১৬, জুলাই, ২০১৮, সোমবার | | ৩ জ্বিলকদ ১৪৩৯



  • পুলিশ কমিশনারের মাথায় পিস্তল ঠেকালেন মুরাদ

    বরিশাল সিটি নির্বাচনে দলীয় প্রার্থীর পক্ষে প্রচারণায় এসে পুলিশ কমিশনারের ওপর চড়াও হলেন ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগ-দক্ষিণের নেতা শাহ আলম মুরাদ। একটি যাত্রীবাহী লঞ্চের কেবিনে তিনি প্রকাশ্যে অস্ত্র উঁচিয়ে সিনিয়র সহকারী কমিশনার মর্যাদার এক কর্মকর্তাসহ তিন পুলিশ সদস্যকে পিটিয়েছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। এমনকি ওই সময় পুলিশ কমিশনার (ভারপ্রাপ্ত) মাহফুজুর রহমান ছুটে গেলে তাকেও শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত করেন।

    গত শনিবার (১৪ জুলাই) সন্ধ্যায় বরিশাল লঞ্চ টার্মিনালের এই ঘটনায় বরিশাল পুলিশ প্রশাসনে তোলপাড় শুরু হয়। ঘটনার প্রায় ২৪ ঘণ্টা পরে বরিশাল কোতোয়ালি মডেল থানা পুলিশের এসআই নিজাম মাহমুদ ফকির বাদী হয়ে একটি মামলা দায়ের করেন। মামলায় ১ জনের নাম উল্লেখ করে ২০ থেকে ২৫ জনকে অজ্ঞাত আসামি করা হয়।

    জানা গেছে, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শাহ আলম মুরাদ সুন্দরবন-১১ লঞ্চের ভিআইপি কেবিনের সম্মুখে অন্তত অর্ধশত নেতাকর্মী নিয়ে অবস্থান করছিলেন। প্রায় একই সময় ঢাকায় যাওয়ার উদ্দেশে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের সচিব ফয়েজ আহম্মেদ ও প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত সচিব সাজ্জাদুল হাসান লঞ্চঘাটে যান। সরকারি এই কর্মকর্তাকে প্রটোকল দিতে সেখানে গিয়েছিলেন ডিআইজি মো. শফিকুল ইসলাম ও পুলিশ কমিশনার (ভারপ্রাপ্ত) মাহফুজুর রহমান। কিন্তু ঘটনাচক্রে সচিবকে পিছু ফেলে পুলিশের এই দুই কর্মকর্তা চলে যান লঞ্চের ভিআইপি কেবিনের লাউঞ্জে। সেখানে গিয়ে দেখতে পান অর্ধশতাধিক লোকের মধ্যে বসেছিলেন আওয়ামী লীগ নেতা শাহ আলম মুরাদ। এই নেতার সঙ্গে থাকা অপরাপর বেশ কয়েক ব্যক্তি পিস্তল হাতে নিয়ে নানা অঙ্গভঙ্গি করছিলেন। সেই দৃশ্য দেখে কমিশনারের নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা সিনিয়র সহকারী পুলিশ কমিশনার জাহিদুল ইসলাম ছুটে গিয়ে অস্ত্র প্রদর্শনের বিষয়টি জিজ্ঞাসা করেন এবং পিস্তলের বৈধতা যাচাইয়ের জন্য কাগজপত্র দেখতে চান। কিন্তু আওয়ামী লীগ নেতা শাহ আলম মুরাদ ও তার সঙ্গে থাকা লোকজন পুলিশকে কেয়ার করেনি।

    এমন পরিস্থিতিতে পুলিশ কমিশনারের দেহরক্ষী ছুটে গিয়ে তাদের দ্রুত স্থান ত্যাগের অনুরোধ করেন। এই সময়ে তুমুল বাকবিতণ্ডার একপর্যায়ে শাহ আলম মুরাদের সঙ্গে থাকা সৈকত ইমরানসহ ২০ থেকে ২৫ জন একত্রিত হয়ে সহকারী জাহিদুল ইসলাম ও দেহরক্ষী হাসিবকে এলোপাতাড়ি পিটুনি দেয়। এমন পরিস্থিতিতে পুলিশ কমিশনার চেয়েছিলেন সকলকে বের করে দিয়ে পরিবেশ নিয়ন্ত্রণে নেয়ার। কিন্তু ক্ষুব্ধ শাহ আলম ও তার বাহিনী পুলিশ কমিশনারকে চারদিক থেকে ঘিরে ফেলে। একপর্যায়ে শাহ আলম কমিশনারের মাথায় পিস্তল ধরেন।

