অবস্থা পার্শ্ববর্তী চর জহির উদ্দিন, চর নাসরিন, সিডার চর, মনপুরার কলাতলির চর, চর নিজাম, ঢালচর, চর কুকরী মুকরিসহ মেঘনা-তেঁতুলিয়ার মধ্যবর্তী ৩৫টি চরের ২ লক্ষাধিক মানুষের। গবাদি পশুর আশ্রয়েরও তীব্র সংকট রয়েছে এসব চরে। বৈরী আবহাওয়ায় জানমালের ঝুঁকি থাকলেও শুধু সৃষ্টিকর্তার ওপর ভরসা করেই বছরের পর বছর পার করছেন অসহায় চরবাসী।

চরাঞ্চলের বাসিন্দারা বলেন, তুফানে ঘর উড়িয়ে নিয়ে যায়, ঝড়-বাদল আসলে থাকার কোনো জায়গা নেই তাদের। এ অবস্থায় আশ্রয় কেন্দ্রের সংকটে থাকা চরবাসীর জান মালের নিরাপত্তা বাড়ানোর দাবি উন্নয়নকর্মীদের।

মানবসেবা সংস্থার সভাপতি মো. রফিক সাদী বলেন, বেড়িবাঁধ নাই, দুর্যোগের সময় তারা জীবনের ঝুঁকি নিয়ে এ চরগুলিতে থাকে। ঘূর্ণিঝড় প্রস্তুতি কর্মসূচীর উপ-পরিচালক মো. সাহাবুদ্দিন জানালেন, শুধু চরাঞ্চল নয়, ঝড়-বন্যায় জেলার জনসংখ্যার অর্ধেককেই আশ্রয়কেন্দ্রের বাইরে থাকতে হয়। তিনি বলেন, ৬০ শতাংশ মানুষ আশ্রয়কেন্দ্রে এবং কিছু এলাকায় শক্ত ঝর আছে সেখানে আশ্রয় নিতে পারবে। বাকি ৪০ শতাংশ মানুষ সতর্কাবস্থায় থাকলেও নিরাপদ আশ্রয়ের অভাবে অনেকটাই ঝুঁকির মধ্যে থাকবে।

তবে চরাঞ্চলের পর্যাপ্ত সাইক্লোন সেল্টার ও কিল্লা নির্মাণের মাধ্যমে সবাইকে নিরাপত্তার মধ্যে আনার কথা জানালেন জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ মাসুদ আলম ছিদ্দিক। তিনি বলেন, পর্যাপ্ত সংখ্যক সাইক্লোন শেল্টার ও মুজিব কিল্লা নির্মাণের জন্য আমরা প্রস্তাব পাঠিয়েছি। প্রস্তাব পাস হলেই তা নির্মাণ করা হবে।

জেলার ২১ লাখ মানুষের আশ্রয়ের জন্য ৬৫৭টি ঘূর্ণিঝড় আশ্রয়কেন্দ্র ও স্কুল কাম সাইক্লোন শেল্টার রয়েছে। এর মধ্যে শতাধিক আশ্রয়কেন্দ্র ব্যবহারের অনুপযোগী

বার্তা বাজার .কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
এই বিভাগের আরো খবর