২০, জানুয়ারী, ২০১৮, শনিবার | | ৩ জমাদিউল আউয়াল ১৪৩৯

সাদা পোশাকের স্বপ্ন সারথীরা

আপডেট: ১১ ডিসেম্বর ২০১৭, ১১:১০ এএম

সাদা পোশাকের স্বপ্ন সারথীরা

এই দ্বিতীয়বারের মতো দেশের টেস্ট ক্রিকেটের ইতিহাসে দ্বিতীয় মেয়াদে কোনো ক্রিকেটার অধিনায়কত্ব পেলেন। যিনি পেয়েছেন তিনিও যেন তেন ক্রিকেটার নন! বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান। বাংলাদেশ দল টেস্ট স্ট্যাটাস পেয়েছিলো ২০০০ সালে।

সেই থেকে আজ পর্যন্ত আটজন অধিনায়ক নেতৃত্ব দিয়েছেন সাদা পোশাকে। শুরুটা হয়েছিলো নাইমুর রহমান দুর্জয়কে (২০০০-২০০১) দিয়ে। তবে তার অধিনায়কত্বের সময়ে কোনো ম্যাচে জয় পায়নি দল। তবে ড্র করার সৌভাগ্য অর্জন করেছিলো।

সাতটি ম্যাচে

নেতৃত্ব দিয়েছিলেন দুর্জয়। এরপরে অধিনায়ক হয়েছিলেন দলের উইকেটরক্ষক ব্যাটসম্যান খালেদ মাসুদ পাইলট (২০০১-২০০৪)। তবে ভালো ফলাফল করতে পারেননি তিনিও। তার সময় ব্যর্থতার চাদরে ঢাকা ছিল দেশের ক্রীড়াঙ্গন।

অবস্থার পরিবর্তন হয়নি খালেদ মাহমুদ সুজনের (২০০৩) সময়ও। খালেদ মাসুদের টানা হারের পরে মাহমুদের নেতৃত্বেও টানা নয়টি টেস্ট হেরেছিল টাইগাররা। এরপরে দ্বিতীয় মেয়াদে প্রথমবারের মতো অধিনায়ক হন খালেদ মাসুদ সুজন।

তবে হারের দুর্ভাগ্য বদলায়নি তার। দুই মেয়াদে ১২ টি ম্যাচে হেরেছিলেন তিনি। পরবর্তী অধিনায়ক হন হাবিবুল বাশার (২০০৪-২০০৭)। কোচ হোয়াইটমোরের সঙ্গে জুটি গড়ে টাইগারদের টেস্ট ক্রিকেটে ভালো কিছু করার চেষ্টা করে গিয়েছেন তিনি।

তার হাত ধরেই ২০০৫ সালে প্রথমবারের মতো টেস্ট জিতে লাল সবুজের দল। ১৮ ম্যাচে নেতৃত্ব দিয়ে চারটি ম্যাচে ড্রও করেছিলেন তিনি। মূলত তার সময়কালে ওয়ানডে ম্যাচের ভিত শক্ত হয়েছিলো। বাশার পরবর্তী অধিনায়ক হন মোহাম্মদ আশারাফুল (২০০৭-২০০৯)।

একটি ম্যাচে ড্র ছাড়া নিজের ১৩ টি ম্যাচে ভালো কোনো ফল দিতে পারেননি তিনি। এরপরে অধিনায়ক হন মাশরাফি বিন মর্তুজা (২০০৯)। মজার ব্যাপার হচ্ছে অধিনায়কত্বের অভিষেক ম্যাচেই ইনজুরি আক্রান্ত হয়ে মাঠের বাইরে চলে যান নড়াইল এক্সপ্রেস।

সেই ম্যাচে অধিনায়কত্ব করেন সাকিব আল হাসান। জয়ও ছিনিয়ে আনেন তিনি। এদিকে সেই ম্যাচের পরে টেস্ট ক্রিকেটকে মনের অজান্তেই বিদায় বলে ফেলেছেন মাশরাফি। তারপরে অধিনায়ক হন সাকিব আল হাসান(২০০৯-২০১১)।

এরপরে অধিনায়ক হন মুশফিকুর রহিম (২০১১-২০১৭)। কাগজে কলমে তিনিই এখন পর্যন্ত দেশসেরা টেস্ট অধিনায়ক। তার অধীনে ৩৪ টি ম্যাচে সাতটি জয় পেয়েছে টাইগাররা। ড্র করেছে নয়টি ম্যাচ।

দেশের মাটিতে ইংল্যান্ড ও অস্ট্রেলিয়া বধ ছাড়াও টাইগাররা লঙ্কায় টেস্ট জিতেছে মুশফিকের নেতৃত্বে। তবে ব্যাটসম্যান হিসেবে তার কাছ থেকে আরও ভালো পারফর্মেন্স পাওয়ার প্রত্যাশায় এবং দক্ষিণ আফ্রিকায় টেস্ট সিরিজের ব্যর্থতার পরে তাকে অধিনায়কের পদ থেকে সরিয়ে দেওয়া হয়।

দ্বিতীয় মেয়াদে অধিনায়ক করা হয় বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসানকে (২০১৭-বর্তমান)। মুশফিকের ইনজুরির কারণে মাঝে অবশ্য একটি ম্যাচে অধিনায়কত্ব করেছেন দেশসেরা ওপেনার তামিম ইকবাল। তবে সেই ম্যাচে জয় পায়নি টাইগাররা।