২২, জানুয়ারী, ২০১৮, সোমবার | | ৫ জমাদিউল আউয়াল ১৪৩৯

বাংলাদেশকে বিশ্বকাপের ফাইনালে দেখতে চাই: বুলবুল

আপডেট: ১৬ ডিসেম্বর ২০১৭, ০৮:৫১ পিএম

বাংলাদেশকে বিশ্বকাপের ফাইনালে দেখতে চাই: বুলবুল

বাংলাদেশ ক্রিকেটের অন্যতম কিংবদন্তি ক্রিকেটারের নাম আমিনুল ইসলাম বুলবুল। বাংলাদেশ জাতীয় দলের সাবেক এই অধিনায়ক আজ (শনিবার) মিরপুর শেরেবাংলা ক্রিকেট স্টেডিয়ামে এসেছিলেন বিজয় দিবস ক্রিকেটে শহীদ জুয়েল একাদশের হয়ে খেলতেও। খেলার ফাঁকে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে বুলবুল জানান, তিনি বাংলাদেশ দলকে বিশ্বকাপের ফাইনালে দেখতে চান।


বাংলাদেশ ক্রিকেটের সাম্প্রতিক উন্নতিতে বেশ আশাবাদী বর্তমানে আইসিসির এই কর্মকর্তা। বাংলাদেশের বিশ্বকাপের ফাইনালে খেলার

বিষয়ে বুলবুল বলেন, ‘আমরা তো সব দিক থেকেই উন্নতির শিখরে যাচ্ছি এবং এটি তারই একটা অংশ। ক্রিকেটের মধ্য দিয়ে আমরা বিশ্বের কাছে পরিচিত পাচ্ছি। আমরা স্বাধীন বাংলাদেশের ক্রিকেট দলের সদস্য। এটা একটা বড় ব্যাপার। আমাদের ক্রিকেট যেভাবে এগিয়ে যাচ্ছে তাতে বেশি দিন লাগবে না, শিখরে যেতে। আমরা বড় বড় দুটা আইসিসি টুর্নামেন্টে একটার কোয়াটার এবং আরেকটার একটি সেমিফাইনাল খেলেছি। ইনশাল্লাহ আমরা সামনে ফাইনাল খেলবো।’

 

জানুয়ারির মাঝামাঝি থেকেই শ্রীলঙ্কা এবং জিম্বাবুয়েকে নিয়ে বাংলাদেশ আয়োজন করতে যাচ্ছে ত্রিদেশীয় সিরিজ। এই সিরিজে বাংলাদেশকেই ফেবারিট মানছেন এই ক্রিকেট লিজেন্ড। তার মতে, ‘আসলে বাংলাদেশ তো ফেবারিট টিম। হোম থেকে বলেন কিংবা সাম্প্রতিক খেলা বলেন, কিংবা পারফরম্যান্স বিচারে, তাতে বাংলাদেশ অবশ্যই ফেবারিট। আমাদেরকে ভালো ক্রিকেট খেলতে হবে। ধারাবাহিক খেলতে হবে। সিরিজ শুরুর আগে দুর্বল জায়গা নিয়ে কাজ করতে হবে এবং ভাল ক্রিকেট খেলতে হবে। বিশেষ করে এই টুর্নামেন্টটা। যেহেতু আমারা ফেবারিট, সেহেতু আমাদের ওভাবেই খেলতে হবে।


মুক্তিযুদ্ধে বীর শহীদদের স্মরণ করতে এমন সুন্দর একটি আয়জনের জন্য বিসিবিকে ধন্যবাদ দিতেও ভুল করেননি বুলবুল। তিনি বলেন, ‘আসলে বিসিবিকে ধন্যবাদ দেয়া উচিত যে, তারা এ ধরনের একটা ম্যাচ সবসময় আয়োজন করে থাকে। এর মধ্য দিয়ে তারা শ্রদ্ধা জানাচ্ছে আমাদের শহীদদের। হয়তো আমরা নামে খেলছি শহীদ মোস্তাক এবং শহীদ জুয়েল ইলেভেনে; কিন্তু আমরা খেলছি সকল শহীদদের জন্য। আসলে শহীদ যারা ক্রিকেটার ছিলেন বা সম্পৃক্ত ছিলেন, তাদের সম্মান জানানোর জন্য সময় এসেছে।’


শহীদদের প্রতি সম্মান জানানোর পাশাপাশি বিজয় দিবসের এই খেলাকে সাবেক ক্রিকেটারদের মিলনমেলা হিসেবেও দেখেন বুলবুল। তার মতে, ‘গত বছর আমরা হেরেছিলাম। এ বছর আমরা প্রতিজ্ঞা করেছি যে, ভালো করবো। তার পেছোনে কথা হচ্ছে, যারা আমাদের বাংলাদেশ এনে দিয়েছে, বাংলাদেশের পতাকা বহন করার সুযোগ করে দিয়েছে- তাদের প্রতি সম্মান জানানোর জন্য। যারা যুদ্ধ করে দেশকে স্বাধীন করেছে তাদের জন্য। আর খেলা তো বড় ব্যাপার না, এ উপলক্ষে আমরা সবাই একসঙ্গে হই। সব পরিবার একসাথে হয় এবং আমরা যে ক্রিকেটারদের সঙ্গে সম্পৃক্ত ছিলাম এবং ক্রিকেটের সাথে সম্পর্কটা সেই অনুভূতিটা শেয়ার করার জন্য। নিজেদের তারই একটা অংশ মনে করি।’