২৩, ফেব্রুয়ারি, ২০১৮, শুক্রবার | | ৭ জমাদিউস সানি ১৪৩৯

চলছিল আত্মহত্যার শ্যুটিং, এরপরের মর্মান্তিক ঘটনা শুনলে গায়ে কাঁটা দেবে আপনারও

আপডেট: ১৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, ০৭:৫১ পিএম

চলছিল আত্মহত্যার শ্যুটিং, এরপরের মর্মান্তিক ঘটনা শুনলে গায়ে কাঁটা দেবে আপনারও
চলছিল আত্মহত্যার শ্যুটিং, এরপরের মর্মান্তিক ঘটনা শুনলে গায়ে কাঁটা দেবে আপনারও।  শ্যুটিং করতে গিয়ে ট্রেনের ধাক্কায় মৃত্যু হল দুই বন্ধুর।   বেলঘরিয়া ও দমদম স্টেশনের মাঝে দুর্ঘটনাটি ঘটেছে। 

ছোটো ছবি বানানোর স্বপ্ন দেখেছিল তিন বন্ধু সুনীল, শৈশব ও শৈনদ্বীপ।  শৈশব বঙ্গবাসী কলেজ এবং সুনীল সুরেন্দ্রনাথ কলেজের ছাত্র।  শৈনদ্বীপকে সঙ্গে নিয়ে ফিল্ম তৈরি করছিলেন তাঁরা।  অনেকদিন ধরেই চলছিল প্ল্যান।  ছবির প্রতিপাদ্য বিষয়, এক বন্ধু আত্মহত্যা করতে
যাচ্ছেন, আরেকজন তাঁকে বাঁচানোর চেষ্টা করছেন।  সোমবার সন্ধ্যায় ছিল সিনেমার শ্যুটিং। 


দিন সিসিআর ব্রিজের নীচে সোমবার সন্ধেয় শ্যুটিং চলছিল।  প্রথমবার একটি ইঞ্জিন চলে এলেও,  কোনওক্রমে রক্ষা পায় তারা।  তারপর পুরো শ্যুটিংয়ের ডুবে যায় তিন জনের মন।  পিছন থেকে যে কখন আপ বজবজ লোকাল চলে আসে, তা টের পাননি কেউই। ঘটনাস্থলেই মারা যায় শৈশব ও সুনীল।  শৈনদ্বীপ বেঁচে যায়। 


মর্মান্তিক এই ঘটনায় বাকরুদ্ধ শৈনদ্বীপ।  চোখের সামনে দুই বন্ধুর এই পরিণতি কোনওভাবেই মেনে নিতে পারছেন না তিনি।  বাক্যিহারা শৈনদ্বীপের শূন্য দৃষ্টিই যেন বলে দিচ্ছে তাঁর মনের কথা।  আর সন্তানকে হারিয়ে দুই মায়ের শূন্য বুকের হাহাকার যেন মোচড় দিচ্ছে আর পাঁচ জনের মনেও।  --জিনিউজ