১৭, জানুয়ারী, ২০১৮, বুধবার | | ২৯ রবিউস সানি ১৪৩৯

প্রথম শ্রেণীর ক্রিকেটে ২ থেকে ৪ হাজার উইকেট শিকারী ১০ বোলার

জুবায়ের আহমেদ | বার্তাবাজার.কম

আপডেট: ১৪ জানুয়ারী ২০১৮, ০৫:০৭ পিএম

প্রথম শ্রেণীর ক্রিকেটে ২ থেকে ৪ হাজার উইকেট শিকারী ১০ বোলার

আন্তর্জাতিক টেস্টে মুরালিধরণ সর্বোচ্চ ৮০০ উইকেট শিকার করেছেন, এ নিয়েই বিস্ময়ের শেষ নেই, তবে প্রথম শ্রেণীর ক্রিকেটে বেশ কয়েকজ বোলারের আছে হাজার হাজার উইকেট, যা বেশ বিস্ময়কর। বাংলাদেশ দলের বর্তমান বোলিং কোচ কোর্টনি ওয়ালশ আন্তর্জাতিক টেস্টে ৫১৯ উইকেট শিকার করলেও প্রথম শ্রেণীর ক্রিকেটে ১৮০৭ উইকেট শিকার করেছেন তিনি। ২০০০ কিংবা ২০০১ সালে ক্রিকেটকে বিদায় জানিয়েছেন এমন ক্রিকেটারদের মধ্যে ওয়ালসই একমাত্র, যিনি নব্বই দশকের ক্রিকেটার হয়েও প্রথম শ্রেণীর ক্রিকেটে

দেড় হাজারের বেশি উইকেট নিয়েছেন।

সর্বোচ্চ উইকেট শিকারী বোলারের তালিকার সেরা দশ জনকে নিয়েই লেখার চেস্টা করছি। তাদের ম্যাচ ও উইকেট সংখ্যা দেখলে চোখ কপালে উঠবে পাঠকদের।
১। উইলফ্রেড রোডস ১১১০ ম্যাচ খেলে ৪২০৪ উইকেট শিকার করেছেন।
২। ফ্রিম্যান ৫৯২ ম্যাচ খেলে ৩৭৭৬ উইকেট শিকার করেছেন।
৩। চার্লি পার্কার ৬৩৫ ম্যাচ খেলে ৩২৭৮ উইকেট শিকার করেছেন।
৪। জ্যাক হেয়ার্ন ৬৩৯ ম্যাচ খেলে ৩০৬১ উইকেট শিকার করেছেন।
৫। টম গডার্ড ৫৯৩ ম্যাচ খেলে ২৯৭৯ উইকেট শিকার করেছেন।
৬। এএস কেনেডি ৬৭৭ ম্যাচ খেলে ২৮৭৪ উইকেট শিকার করেছেন।
৭। ডের্ক শেকলেটন ৬৪৭ ম্যাচ খেলে ২৮৫৭ উইকেট শিকার করেছেন।
৮। টনি লক ৬৫৪ ম্যাচ খেলে ২৮৪৪ উইকেট শিকার করেছেন।
৯। এফজে টিটমাস ৭৯২ ম্যাচ খেলে ২৮৩০ উইকেট শিকার করেছেন।
১০। গিলবার্ট গ্রেস ৮৩০ ম্যাচ খেলে ২৮০৯ উইকেট শিকার করেছেন।

এছাড়াও আরো অনেক বোলার ২ হাজার উইকেট পেয়েছেন, ১ হাজার থেকে ২ হাজার উইকেট শিকারী বোলারের সংখ্যাও অধিক। নব্বই দশকের ক্রিকেটারদের মধ্যে একমাত্র কোর্টনি ওয়ালসই ১৮০৭ উইকেট শিকার করেছেন।

রোডস সর্বোচ্চ উইকেট শিকারী বোলার হলেও তিনি ম্যাচ খেলেছেন ১১১০টি, অপর দিকে মাত্র ৫৯২টি ম্যাচ খেলেই ৩৭৭৬ উইকেট পেয়েছেন ফ্রিম্যান, যা অবিশ্বাস্য।

গিলবার্ট গ্রেস ২৮০৯ উইকেট শিকারের পাশাপাশি ব্যাট হাতে ৫৪২১১ রান, ১২৫টি সেঞ্চুরী ও ২৫১টি ফিফটি করেছেন, তবে ২২টি আন্তর্জাতিক টেস্টে মাত্র ৯ উইকেট শিকার করেছিলেন তিনি, সেঞ্চুরী করেছেন মাত্র ২টি। প্রথম শ্রেণীর ক্রিকেটের হিসেবে সর্বকালের সেরা অলরাউন্ডার তিনিই।