    এমনকি কমিশনারকে এই সময়ে লাঞ্ছিত করেন তার সঙ্গে থাকা ইমরান সৈকতসহ বেশ কয়েকজন। এই চিত্র ক্যামেরায় ধারণ করতে গেলে কমিশনারের সঙ্গী ওবায়েদকেও মারধর করে। একপর্যায়ে তার সঙ্গে থাকা ক্যামেরাটি ছিনিয়ে নিয়ে যায় শাহ আলমের লোকজন। পরিস্থিতি বেগতিক দেখে পুলিশ কমিশনার দ্রুত ফোন করে ঘটনাস্থলে আরো পুলিশ ডেকে নেন। কিন্তু বরিশাল পুলিশ চাইছিল না সরকারের দুইজন সচিবের উপস্থিতিতে এই ধরনের বিষয় প্রকাশ্যে আসুক।

    যে কারণে ঘটনার পর সকলকে গ্রেফতারের প্রস্তুতি নিতে লঞ্চটি থামিয়ে রাখা হলেও পরবর্তীতে ছেড়ে দেয়া হয়।

    এ ঘটনায় তোলপাড় শুরু হয় পুলিশ প্রশাসনে। তীব্র ক্ষোভ ছড়িয়ে পড়ে। ঘটনার প্রায় ২৪ ঘণ্টা অতিবাহিত হওয়ার পরে বরিশাল কোতোয়ালি মডেল থানায় সরকারি কাজে বাধা, হত্যার উদ্দেশ্যে পুলিশ সদস্যদের মারপিট ও গুরুতর আহত করার দায়ে এসআই নিজাম মাহমুদ ফকির বাদী হয়ে একটি মামলা দায়ের করেন। যার নম্বর ৩৩/১৮। মামলাটির তদন্তের দায়িত্ব দেয়া হয় কোতোয়ালি মডেল থানার এসআই মহিউদ্দিন মাহিকে।

  • কটন মিলের শ্রমিককে গণধর্ষণ, গ্রেপ্তার ৪

    হবিগঞ্জের মাধবপুর উপজেলার নোয়াপাড়া এক কটন মিলের এক কর্মী গণধর্ষণের শিকার হয়েছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। রবিবার রাত ১১টার দিকে উপজেলার আন্দিউড়া ইউনিয়নের হাড়িয়া হাওরে এ ঘটনা ঘটে।

    পুলিশ রাতে ওই নারী শ্রমিককে উদ্ধার করে মাধবপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে।

    ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে পুলিশ উপজেলার মীরনগর গ্রামে অভিযান চালিয়ে চারজনকে গ্রেপ্তার করে। গ্রেপ্তাররা হলেন- মীরনগর গ্রামের সাদ্দাম হোসেন, শাহ আলম, নুর রহমান এবং পূর্ব মাধবপুর গ্রামের এমরান মিয়া।

    এ ঘটনায় ধর্ষিতার মা হালিমা খাতুন বাদী হয়ে সাতজনের নাম উল্লেখ করে অপহরণ ও গণধর্ষণের মামলা করেছেন।

