২৬, এপ্রিল, ২০১৮, বৃহস্পতিবার | | ১০ শা'বান ১৪৩৯

আইপিএলে শীর্ষস্থানের লড়াইয়ে সাকিবের ধারে কাছে নেই রশিদ-নারিন

আপডেট: ১৬ এপ্রিল ২০১৮, ০৬:২২ পিএম

আইপিএলে শীর্ষস্থানের লড়াইয়ে সাকিবের ধারে কাছে নেই রশিদ-নারিন
আইপিএল মানেই চার-ছক্কারি ফুলঝুরি আর গ্যালারি ভর্তি দর্শকদের উল্লাস।  স্বল্প ওভারের টুর্নামেন্টটিতে খুব কম সংখ্যক বোলারই পারেন নিজেকে ফুটিয়ে তুলতে।  বিশ্বের নামি-দামি বোলাররা এখানে অসহায় অখ্যাত ব্যাটসম্যানদের কাছে।  আক্ষরিক অর্থে লীগটির নীতিমালার সারসংক্ষেপ ‘উইকেটের চিন্তা  ঝেড়ে ফেলে ১২০ বলে যত পারো রান তুলো। ’

ক্রিকেট বিশ্লেষেকদের মতে, টি-টোয়েন্টি গায়ের জোরের খেলা।  উড়িয়ে মেরে বাউন্ডারি পার করার খেলা।  মাঠে থাকা ১১ প্লেয়ারকে বোকা
বানিয়ে দর্শকের হাতের তালুকে বল পৌঁছে দেয়ার খেলা।  বলে বলে চিয়ার লিডারদের হাত-পা দুলিয়ে উচ্ছ্বাসে ভরা ড্যান্সের খেলা।  বিশ্বের বিখ্যাত বোলারকে মুখ লুকিয়ে রাখার মতো লজ্জা দেয়ার খেলা। 


কিন্তু এতসবের মাঝেও কিছু বোলার থাকেন ‘দূর্বোধ্য’।  যাদের বল মোকাবেলায় মাথার ঘাম পায়ে ফেলতে হয় ব্যাটসম্যানদের।  তারা মুর্হুতেই ‘ম্লান’ করে দেন অশান্ত-উচ্ছ্বাসে ভরা স্টেডিয়ামকে।  মাত্র একটি বলে করতালিতে মুখিয়ে থাকা গোটা স্টেডিয়ামে স্তব্ধ করে দেয়ার ক্ষমতা রাখেন তারা।  আর সেই কাজটি করে যাচ্ছে আফগানিস্তানের তরুণ লেগি রশিদ ও বাংলাদেশের সাকিবের মতো বেশ কয়েকজন বোলার। 


এবারের আইপিএলে বোলাদের তালিকায় শীর্ষে মুম্বাই ইন্ডিয়ান্সের তরুণ মায়াঙ্ক মার্কান্দে।  তিন ম্যাচে মোটে সাতটি উইকেট শিকার করেছেন তিনি।  আর তৃতীয়তে টাইগার অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান। তিন ম্যাচে ৭৮ রানের বিনিময়ে পাঁচ উইকেট শিকার করেছেন হায়দরাবাদের এই ক্রিকেটার।  লক্ষ্যণীয় ব্যাপার হচ্ছে শুধু বোলিং নয়, ব্যাটিংয়েও সমান তালে জ্বলছে বাংলাদেশি এই অলরাউন্ডার।  অন্যদিকে দ্বিতীয়তে ক্রিস ওকস ও চারে কাউল।  ওকস সাত উইকেট আর কাউল পাঁচ উইকেট শিকার করেছেন। 


তালিকায় দেখে নিন বাদ বাকি ১০ বোলারের তালিকা। 

প্রসঙ্গত, চলমান আইপিএল ইতোমধ্যে ১১টি ম্যাচ অনুষ্ঠিত হয়েছে।  যাতে আটটি দলই তিনটি করে ম্যাচ খেলেছে।  যার তিন ম্যাচের সবকটিতে জিতে শীর্ষে অরেঞ্জ আর্মির দল হায়দরাবাদ।  আর তলানীতে ডিফেন্ডিং চ্যম্পিয়ন মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স।