২১, এপ্রিল, ২০১৮, শনিবার | | ৫ শা'বান ১৪৩৯

ফুটবলকে ভালোবাসলে নেইমারকে ভালোবাসতেই হবে

আপডেট: ১৮ ডিসেম্বর ২০১৭, ১২:৫১ পিএম

ফুটবলকে ভালোবাসলে নেইমারকে ভালোবাসতেই হবে
গত নভেম্বরে কথাটা বলেছিলেন আর্সেন ওয়েঙ্গার।  ‘ফুটবল ভালোবাসলে তাকে মেসিকেও ভালোবাসতে হবে। ’ কথাটা লিওনেল মেসির জন্য অনেক বড়।  যাঁরা মেসির সমর্থক বা ভক্ত নন, তাঁদেরও মুগ্ধ করার ক্ষমতা মেসির আছে, এমনটাই বলেছিলেন আর্সেনাল কোচ।  সেই কথাটা এবার একটু ঘুরিয়ে বললেন উনাই এমেরি।  তাঁর প্রশংসা এবার নেইমারের জন্য।  পিএসজি কোচ বলেছেন, নেইমার যখন তাঁর সেরাটা খেলেন, সেটি ফুটবলকে ভালোবাসে এমন সবার জন্যই অনেক বড় পাওয়া। 

কাল নেইমারের জোড়া গোলে ফরাসি লিগে
রেনেঁকে ৪-১ গোলে উড়িয়ে দিয়েছে পিএসজি।  লিগে ১৩ ম্যাচে ১১ গোল করলেন এই ব্রাজিলিয়ান।  সব মিলিয়ে ক্লাবের হয়ে এই মৌসুমে ১৯ ম্যাচে ১৭ গোল।  এর মধ্যে ৬ গোল করেছেন চ্যাম্পিয়নস লিগে।  কাল পিএসজির হয়ে গোল পেয়েছেন এডিনসন কাভানি আর কিলিয়ান এমবাপ্পেও। 

পিএসজির হয়ে গত দুই ম্যাচে খেলেননি নেইমার।  নিষেধাজ্ঞার কারণে লিলের বিপক্ষে ম্যাচটি খেলা হয়নি।  বুধবার লিগ কাপের ম্যাচেও ছিলেন না, পারিবারিক কাজে উড়ে গিয়েছিলেন ব্রাজিল।  কিন্তু কাল একাদশে ফিরেই নেইমার প্রায় সঙ্গে সঙ্গে ভূমিকা রাখলেন।  ম্যাচের ৪ মিনিটে গোল করেছেন, ১৭ মিনিটে এমবাপ্পেকে দিয়ে গোল করিয়েছেন। 

৫৩ মিনিটে রেনেঁ ২-১ করে ফেলেছিল।  ৭৫ মিনিটে কাভানি ব্যবধান বাড়িয়ে নেওয়ার পরের মিনিটেই নেইমার ‘হালি’ ‌পূর্ণ করেন পিএসজির।  শেষের দিকে পেনাল্টি পেলেও তা কাজে লাগাতে পারেনি রেনেঁ।  অবশ্য নেইমার ম্যাচ শেষ করে দিয়েছেন আগেই। 

নেইমারে মুগ্ধ এমেরি বলেছেন, ‘আপনি যখন নেইমারের মতো খেলোয়াড়কে দেখবেন, যেসব সমর্থক আজ এখানে মাঠে ছিল বা টিভিতে দেখেছে; তারা হয়তো পিএসজিকে সমর্থন করে (কিংবা করে না); কিন্তু আপনি যদি ফুটবল পছন্দ করেন, নেইমারের মতো খেলোয়াড়কে দেখলে আপনার ভালো লাগবেই। ’

শুধু গোল করাতেই নয়, নেইমার আলো ছড়াচ্ছেন গোল করিয়েও।  কেবল লিগে যেমন আটটি গোল করিয়েছেন।  গোলের খেলা ফুটবলে বেশির ভাগ মানুষ গোলটাই দেখে।  তবে এমেরি মনে করেন, শুধু গোলটাই নেইমারের শেষ কথা নয়, ‘আজ (কাল) সন্ধ্যায় ও ওর প্রতিভার পুরো ঝলকটাই দেখিয়েছে।  কৌশলগত দিক দিয়ে আর প্রতিপক্ষের রক্ষণে ত্রাস ছড়ানোতে ও দুর্দান্ত ছিল।  আসলে আমাদের তিন ফরোয়ার্ডই গোল করেছে, পাশাপাশি অন্যকে দিয়ে করিয়েছেও।  এটাই আমাদের জন্য বেশি ইতিবাচক।