    পুলিশ ও বাদী হালিমা বেগম জানান, ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার নাসিরনগর উপজেলার পূর্বভাগ গ্রামের হতদরিদ্র এই মেয়েটি বেশ কিছুদিন আগে জীবিকার তাগিদে নোয়াপাড়া সায়হাম কটন মিলে কাজ নেয়। মিলে আসা-যাওয়ার পথে পূর্ব মাধবপুর গ্রামের এমরান মিয়ার সঙ্গে তার পরিচয় ঘটে। এমরান মিয়ার সঙ্গে প্রায়ই ওই নারী শ্রমিকের মোবাইল ফোনে কথাবার্তা হত। এক পর্যায়ে ওই নারী শ্রমিকের সঙ্গে এমরানের প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠে। ১৫ জুলাই রাত ৮টায় এমরান মিয়া ফোন করে ওই শ্রমিককে নোয়াপাড়া নিয়ে আসে। নোয়াপাড়া থেকে একটি সিএনজিযোগে মীরনগর গ্রামে একটি বাড়িতে রাখে। সেখান থেকে কৌশলে এমরান অন্যান্য বন্ধুদের ফোনে যোগাযোগ করে হাড়িয়া হাওরে অপহরণ করে নিয়ে যায়। সেখানে তাকে পালাক্রমে সাত যুবক ধর্ষণ করে তাকে মাঠে রেখে পালিয়ে যায়। পরে সে কোন রকমে ঢাকা-সিলেট মহাসড়কে উঠলে মাধবপুর থানার টহল পুলিশের নজরে পড়ে। পরে মীরনগর গ্রামে অভিযান চালিয়ে ওই চারজনকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

    হবিগঞ্জ সদর সার্কেলের সহকারী পুলিশ সুপার নাজিম উদ্দিন বলেন, ওই নারী শ্রমিককে অপহরণ করে ধর্ষণ করা হয়েছে। ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে পুলিশ চারজনকে গ্রেপ্তার করেছে।

    মাধবপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভিকটিমকে চিকিৎসা শেষে পূর্ণাঙ্গ মেডিকেল পরীক্ষার জন্য হবিগঞ্জ সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

  • অক্টোপাসের হাত’ ভেঙে দেয়া হয়েছে : এরদোগান

    তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তায়েপ এরদোগানে বলেছেন, তার দেশ অক্টোপাসের হাত ভেঙে দিয়েছে। অক্টোপাস বলতে তিনি মূলত আমেরিকায় নির্বাসনে থাকা ফতেউল্লাহ গুলেনকে বুঝিয়েছেন।

    তুরস্কে ব্যর্থ সেনা অভ্যুত্থানের দ্বিতীয় বার্ষিকীতে বিশাল সমাবেশে দেয়া বক্তব্যে এরদোগান এসব কথা বলেন। ইস্তাম্বুল ব্রিজে অনুষ্ঠিত এ সমাবেশে লাখ লাখ মানুষ যোগ দেয়। ২০১৬ সালের ১৫ জুলাই তুরস্কের একদল সেনা অভ্যুত্থানের ব্যর্থ চেষ্টা চালায়। সে সময় এরদোগান অবকাশযাপনে ছিলেন কিন্তু জনগণ সে অভ্যুত্থান ব্যর্থ করে দেয়। ওই ঘটনায় ২৯০ ব্যক্তি নিহত হয়েছিল।

    এ ঘটনার জন্য আমেরিকায় নির্বাসনে থাকা গুলেনকে দায়ী করে আসছেন এরদোগান। এছাড়া, গুলেনকে ফেরত দেয়ার জন্য এরদোগান আমেরিকার কাছে অনুরোধ করেছে। কিন্তু গুলেন সব সময় অভ্যুত্থান প্রচেষ্টায় জড়িত থাকার কথা অস্বীকার করে আসছেন। আমেরিকাও গুলেনকে ফেরত দেয়নি।

  • জিম্বাবুয়েকে উড়িয়ে দিল পাকিস্তান

    সোমবার (১৬ জুলাই) পাঁচ ম্যাচ সিরিজের দ্বিতীয় ওয়ানডেতে বাংলাদেশ সময় দুপুর ১:১৫-তে মুখোমুখি হয় পাকিস্তান-জিম্বাবুয়ে।

    এই ম্যাচটিতেও পাকিস্তানি বোলারদের বিপক্ষে বলার মতো কোন প্রতিরোধ গড়ে তুলতে পারেনি হ্যামিলটন মাসাকাদাজার নেতৃত্বাধীন দলটি। খেলতে পারেনি নির্ধারিত ৫০ ওভারও। ফলে ৪৯ ওভারে ২ বলে সবকটি উইকেট হারিয়ে সরফরাজদের লক্ষ্য দেয় ১৯৫ রানের। জবাবে হেসে-খেলে জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে সরফরাজ বাহিনী। ১১৭ রান করে অপরাজিত থাকেন ফখর জামান।

  • পোষাকের কারণেও হতে পারে ক্যান্সার, সাবধান!

