বিজয়ের দিন থেকে চলবে ‘বঙ্গবন্ধু এক্সপ্রেস’

ঢাকা ও উত্তরবঙ্গে সহজে যাতায়াতের জন্য ১৬ ডিসেম্বর থেকে একটি নতুন আন্তঃনগর ট্রেন চলাচল শুরু হচ্ছে। এ ট্রেনের নামকরণ করা হয়েছে ‘বঙ্গবন্ধু এক্সপ্রেস’। ট্রেনটি ঢাকা থেকে বঙ্গবন্ধু সেতু পূর্ব হয়ে সরিষাবাড়ি জামালপুর পর্যন্ত চলাচল করবে।

তথ্যপ্রতিমন্ত্রী ডাক্তার মুরাদ হাসান এমপি বিজয়ের মাসে নতুন ট্রেন বিজয়ের বেশে আসার কথা নিশ্চিত করে বলেন, নির্বাচনী এলাকায় জামালপুরের সরিষাবাড়িবাসীর প্রাণের দাবি পূরণ হতে হবে এ বিজয়ের মাসেই।

এছাড়াও প্রায় তিন কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত হচ্ছে সরিষাবাড়ি আধুনিক রেলস্টেশন। যার টেন্ডার প্রক্রিয়া শেষ হবে এ সপ্তাহেই। অ্যাডভোকেট মতিয়র রহমানের নামে নির্মিত স্টেশনটিও দ্বিতীয় শ্রেণিতে উন্নীত করার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন তথ্য প্রতিমন্ত্রী ডা. মুরাদ হাসান এমপি।

এর আগে ২ অক্টোবর রেলমন্ত্রী নুরুল ইসলাম সুজন সরিষাবাড়ি আওয়ামী লীগের আয়োজিত জনসভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে ডিসেম্বরের মধ্যে উত্তরবঙ্গ রুটে দুটি আন্তঃনগর ট্রেন চালুর সিদ্ধান্তের ঘোষণা দেন। এছাড়াও তিনি জনসভায় সরিষাবাড়ির জরাজীর্ণ রেলস্টেশনটি মডেল স্টেশন, ওভারব্রিজ নির্মাণ ও অ্যাডভোকেট মতিউর রহমান তালুকদার রেলস্টেশন দ্বিতীয় শ্রেণিতে উন্নীত করার প্রতিশ্রুত দেন।

এ বিষয়ে মতিয়র রহমান তালুকদার স্টেশনের বুকিং সহকারী জাহাঙ্গীর আলম বলেন, আমি শুনেছি ১৬ তারিখ থেকে আন্তঃনগর ‘বঙ্গবন্ধু এক্সপ্রেস’ ট্রেনটি চালু হতে যাচ্ছে। এতে যাত্রীদের দুর্ভোগ অনেকটা লাঘব হবে।

তারাকান্দি স্টেশন এলাকার যাত্রী শাকিল জানান, অনেক পথ ঘুরে ঢাকায় যেতে হয়। ‘বঙ্গবন্ধু এক্সপ্রেস’ চালু হলে কম সময়ে ঢাকা এবং উত্তরবঙ্গের সাথে যোগাযোগ সহজ হবে।

জগন্নাথগঞ্জ পুরাতনঘাট বাজারের ব্যবসায়ী আবু বক্কর জানান, বিজয়ের মাসে আমাদের ব্যবসায়ীদের জন্য আরেকটি বিজয় হচ্ছে আন্তঃনগর ‘বঙ্গবন্ধু এক্সপ্রেস’ ট্রেন। এ ট্রেনটি চালু হওয়ার ফলে আমাদের আর ঘুরপথে ঢাকায় যেতে হবে না।

সরিষাবাড়ী স্টেশন মাস্টার আবদুর রাজ্জাক জানান, ময়মনসিংহ, জামালপুর, সরিষাবাড়ি ও তারাকান্দি রেলস্টেশন হয়ে বঙ্গবন্ধু সেতু পূর্ব পর্যন্ত চলাচলকারী তিনটি লোকাল ট্রেনের সঙ্গে বঙ্গবন্ধু সেতু পূর্ব স্টেশন থেকে ছেড়ে যাওয়া ঢাকা-উত্তরবঙ্গগামী ট্রেনগুলোর সময়সূচির মিল না থাকায় যাত্রীরা ঢাকা ও উত্তরবঙ্গগামী ট্রেনগুলোয় ভ্রমণের সুবিধা ভোগ করতে না পারায় তিনটি লোকাল ট্রেনে যাতায়াতকারী যাত্রীর সংখ্যা আশঙ্কাজনকভাবে হ্রাস পেয়েছে।

তিনি আরো জানান, ১৯৮৬ সালের পর রেলওয়েতে কোনো জনবল নিয়োগ দেয়া হয়নি। তাই বিভিন্ন সাব-স্টেশন জনবল শূন্য রয়েছে।

তথ্য প্রতিমন্ত্রী ডা. মুরাদ হাসান জানান, সরিষাবাড়িকে মডেল হিসেবে গড়ে তোলার লক্ষ্যে কাজ করে যাচ্ছেন তিনি। জনগণের উন্নয়নে প্রাণপণ চেষ্টা চলছে। সরকারের উন্নয়নের ধারাবাহিকতার অংশ হিসেবেই বিজয়ের মাসে সরিষাবাড়ি রুটে আন্তঃনগর ‘বঙ্গবন্ধু এক্সপ্রেক্স’ ট্রেন চালু করে বিজয় স্মৃতিকে ইতিহাসের পাতায় স্থান করে দেয়া হবে।

এর আগে, বঙ্গবন্ধু সেতু পূর্ব থেকে ঢাকা ও উত্তরবঙ্গের সঙ্গে বৃহত্তর ময়মনসিংহ অঞ্চলের মানুষের সরাসরি রেল যোগাযোগ উন্নয়নের জন্য প্রায় ২৫০ কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মাণ করা হয়েছে লিংক রেলপথ। ১৯৯৬ সালের শেষদিকে তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জামালপুরের এক জনসভায় তারাকান্দি রেলস্টেশন থেকে বঙ্গবন্ধু সেতুপূর্ব পর্যন্ত মিটারগেজ লিংক রেলপথ স্থাপনের ঘোষণা দেন।

২০১২ সালের ৩০ জুন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তারাকান্দি-বঙ্গবন্ধু সেতুপূর্ব পর্যন্ত মিটারগেজ লিংক রেললাইন উদ্বোধন শেষে আন্তঃনগর ট্রেন চলাচলের ঘোষণা দেন। এরপর থেকে আন্তঃনগর যমুনা এক্সপ্রেসসহ তিনটি লোকাল ট্রেন নবনির্মিত এ লাইনে চলাচল শুরু করে।

বার্তাবাজার/কে.জে.পি

বার্তা বাজার .কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
এই বিভাগের আরো খবর