কোথায় হারল বাংলাদেশ?

ব্যাটিং ব্যর্থতায় রাজকোটে বাজে দিন কাটিয়েছে বাংলাদেশ। অথচ একটা সময় মনে হচ্ছিল, রানের পাহাড় গড়বেন লিটন, সৌম্যরা। কিন্তু নিজেদের ভুলে ২২ গজে দ্যুতি ছড়াতে পারেননি ব্যাটসম্যানরা।

প্রথম ৫০ রান পেতে বাংলাদেশের লেগেছিল মাত্র ৩৫ বল। ৫০ থেকে ১০০ তে যেতে লাগে ৪১ বল। আর ১০০ থেকে ১৫০ হয়েছে ৪৩ বলে। নিয়মিত বিরতিতে উইকেট হারিয়ে, ব্যাটিংয়ের ছন্দ নষ্ট করে ব্যাটিং স্বর্গ উইকেটে বাংলাদেশ ডুবে যায় অথৈ সাগরে। শুরুতে না পারলেও মাঝের ও শেষের ওভারগুলোয় বাংলাদেশকে চেপে ধরে ম্যাচ নিজেদের বাগে নিয়ে আসে টিম ইন্ডিয়া।

৬ উইকেট হারিয়ে ১৫৩ রানের বেশি করতে পারেনি বাংলাদেশ। লক্ষ্য তাড়ায় ৮ উইকেট হাতে রেখে ২৬ বল আগে জয় নিশ্চিত করে ভারত। ম্যাচ শেষে মাহমুদউল্লাহ জানিয়েছেন, ব্যাটিংয়ে অন্তত ১৭৫ রান করা উচিত ছিল। ২৫-৩০ রানের আক্ষেপ বাংলাদেশ অধিনায়কের।

‘আমি মনে করি আমাদের ওপেনাররা খুব ভালো শুরু এনে দিয়েছিল। এটা ১৮০-র বেশি রানের উইকেট ছিল। উইকেট খুব ভালো ছিল ব্যাটিংয়ের জন্য। আমাদের অন্তত ১৭৫ করা উচিত ছিল। ১২ ওভারেই আমাদের ১০০-এর ওপরে ছিল। সেখান থেকে ১৭০-১৮০ রান করা উচিত ছিল’- বলেন মাহমুদউল্লাহ।

উদ্বোধনী জুটিতে ৬০ রান তোলেন নাঈম শেখ ও লিটন দাস। উদ্বোধনী জুটি ভাঙার পর বাংলাদেশ দ্রুত উইকেট হারায়। ৮৩ থেকে ১০৩ রানে যেতে বাংলাদেশ হারায় ৩ উইকেট। ইনিংসের মধ্যভাগে রানের চাকা প্রায় থেমেই গিয়েছিল। আর শেষ দিকে রান তোলা যাচ্ছিল না কোনোভাবেই। শেষ তিন ওভারে যোগ হয়েছে মাত্র ১৭ রান। এ সময়ে বাউন্ডারি এসেছে মাত্র ১টি, ভাবা যায়!

ব্যাটিংয়ে হতশ্রী পারফরম্যান্সের জন্য মাহমুদউল্লাহ দোষ চাপাননি কোনো ব্যাটসম্যানের ওপর। তবে ব্যাটিংয়ের খুঁটিনাটি নিয়ে কথা বলেছেন গণমাধ্যমে, ‘টপ অর্ডার ভালো ব্যাটিং করেছে। মিডলে কিছু উইকেট হারানোর কারণে আমাদের ক্ষতি হয়েছে। সে সময় রানরেট স্লো হয়ে গিয়েছিল, যেখানে হয়তো বা একজন সেট ব্যাটসম্যান থাকলে আরও সহজ হতো। তাহলে হয়তো রানের চাকা সচল রাখতে পারতাম। এই জায়গাগুলোতে আমরা ভুল করেছি।’

শেষ পাঁচ ওভারে বাংলাদেশ পেয়েছিল ৪১ রান। আফিফ, মোসাদ্দেক ও আমিনুল ডেথ ওভারে ছিলেন নিস্প্রভ। রান তো তুলতেই পারেননি, বরং বল নষ্ট করেছেন প্রত্যেকে। মাহমুদউল্লাহ চেষ্টা চালিয়েও ২১ বলে ৩০ রানের বেশি করতে পারেননি। নিজেদের ব্যাটিং ব্যর্থতা মেনে মাহমুদউল্লাহ ভারতের বোলারদের কৃতিত্ব দিয়েছেন।

‘আমাদের শেষ পাঁচ ওভারে পাঁচ উইকেট হাতে ছিল। শেষ পাঁচ ওভারে আমরা ওরকম রান তুলতে পারিনি। ওদেরও ওইরকম কৃতিত্ব দিতে হবে। ওদের এক্সিকিউসন ভালো ছিল। আমাদের আরও ভালো করা উচিত ছিল। কারণ উইকেট ভালো ছিল। আমরা যদি গ্যাপগুলোতে রান বের করতে পারতাম, হয়তো আরও কিছু রান আসত’- বলেছেন মাহমুদউল্লাহ।

বার্তাবাজার/কে.জে.পি

বার্তা বাজার .কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।