    ক্যান্সার বা কর্কটরোগ অনিয়ন্ত্রিত কোষ বিভাজন সংক্রান্ত রোগসমূহের সমষ্টি। এখনও পর্যন্ত এই রোগে মৃত্যুর হার অনেক বেশি। কারণ প্রাথমিক অবস্থায় ক্যান্সার রোগ সহজে ধরা পড়ে না, ফলে শেষ পর্যায়ে গিয়ে ভালো কোন চিকিৎসা দেয়াও সম্ভব হয় না। বাস্তবিক অর্থে এখনও পর্যন্ত ক্যান্সারের চিকিৎসায় পুরোপুরি কার্যকর কোনও ওষুধ আবিষ্কৃত হয় নি। ২০০ প্রকারেরও বেশি ক্যান্সার রয়েছে। প্রত্যেক ক্যান্সারই আলাদা আলাদা এবং এদের চিকিৎসা পদ্ধতিও আলাদা।

    বর্তমানে ক্যান্সার নিয়ে প্রচুর গবেষণা হচ্ছে এবং এ সম্পর্কে নতুন নতুন অনেক তথ্য পাওয়া যাচ্ছে। বলা হচ্ছে, পোষাকের কারণেও হতে পারে ক্যান্সার। আসুন জেনে নেই যেসব পোষাকের কারণে ক্যান্সার হতে পারে-

    পলিয়েস্টার: পরিয়েস্টার হচ্ছে সবচেয়ে ক্ষতিকারক ফেব্রিক। ডাইহাইড্রিক অ্যালকোহল ও টেরেপথ্যালিত অ্যাসিডের সিন্থেটিক পলিমার থেকে এটি তৈরি হয়। পলিয়েস্টার ত্বকের সংস্পর্শে এলে টিউমার ও ফুসফুসের ক্যান্সার ছাড়াও বিভিন্ন জায়গায় ক্যান্সার হতে পারে।

    রেয়ন: রিসাইকেলড উল পাল্প থেকে তৈরি হয় রেয়ন। এটি বেশিদিন টেকসই হয়। বার বার কাচলেও নষ্ট হয় না। প্রস্তুতকারকরা এর মধ্যে কার্বন ডিসালফাইড, সালফিউরিক অ্যাসিড, ক্লোরিন ও কস্টিক সোডার মতো পদার্থ মেশান। তবে এ সব উপাদান শরীরে লাগলে অনিদ্রা, গা গোলানো, মাথা ব্যথা ও বমির মতো সমস্যা হতে পারে।

    অ্যাক্রলিক: এতে থাকে পলিক্রিলোনাইট্রিলস। যা থেকে বিভিন্ন ধরনের ক্যান্সার হতে পারে। তথ্যসূত্র: ইন্টারনেট।

  • নির্বাচন মানে অপরাধী মুক্তির দর-কষাকষি নয়

    তথ্যমন্ত্রী ও জাসদ সভাপতি হাসানুল হক ইনু বলেছেন, ‘নির্বাচন অপরাধীর মুক্তির দর-কষাকষির বিষয় না। অপরাধীর মুক্তির বিষয়কে উছিলা করে নির্বাচন বানচালের সকল ষড়যন্ত্র রুখে দাঁড়াতে হবে। সেইসাথে শান্তি ও উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে যুদ্ধাপরাধী ও জঙ্গি-পৃষ্ঠপোষক বিএনপি-জামায়াতকে রাজনীতি ও নির্বাচনের বাইরে রাখতে হবে।’

    সোমবার (১৬ জুলাই) বিকেলে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে জাসদ কার্যালয়ের শহীদ কর্নেল তাহের মিলনায়তনে বীর মুক্তিযোদ্ধা ও জাসদের অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা সদস্য ও সাবেক সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ জাফর সাজ্জাদ খিচ্চুর ৮ম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল-জাসদ আয়োজিত স্মরণসভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি একথা বলেন।

