২৩, ফেব্রুয়ারি, ২০১৮, শুক্রবার | | ৭ জমাদিউস সানি ১৪৩৯

মহাকাশে মারা গেলে লাশের কি হবে?

আপডেট: ০৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, ১১:৫২ পিএম

মহাকাশে মারা গেলে লাশের কি হবে?



মহাকাশ অনুসন্ধান হলো মহাশূন্যের বিভিন্ন নভস্থিত গঠনের চলমান আবিস্কার প্রক্রিয়া।  এটা ক্রমাগত বিবর্ধিত ও বৃদ্ধিমূলক মহাকাশ প্রযুক্তি দ্বারা সম্পাদিত হয়।  মহাকাশের গবেষণা জ্যোতির্বিজ্ঞানীরা দূরবীক্ষণযন্ত্রের সাহায্য করেন, কিন্তু বাস্তব গবেষণা রোবটিক স্পেস প্রব ও মনুষ্য মহাকাশযাত্রা উভয় দ্বারা পরিচালিত হয়। 




কিন্তু মানুষ যদি মহাকাশে মারা তবে কি হবে?




মৃত্যুর পর আমাদের মৃতদেহ পচে-গলে যায় এটা আমরা সবাই জানি,
কিন্তু মহাকাশে অল্প ঘনত্বের বস্তু বিদ্যমান।  অর্থাৎ শূন্য মহাশূন্য পুরোপুরি ফাঁকা নয়।  প্রধানত, অতি অল্প পরিমাণ হাইড্রোজেন প্লাজমা, তড়িৎচুম্বকীয় বিকিরণ, চৌম্বক ক্ষেত্র এবং নিউট্রিনো এই শূন্যে অবস্থান করে।  তাত্ত্বিকভাবে, এতে কৃষ্ণবস্তু এবং কৃষ্ণশক্তি বিদ্যমান।  মহাশূন্য এমন অনেক কিছু আছে যা মানুষ এখনও কল্পনা করতে পারেনি।  তাই পৃথিবীর মত মহাকাশে মৃতদেহ পচে না। 




মহাকাশে লাশটা পচার সুযোগ পাবেনা।  কারণ রেডিয়েশন ও বায়ুশূন্যতায় শরীরের যত ব্যাকটেরিয়া আছে, ওগুলো মারা যাবে বা শীতনিদ্রায় চলে যাবে।  লাশটা যদি পৃথিবীর কক্ষপথের সাথে চলে তবে তা কম চাপের কারণে সিদ্ধ হয়ে মমিতে পরিণত হবে।  অনেকটা ইতালির পম্পেইতে আগ্নেয়গিরির অগ্ন্যুৎপাতের কারণে ধ্বংস হওয়া নগরীতে যেমন লাশ উদ্ধার হয়েছিল তেমন। 




আবার যদি লাশটা পৃথিবীর কক্ষপথ থেকে সৌরজগতের বাইরের দিকে থাকে, যেখানে তাপমাত্রা শূন্যের নীচে, লাশটা জমে শক্ত হয়ে যাবে।  যেহেতু বায়ু শূন্যতায় তাপের পরিবহনও দ্রুত হয়না তাই এরকম হতে কয়েকদিন এমনকি কয়েক সপ্তাহও লেগে যেতে পারে। 




মাউন্ট এভারেস্ট বা আল্পস পর্বতমালার হিমবাহের মাঝে লাশ যেমন বছরের পর বছর ভাল থাকে, তেমনি মহাকাশেও লাশটা কয়েক মিলিয়ন বছর পরেও চেনা যাবে, যতক্ষণ না এটা কোন জ্যোতিষ্কে পতিত হচ্ছে।