২৩, ফেব্রুয়ারি, ২০১৮, শুক্রবার | | ৭ জমাদিউস সানি ১৪৩৯

পাকুন্দিয়ায় দারিদ্র্যের কাছে হারতে হচ্ছে প্রতিবন্ধী মেধাবী ছাত্র ইউসুফ কে

আপডেট: ১২ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, ১২:১৫ পিএম

পাকুন্দিয়ায় দারিদ্র্যের কাছে হারতে হচ্ছে প্রতিবন্ধী মেধাবী ছাত্র ইউসুফ কে
কিশোরগঞ্জের পাকুন্দিয়ার ১নং জাঙ্গালিয়া ইউনিয়নের ৩নং সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়।  সেই স্কুলের ৫ শ্রেনীর মেধাবী ছাত্র ইউসুফ।  লেখাপড়ায় অনেক ভাল।  তবে প্রতিবন্ধীর বেড়াজালে আটকা সে।  স্বাভাবিক ভাবে কোন কাজ করতে পারে না।  তার চেয়ে বড় বেড়াজাল হচ্ছে তার পরিবারের দারিদ্রতা।  




উপজেলার একই ইউনিয়নের মুনিয়ারিকান্দা গ্রামের আবুল কাসেম এর একমাত্র ছেলে ইউসুফ।  সারাদিন বিভিন্ন বাজার ও বাড়ি থেকে ভিক্ষা করে যেই চাল পায় তা বিক্রি করে চলে তাদের সংসার। 
তার মা হালিমা আক্তার মানুষের বাড়িতে কাজ করেন। বাড়িতে গিয়ে তার বাবাকে পাওয়া যায়নি। 

প্রতিবেদক যাওয়ার খবর শুনে পাশের এক বাড়ি থেকে কাজ ফেলে ছুটে  আসেন তিনি।  

হালিমা আক্তার কেদে কেদে বলেন, আমার একমাত্র ছেলে ছোটথেকেই প্রতিবন্ধী।  সে লেখাপড়ায় অনেক ভাল।  ইউনিয়নের মেম্বার চেয়ারম্যানের কাছে অনেক ঘুড়েছি একটা প্রতিবন্ধী কার্ডের জন্য।  কিন্তু তারা আমাকে পাত্তায় দেয় নি।  এখন সরকার ও সমাজের বিত্তবানরা যদি ইকটু এগিয়ে আসে তবে ইউসুফের শিক্ষায় অনেক এগিয়ে আসবে।  




ইউসুফ অনেকটা চাঞ্চল্য প্রকৃতির।  বিদ্যালয়ে উপস্থিত হয় সবার আগে এবং কোন অনুষ্ঠানের সকল ইভেন্টে অংশগ্রহন করে সে। 




৩নং সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষিকা সুরমা কবির জানান, প্রতিবন্ধীরা সমাজের বোঝা নয়।  আমি স্কুলে যখন জয়েন করেছি তখন সে ২য় শ্রেনীতে পড়ত।  তাকে প্রথমদিন ই বুজতে পারছি সে অনেক ভাল ছাত্র।  সে অন্য ১০ টা ছাত্রের মতো না।  সে অনেক ভাল করবে। 




৩নং সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক রঞ্জন চন্দ্র বর্মন বলেন,স্কুলের যাবতীয় ফি, খাতা-কলম তার জন্য ফ্রি করে দিবো ও আমরা শিক্ষকরা তার পরিবার কে সহযোগীতা করবো।  এর পরও যদি সরকার ও সমাজের বিত্তবানরা এগিয়ে আসে তাহলে সে আরও বিকশিত হবে। 




এই বিষয়ে পাকুন্দিয়া উপজেলা চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম রেনু বলেন,আমি খুব তারাতারিই ইউসুফকে একটি প্রতিবন্ধী কার্ডের ব্যাবস্থা করে দিবো। 




পাকুন্দিয়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার অর্ণপূর্ণা দেবনাথের কাছে একটি লিখিত আবেদন জানালে সরকারি ভাবে তিনি সার্বিক সহযোগীতার ব্যাবস্থা নেওয়ার আশ্বাস দেন।