    হাসানুল হক ইনু প্রয়াত নেতা সৈয়দ জাফরের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা জানিয়ে বলেন, ‘সৈয়দ জাফর সাজ্জাদ সংগ্রামী, সৎ ও নির্লোভ রাজনৈতিক জীবনের অধিকারী ছিলেন। তিনি সমাজ পরিবর্তনের লক্ষ্যকে জীবনের লক্ষ্য বেছে নিয়েই দল ও রাজনীতি কেন্দ্রিক জীবন যাপন করতেন।’

    ‘সৈয়দ জাফর সাজ্জাদ খিচ্চু মুক্তিযুদ্ধের প্রশ্নে, যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের প্রশ্নে আপোসহীন ছিলেন বলেই তিনি বিএনপি-জামাত-যুদ্ধাপরাধীদের ক্ষমতার বাইরে রাখার রাজনৈতিক কৌশল প্রয়োগে অগ্রণী ভূমিকা পালন করেছেন’, বলেন তথ্যমন্ত্রী।

    জাসদের স্থায়ী কমিটির সদস্য মীর হোসাইন আখতারের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এ স্মরণসভায় জাসদ ও অঙ্গ-সংগঠনের নেতাদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন দলের সাধারণ সম্পাদক শিরীন আখতার এমপি, কার্যকরী সভাপতি এড. রবিউল আলম, স্থায়ী কমিটির সদস্য এড. হাবিবুর রহমান শওকত, নুরুল আখতার, নাদের চৌধুরী, সহ-সভাপতি এড. শাহ জিকরুল আহমেদ, সফি উদ্দিন মোল্লা, শহীদুল ইসলাম, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুর রহমান চুন্নু, শ্রমিক জোট সাধারণ সম্পাদক নইমুল আহসান জুয়েল, ছাত্রলীগ সভাপতি আহসান হাবীব শামীম প্রমূখ।

  • জালভোট-ব্যালট ছিনতাইয়ের ঘটনা বরিশালে দেখতে চাই না

    সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষভাবে সিটি নির্বাচন করতে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে জিরো টলারেন্স নীতি অনুসরণের নির্দেশ দিয়েছেন নির্বাচন কমিশনার মাহবুব তালুকদার।

    বরিশাল সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন উপলক্ষে নির্বাচন সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা এবং গঠিত টিম সদস্যদের সঙ্গে মতবিনিময় সভায় এসব কথা বলেন নির্বাচন কমিশনার।

    সোমবার দুপুর ১২টার দিকে বরিশাল সার্কিট হাউজে অনুষ্ঠিত সভায় তিনি বলেন, গণতন্ত্রের পথ হচ্ছে নির্বাচন। নির্বাচন প্রশ্নবিদ্ধ হলে গণতন্ত্রও প্রশ্নবিদ্ধ হয়। এ জন্য গণতান্ত্রিক দেশে সুষ্ঠু ভোট হওয়া প্রয়োজন। ভোটাররা যাতে তাদের পছন্দের প্রার্থীকে ভোট দিয়ে নিরাপদে বাড়ি ফিরতে পারেন এ জন্য তাদের নিরাপত্তা দিতে হবে। ভোট কেন্দ্রে কারও অবাঞ্ছিত প্রবেশ, জালভোট ও ব্যালট ছিনতাইয়ের মতো কোনো ঘটনা বরিশালে দেখতে চাই না।

    সভায় উপস্থিত ছিলেন- বরিশাল বিভাগের অতিরিক্ত কমিশনার নুরুল অালম, মহানগর পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কমিশনার মাহফুজুর রহমান, র্যাব-৮ এর সিইও আতিকা ইসলাম, জেলা প্রশাসক হাবিবুরব রহমান, আঞ্চলিক নির্বাচন কর্মকর্তা মুজিবুর রহমানসহ প্রশাসনের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা এবং নির্বাচন কর্মকর্তারা।

  • রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে সহায়তার আশ্বাস আইওএম প্রধানের

    আন্তর্জাতিক অভিবাসন সংস্থার (আইওএম) মহাপরিচালক উইলিয়াম লেসি সুইং পুনরায় আশ্বস্থ করে বলেছেন, বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়া রোহিঙ্গা শরণার্থীদের মিয়ানমারে দ্রুত প্রত্যাবাসন প্রক্রিয়ায় তার সংস্থা সব রকম সহায়তা করবে।

    সোমবার প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ে আইওএম মহাপরিচালকের নেতৃত্বে ছয় সদস্যের একটি প্রতিনিধি দল প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেন।

    পরে প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইহসানুল করিম সাংবাদিকদের জানান, উইলিয়াম লেসি সুইং রোহিঙ্গা সমস্যাকে বাংলাদেশের জন্য একটি বিরাট চ্যালেঞ্জ হিসেবে বর্ণনা করেছেন।

    আইওএম মহাপরিচালক বলেন, তারা রোহিঙ্গা শরণার্থীদের নিজ এলাকায় প্রত্যাবাসনের লক্ষ্যে বাংলাদেশকে পূর্ণ সহযোগিতা করবে। কারণ, এক্ষেত্রে তাদের অনেক অভিজ্ঞতা রয়েছে।

    এ সময় প্রধানমন্ত্রী বলেন, রোহিঙ্গা শরণার্থীদের জন্য বাংলাদেশের পক্ষে যা যা করা সম্ভব তা করা হবে। তাদেরকে অন্যত্র স্থানান্তর করে উন্নত আবাসন ও অন্যান্য সুবিধাদি নিশ্চিত করতে কাজ চলছে বলে জানান শেখ হাসিনা।

    বিশেষ করে বন্যা ও ঘুর্ণিঝড়ের বিষয়টি বিবেচনায় রেখে স্বাস্থ্য ঝুঁকি মোকাবেলা এবং শিক্ষার সুযোগ নিশ্চিত করতে সরকার ব্যবস্থা নিয়েছে, বলেন তিনি।

    শরণার্থী প্রত্যাবাসন প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী মধ্যপ্রাচ্যে আটকে পড়া বাংলাদেশের নাগরিকদের দেশে ফিরিয়ে আনতে আইওএম’র সহযোগিতার জন্য ধন্যবাদ জানান।

    আইওএম’র মহাপরিচালকের সিনিয়র উপদেষ্টা ওয়েন লি জেস, আইওএম’র শরণার্থী সেল ইউনিট’র প্রধান পেপি সিদ্দিকসহ সংস্থার প্রতিনিধিরা বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন।

    পরে জাতিসংঘ মহাসচিবের মিয়ানমার বিষয়ক বিশেষ দূত ক্রিস্টিন শ্র্যান বার্গেনার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন।

    প্রধানমন্ত্রী এ সময় মিয়ানমার যাতে তার নাগরিকদের দেশে ফেরত নিয়ে যায় সেজন্য জাতিসংঘের প্রচেষ্টা অব্যাহত রাখার আহ্বান জানান।

    তিনি বলেন, রোহিঙ্গা ইস্যুতে ভারত, চীন, লাওস, থাইল্যান্ডসহ মিয়ানমারসহ প্রতিবেশী দেশগুলোর সঙ্গেও বাংলাদেশ আলোচনা করেছে এবং এক্ষেত্রে আন্তর্জাতিক সমর্থনের জন্য তিনি ধন্যবাদ জানান।

    এ প্রসঙ্গে শেখ হাসিনা উল্লেখ করেন, রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন কার্যক্রমে মিয়ানমার ইউএনএইসিআরের অংশগ্রহণে সম্মত হয়েছে।

    ভারত, চীন এমনকি জাপান রোহিঙ্গাদের জন্য মিয়ানমারে বাসস্থান তৈরি করছে বলে জানান প্রধানমন্ত্রী।

    জাতিসংঘ মহাসচিবের মিয়ানমার বিষয়ক বিশেষ দূত, রোহিঙ্গা সমস্যা সমাধানে জাতিসংঘের সাবেক মহাসচিব কফি আনান কমিশন যে সুপারিশ করেছিল তা বাস্তবায়নের ওপর জোর দেন।

    জাতিসংঘের পক্ষে রাজনীতি বিষয়ক জ্যেষ্ঠ উপদেষ্টা শিন উমেজু, ইউএনএইচসিআর’র আঞ্চলিক সমন্বয়ক জেমস লিনচ, আইওএম ডেপুটি চিফ অব মিশন আব্দুস সাত্তার ইসোয়েভ এবং ইউএনএসজি’র আবাসিক প্রতিনিধির কার্যালয়ের মানবতা বিষয়ক উপদেষ্টা লেন ক্রাইনিক উপস্থিত ছিলেন।

  • ইউএনওকে লাঞ্ছিত করে ফেসবুকে লাইভ, ইউপি চেয়ারম্যান সাময়িক বরখাস্ত

    সুনামগঞ্জের ছাতকে সিংচাপইড় ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সাহাব উদ্দিন মোহাম্মদ সাহেলকে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করা হয়েছে।

    হাওরের বোরো ফসলরক্ষা কাজের অতিরিক্ত বিল আদায়ে ছাতক উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও পাউবোর উপসহকারী প্রকৌশলীকে অবরুদ্ধ রেখে লাঞ্ছিত করা হয়।

    এরপর সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে প্রচার করার ঘটনা তদন্তে প্রমাণিত হওয়ায় স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় থেকে তাকে বরখাস্ত করা হয়।

    স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের স্থানীয় সরকার বিভাগের ইপ-১ অধিশাখা থেকে প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়েছে। ১৫ জুলাই মন্ত্রণালয়ের উপসচিব মো. ইখতেখার আহমেদ চৌধুরী স্বাক্ষরিত প্রজ্ঞাপন জারি হয়। এ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন সুনামগঞ্জের জেলা প্রশাসক মো. সাবিরুল ইসলাম।

    জানা যায়, গত ১৭ মে ছাতক উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার অফিসকক্ষে ঢুকে সিংচাপইড় ইউপি চেয়ারম্যান সাহাব উদ্দিন মোহাম্মদ সাহেল স্থানীয় চাউলীর হাওরের বাঁধের অতিরিক্ত বিল দাবি করেন। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নাছির উল্লাহ খান ও পাউবোর উপসহকারী প্রকৌশলী সাহাদাত হোসেনকে অবরুদ্ধ করে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করেন ও লাঞ্ছিত করেন তিনি।

    পরে পুরো ঘটনাটি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে ৫০ মিনিট লাইভ প্রচারও করেন তিনি। ঘটনাটি ফেসবুকে লাইভ প্রচার হওয়ায় জেলাজুড়েই ব্যাপক তোলপাড় সৃষ্টি হয়। এ ঘটনায় সুনামগঞ্জ জেলা প্রশাসন থেকে তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়। তদন্ত কমিটি সরেজমিনে ঘটনার তদন্ত করে ঘটনার সত্যতা প্রমাণ পান।

    এদিকে ইউপি চেয়ারম্যান সাহেলের বিরুদ্ধে ছাতক থানায় দ্রুত বিচার আইনে একটি মামলা রয়েছে। পুলিশ সেই মামলার অভিযোগপত্র আদালতে দাখিল করেছে। এছাড়াও ইউপি চেয়ারম্যান সাহেলের বিরুদ্ধে পুলিশ অ্যাসল্টসহ আরও দু’টি মামলা চলমান রয়েছে।

    সিংচাপইড় ইউপি চেয়ারম্যান সাহাব উদ্দিন মোহাম্মদ সাহেলকে মন্ত্রণালয় থেকে সাময়িক বরখাস্তের পাশাপাশি কারণ দর্শানোর নোটিশ দেয়া হয়েছে। নোটিশে বলা হয়েছে কেন ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানের পদ থেকে চূড়ান্তভাবে অপসরাণ করা হবে না তার জবাব পত্রপ্রাপ্তির ১০ দিনের মধ্যে জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে মন্ত্রণালয়ের স্থানীয় সরকার বিভাগের প্রেরণ করার নির্দেশ প্রদান করা হয়।

    সাময়িক বরখাস্ত ও মন্ত্রণালয়ের কারণ দর্শানোর নোটিশ পাওয়ার বিষয়ে কথা বলতে চাইলে ফোন রিসিভ করেননি বরখাস্তকৃত ইউপি চেয়ারম্যান সাহাব উদ্দিন মোহাম্মদ সাহেল।

  • ৪ বছর পর তোলা হলো সাংবাদিক আলতাফের লাশ

    বাংলাদেশ টেলিভিশনের (বিটিভি) সিনিয়র ক্যামেরাম্যান আলতাফ হোসেনের লাশ দাফনের ৪ বছর ৩ মাস পর কবর থেকে উত্তোলন করা হয়েছে।

    আদালতের নির্দেশে ঝালকাঠির রাজাপুর উপজেলার কানুদাসকাঠি পারিবারিক গোরস্থান থেকে তার লাশ উত্তোলন করা হয়। সোমবার দুপুর ২টায় জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. সাখাওয়াত হোসেনের নেতৃত্বে লাশ উত্তোলন করা হয়।

    এ সময় সময় উপস্থিত ছিলেন- রাজাপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসক মো. আসাদুজ্জামান, অফিসার ইনচার্জ (প্রশাসন) মো. শামসুল আরেফিন ও ওসি (তদন্ত) হারুন অর রশিদ।

    আলতাফ হোসেনের স্ত্রী ছবি আক্তার সাবিনা বাদী হয়ে হত্যাকাণ্ডের ৩ বছর ৭ মাস পর ঝালকাঠি সিনিয়র জুডিশিয়াল আদালতে অভিযোগ করেন। অভিযোগের প্রেক্ষিতে আদালত রাজাপুর থানার ওসিকে মামলা রেকর্ডের নির্দেশ দেন।

    নিহতের স্ত্রী ছবি আক্তার সাবিনা মামলায় উল্লেখ করেন, আলতাফ হোসেনের সঙ্গে স্থানীয় জাহিদুল ইসলাম লিটন ওরফে সাদু হাওলাদার (৪০), মো. রেজোয়ান হাওলাদার (৪২), মো. মুজাম্মেল হাওলাদার (৪৫), মো. সিদ্দিকুর রহমানের (৪৮) জমিজমা নিয়ে দীর্ঘদিনের দ্বন্দ্ব ছিল।

    এছাড়া আলতাফ হোসেন দুটি বিয়ে করায় প্রথম সংসারে দুই ছেলে ও দুই মেয়ে সন্তান আছে। প্রথম সংসারের মেয়ে লাইজু আক্তারের সঙ্গে জাহিদুল ইসলাম লিটনের অবৈধ সম্পর্ক ছিল। এই সুযোগে জমি আত্মসাতের উদ্দেশ্যে উল্লেখিতরা আলতাফকে হত্যা করে।

    গতকাল রোববার আদালতে বিষয়টি অবহিত করার পর সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিচারক সেলিম রেজা আলতাফ হোসেনের মরদেহ কবর থেকে উত্তোলন করে পরীক্ষার জন্য নির্দেশ দেন।

    মামলার বাদী ছবি আক্তার সাবিনা বলেন, আমার স্বামীকে হত্যা করার পর থেকে আমাকে, আমার সন্তানকে নানাভাবে হত্যার ষড়যন্ত্র করছে আসামিরা। আমরা তাদের কারণে স্বাভাবিক জীবনযাপন করতে পারছি না।

    রাজাপুর থানা পুলিশের ওসি মো. শামসুল আরেফিন জানান, আদালতের নির্দেশক্রমে কবর থেকে লাশ উত্তোলন করা হয়েছে। দাফনের ৪ বছর ৩ মাস পর শরীরের বিভিন্ন অংশের কিছু হাড্ডি এবং মাথার খুলি ছাড়া কিছুই পাওয়া যায়নি।

    রাজাপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসক মো. আসাদুজ্জামান জানান, আদালতের নির্দেশে কবর থেকে কিছু হাড্ডি ও মাথার খুলি পাওয়া গেছে। এগুলো পরীক্ষার জন্য মহাখালী স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে পাঠানো হবে।